রোহিঙ্গাদের নিয়ে বাংলাদেশের পরিকল্পনা কী? | বিশ্ব | DW | 04.12.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ব্লগ

রোহিঙ্গাদের নিয়ে বাংলাদেশের পরিকল্পনা কী?

প্রায় দশলাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী বর্তমানে বাংলাদেশে বসবাস করছেন৷ তাঁদের ফিরিয়ে নেয়ার তৎপরতা কথা শোনা যাচ্ছে৷ কিন্তু সেটা কি আদৌ সম্ভব হবে?

নতুন গড়ে ওঠা রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবিরগুলোতে অনেককিছুই নেই৷ পরিষ্কার পানির ব্যবস্থা নেই, বিদ্যুৎ নেই, পর্যাপ্ত ল্যাট্রিন নেই, নেই প্রতিদিনের খাবারের নিশ্চয়তা৷ বাড়ির পাশ দিয়ে বয়ে চলা নালার গন্ধে সেখানেও ঘুমানোও কষ্টকর হওয়ার কথা৷ তারপরও শরণার্থীদের অভিযোগ তেমন একটা নেই৷ বরং জিজ্ঞাসা করলে অধিকাংশই বলেন যে তাঁরা ভালো আছেন৷ আরা যাঁরা কষ্টের কথা বলেন, তাঁদের অভিযোগ ত্রাণ নিয়ে৷ ত্রাণ এখনো সবার হাতে পৌঁছাচ্ছে না, বিশেষ করে যারা অনিবন্ধিত ক্যাম্পে আছেন, তাঁদের পক্ষে ত্রাণ পাওয়া একটু কঠিন৷ এর বাইরে অভিযোগ তেমন একটা শোনা যায় না৷

এত নোংরা পরিবেশের মধ্যে থাকা মানুষগুলো যখন বলেন তাঁরা ভালো আছেন, তখন বোঝাই যায় তাঁরা আসলে কতটা দুর্বিষহ জীবন পাড়ি দিয়ে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছেন৷ রোহিঙ্গা শরণার্থীরা পরিষ্কার ভাষাতেই তাঁদের উপর নির্যাতনের কথা জানান৷ কেউ বাবা-মা হারিয়েছেন মগ কিংবা সেনাবাহিনীর হামলায়, কারো লেখাপড়া বন্ধ হয়ে গেছে কিংবা হয়েছেন ধর্ষণের শিকার৷ এ সব মানুষরা ফিরে যেতে রাজি এক শর্তে৷ মিয়ানমার সরকারকে তাঁদের রোহিঙ্গা হিসেবে স্বীকার করে নাগরিকত্ব দিয়ে ফিরিয়ে নিতে হবে, নিশ্চিত করতে হবে নিরাপত্তা৷

কিন্তু রোহিঙ্গা সংকট নিরসনে আন্তর্জাতিক স্তরে যে তৎপরতা চলছে তাতে এখন পর্যন্ত নাগরিকত্ব ইস্যুতে জোরালো কোনো উদ্যোগ দেখা যায়নি৷ বরং পশ্চিমা নেতারা বাংলাদেশে এসে রোহিঙ্গাদের দুর্দশা নিয়ে যতটা উচ্চকণ্ঠে কথা বলেন, মিয়ানমারে গিয়ে বা আন্তর্জাতিক সম্মেলনে তাদের গলা ততটাই নরম হয়ে যায়৷

এমন পরিস্থিতি, রোহিঙ্গা সংকটের আশু সমাধান আশা করছেন না অনেকেই৷ মিয়ানমার কিছুদিন আগে রোহিঙ্গাদের ফেরত নেয়ার যে ঘোষণা দিয়েছে, তাতেও আশা দেখছেন না অনেকে৷ বরং নাগরিকত্ব ইস্যুতে সুনির্দিষ্ট কিছু না থাকায় এভাবে ফিরে যেতে অনীহা দেখেছিলেন অনেক রোহিঙ্গা৷ তাঁরা মনে করেন, নিজের দেশে ক্যাম্পে থাকার চেয়ে বাংলাদেশের ক্যাম্প অনেক ভালো৷

আরাফাতুল ইসলাম, ডয়চে ভেলে

আরাফাতুল ইসলাম, ডয়চে ভেলে

কক্সবাজারের সব রোহিঙ্গা ক্যাম্পের দায়িত্বে থাকা নিরাপত্তা বাহিনীর এক কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানালেন, আগামী দু'মাসে রোহিঙ্গারা ফিরে যাবে এমন আশা করার যৌক্তিকতা খুবই কম৷ তাই এই সমস্যার দীর্ঘমেয়াদি সমাধানের দিকেই মনোযোগ দেয়া উচিত বলে মনে করেন তিনি৷ সেক্ষেত্রে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে দেয়ার মতো উদ্যোগের পক্ষে তিনি৷ এশিয়ার দেশগুলো নিজেদের ধারণক্ষমতা অনুযায়ী, রোহিঙ্গা শরণার্থীদের নিয়ে যেতে পারে বলে মত তাঁর৷

আনুষ্ঠানিকভাবে অবশ্য বাংলাদেশ এখনো শরণার্থী ইস্যুতে ইতিবাচক অবস্থানেই আছে৷ দেশ, বিদেশ থেকে সহায়তা আসছে প্রচুর৷ হঠাৎ করে ছয় লাখের বেশি শরণার্থী আসার ধকল সামাল দিয়ে প্রশংসা কুড়িয়েছে বাংলাদেশের সেনাবাহিনী৷ বর্তমান সরকারও আন্তর্জাতিক সমাজে পাচ্ছে বাড়তি গুরুত্ব৷ কিন্তু চলমান এই সংকটের দীর্ঘমেয়াদি সমাধানের কথা আসলেই কি কেউ ভাবছে?

এ বিষয়ে আপনার কিছু বলার থাকলে লিখুন নীচে মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়