রেস্তোরাঁয় খেলে বিশাল ছাড় দিচ্ছে ব্রিটিশ সরকার | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 09.08.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্রিটেন

রেস্তোরাঁয় খেলে বিশাল ছাড় দিচ্ছে ব্রিটিশ সরকার

করোনা সংকটের ফলে বিপর্যস্ত রেস্তোঁরাগুলির সহায়তায় এগিয়ে এসেছে ব্রিটেনের সরকার৷ সপ্তাহে তিন দিন প্রায় অর্ধেক দামে বাইরে খাবার সুযোগ করে দিতে এক কর্মসূচি চালু করা হয়েছে৷

করোনা সংকটের ফলে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছে শিল্প ও বাণিজ্য জগতের অসংখ্য ক্ষেত্র৷ এমন অনিশ্চয়তার ফলে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে চরম বেকারত্বের আশঙ্কা বাড়ছে৷ বিভিন্ন দেশের সরকার ভর্তুকি ও অন্যান্য পদক্ষেপের মাধ্যমে ক্রেতা ও ভোক্তাদের আরও ব্যয় করতে উৎসাহ দিচ্ছে৷ ব্রিটেনের সরকারের এমনই এক উদ্যোগ বেশ নজর কাড়ার মতো৷

হোটেল-রেস্তারাঁয় মানুষকে ফিরিয়ে আনতে ব্রিটেনের সরকার ‘ইট টু হেল্প আউট’ কর্মসূচি চালু করেছে৷ এর আওতায় প্রায় অর্ধেক দামে খাদ্য ও পানীয় পাওয়া যাচ্ছে৷ গত সোমবার প্রথমবার সেই সুযোগের সদ্ব্যবহার করতে ঠিক কত মানুষ এগিয়ে এসেছিলেন, তা এখনো স্পষ্ট নয়৷

তবে সরকারি এই কর্মসূচির ক্ষেত্রে কিছু শর্ত রাখা হয়েছে৷ আপাতত ৩রা আগস্ট থেকে ৩১শে আগস্ট পর্যন্ত এর মেয়াদ স্থির করা হয়েছে৷ এর আওতায় প্রতি সোমবার, মঙ্গলবার ও বুধবার রেস্তোরাঁয় খেতে গেলে সর্বোচ্চ ১০ পাউন্ডের ছাড় পাওয়া যাবে৷ যতবার খুশি মানুষ বাইরে খেতে যেতে পারেন৷ নির্দিষ্ট দিনগুলিতে প্রতি বার এই ছাড় পাওয়া যাবে৷ তবে সস্তায় মদ্যপানের সুযোগ কিন্তু থাকছে না৷ অর্থাৎ ছাড় পেতে হলে পানীয় হিসেবে মদের বিকল্প বেছে নিতে হবে৷ ‘সার্ভিস চার্জ’ বা পরিষেবা সংক্রান্ত মাসুলের ক্ষেত্রেও ছাড় পাওয়া যাবে না৷

গোটা দেশজুড়ে প্রায় ৭২,০০০ ক্যাফে, বার, রেস্তোরাঁ, পাব, ক্যান্টিনসহ খাবার সরবরাহকারী সংস্থা সরকারের এই কর্মসূচিতে অংশ নিচ্ছে৷ এই উদ্যোগের ব্যয়ের অঙ্ক প্রায় ৫০ কোটি পাউন্ড ছুঁতে পারে বলে অনুমান করা হচ্ছে৷ অর্থমন্ত্রী ঋষি সুনক এ কথা জানিয়েছেন৷

শুধু আর্থিক ছাড়ের টানে কত মানুষ ঘর ছেড়ে রেস্তোরাঁয় বসে খাবার সাহস পাবেন, তা নিয়ে সংশয় রয়ে গেছে৷ বর্তমানে ব্রিটেনে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকির কারণে অনেক মানুষই বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া প্রকাশ্যে বের হচ্ছেন না৷ ২৩ বছর বয়সি ম্যাট হ্যাডলি সংবাদ সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, প্রায় অর্ধেক দামে ইংলিশ ব্রেকফাস্ট খাবার সুযোগ পেলেও স্বাস্থ্যগত ঝুঁকি এড়িয়ে চলা তাঁর কাছে অত্যন্ত জরুরি৷ তাঁর মতে ভারসাম্য খুঁজতে গেলে শেষ পর্যন্ত ৫০ শতাংশ ছাড়ের তুলনায় সুস্থ থাকার বিষয়টিকেই অগ্রাধিকার দিতে হয়৷

ম্যাটের মতো ব্রিটেনের সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষ এমন ঝুঁকি নিতে না চাইলে এই কর্মসূচির সাফল্য নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন