রেহাই পেয়ে গেলেন ক্রিকেটার মোহাম্মদ সামি?‌ | বিশ্ব | DW | 23.03.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভারত

রেহাই পেয়ে গেলেন ক্রিকেটার মোহাম্মদ সামি?‌

ক্রিকেট খেলোয়াড় মোহাম্মদ সামিকে ম্যাচ গড়াপেটার অভিযোগ থেকে অব্যাহতি দিলো বিসিসিআই৷ সামি'র বিরুদ্ধে তাঁর স্ত্রী যে ব্যাভিচারের অভিযোগ এনেছেন, তা-ও প্রমাণসাপেক্ষ, বলছেন আইনজীবীরা৷

মূলত স্বামী-র মধ্যে সমস্যা এটি৷ নামী ক্রিকেট খেলোয়াড় মোহাম্মদ সামি’র একটি গোপন মোবাইল ফোনের হদিস পান তাঁর স্ত্রী হাসিন৷ সেই ফোনে তিনি দেখতে পান, সামির সঙ্গে একাধিক মহিলার নিয়মিত ‘‌চ্যাট’ করার রেকর্ড, যা থেকে বোঝা যায়, ওই মহিলাদের সঙ্গে অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে সামি'র৷ এরপরই হাসিন গোটা বিষয়টি সংবাদমাধ্যমের সামনে তুলে ধরেন৷ নির্দিষ্ট কয়েকজন মহিলার নাম করে, সামির বিরুদ্ধে ব্যাভিচারের অভিযোগ আনেন৷ সেই সঙ্গে অভিযোগ করেন, ভারতীয় ক্রিকেট দলের সঙ্গে বিদেশ সফরে গেলে সামি নিয়মিত যৌনকর্মীদের সঙ্গ কিনতেন৷ আর তার সঙ্গে আরও গুরুতর একটি সন্দেহ প্রকাশ করেন হাসিন, যে সামি অনেক সময়ই বেশ মোটা অঙ্কের টাকা পেয়েছেন, যার উৎস অজানা৷ ওই টাকা সামি কেন পেয়েছেন, সে নিয়েও সন্দেহ প্রকাশ করেন হাসিন৷ ইঙ্গিত ছিল পরিষ্কার যে, সামি হয়ত ম্যাচ গড়াপেটার সঙ্গেও জড়িত থাকতে পারেন৷

অডিও শুনুন 01:58
এখন লাইভ
01:58 মিনিট

সামির খেলোয়াড়ি দক্ষতা নিয়ে এখনও কোনও প্রশ্ন নেই: অনির্বাণ মজুমদার

এই সন্দেহ প্রকাশ করার পর ভারতীয় ক্রিকেট নিয়ন্ত্রক পর্ষদ বিসিসিআই স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে সামি সম্পর্কে একটি তদন্ত শুরু করে৷ বৃহস্পতিবার সেই তদন্ত কমিটি জানিয়ে দিলো, ম্যাচ গড়াপেটার সঙ্গে সামির জড়িত থাকার সন্দেহ অমূলক৷ তদন্ত শুরু হওয়ার আগে পর্ষদের সঙ্গে সামির চুক্তির ওপর যে সাময়িক স্থগিতাদেশ জারি করা হয়েছিল, তা-ও তুলে নেওয়া হয়৷ ক্রীড়া সাংবাদিক অনির্বাণ মজুমদার এই প্রসঙ্গে ডয়চে ভেলেকে জানালেন, বিসিসিআই মোহাম্মদ সামিকে সন্দেহমুক্ত ঘোষণা করার অর্থ, ক্রিকেট খেলে যেতে সামির কোনও বাধা রইলো না৷ ভারতীয় টেস্ট এবং এক দিনের ক্রিকেটে তো বটেই, পেশাদার আইপিএল ক্রিকেট লিগেও সামি খেলতে পারবেন৷ কারণ, সামির খেলোয়াড়ি দক্ষতা নিয়ে এখনও কোনও প্রশ্ন নেই৷ যদি না হাসিনের আনা অন্য অভিযোগে সামির কারাদণ্ড, বা অনুরূপ কোনও শাস্তি হয়, সামির খেলে যেতে কোনও অসুবিধে নেই, যা হয়ে গেল অলিম্পিয়ান টেবিল টেনিস খেলোয়াড় সৌম্যজিৎ ঘোষের ক্ষেত্রে৷ বান্ধবীর সঙ্গে প্রতারণা, এমনকি ধর্ষণ এবং জোর করে গর্ভপাত করানোর অভিযোগ উঠেছে সৌম্যজিতের বিরুদ্ধে৷ ভারতীয় টেবিল টেনিসের নিয়ন্ত্রক সংস্থা টিটিএফআই এখন সৌম্যজিৎকে সাসপেন্ড করার কথা ভাবছে৷ সামির আপাতত সেই সমস্যা নেই, জানালেন অনির্বাণ৷

অডিও শুনুন 02:00
এখন লাইভ
02:00 মিনিট

বান্ধবীদের সঙ্গে চ্যাটের ভিত্তিতে কোনও কিছু ধরে নেওয়াটা আইনের কাছে গ্রাহ্য হবে না: সন্দীপ ভট্টাচার্য

কিন্তু ব্যাভিচারের অভিযোগের ভিত্তিতেই বা সামিকে কী শাস্তি দেওয়া যেতে পারে?‌ ভারতীয় দণ্ডবিধি অনুযায়ী, ব্যাভিচারের সর্বোচ্চ শাস্তি পাঁচ বছরের জেল, অথবা জরিমানা, অথবা দুটোই৷ ডয়চে ভেলেকে জানালেন ফৌজদারি আইনজীবী সন্দীপ ভট্টাচার্য৷ কিন্তু এক্ষেত্রে ব্যাভিচার প্রমাণসাপেক্ষ৷ আইনের সংজ্ঞা অনুযায়ী, বিবাহ বহির্ভূত শারীরিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে, যদি না সেটা ধর্ষণ হয়, তা হলে একমাত্র বিবাহিত মহিলার স্বামীর অগোচরে, বা অনুমতি ছাড়া সম্পর্কই ব্যাভিচার হিসেবে ধরা হবে৷ এমনকি যৌনকর্মীদের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কও ব্যাভিচারের আওতায় পড়বে না, অন্তত আইনের চোখে৷ এবং শুধু অভিযোগ তুললেই হবে না, সেটা প্রমাণ করতে হবে৷ বান্ধবীদের সঙ্গে চ্যাটের ভিত্তিতে কোনও কিছু ধরে নেওয়াটা আইনের কাছে গ্রাহ্য হবে না৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন