রেস্টুরেন্ট থেকে অফিস ক্যান্টিন | অন্বেষণ | DW | 18.04.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

রেস্টুরেন্ট থেকে অফিস ক্যান্টিন

ডেনমার্কের মিশেলিন তারকা প্রাপ্ত শেফ মিকেল কার্স্টাড হঠাৎ নামিদামি রেস্টুরেন্ট ছেড়ে অফিস ক্যান্টিনে রান্নার দায়িত্ব নিলেন, কেননা তাঁর কাছে পারিবারিক জীবনের মূল্য পেশাগত সাফল্যের চেয়ে কোনো অংশে কম নয়৷

শেফ মিকেল কার্স্টাড মুক্ত প্রকৃতিতে, খোলা আকাশের নীচে রান্না করতেই ভালোবাসেন৷ ডেনমার্কের উপকূলে বাল্টিক সাগর থেকে আজ ঝিনুক তুলে এনেছেন মিকেল৷ তার সঙ্গে যোগ করেছেন ‘ফেনেল' বা মৌরি, আপেল ও রসুন৷ মিকেল কার্স্টাডের রান্না এইরকম সহজ ও সাদামাটা – যে কারণে সারা ডেনমার্কে আজ তাঁর খ্যাতি ছড়িয়ে পড়েছে৷

মিকেল জানালেন, ‘‘আমি রান্নার উপাদানগুলির উপর জোর দিই৷ দেখি, এখন কী মরশুম এবং কীসের মরসুম, আর তাই দিয়ে রান্না করার চেষ্টা করি৷ কেননা, মৌসুমি খাবারদাবার দামে সস্তা হয়, আবার সহজে পাওয়া যায়৷ কাজেই রান্নার স্বাদ-গন্ধ সবই খুব ভালো হয়৷''

কোপেনহেগেনের মিশেলিন তারকাযুক্ত নানা রেস্টুরেন্টে বহুবছর ধরে কাজ করেছেন মিকেল কার্স্টাড৷ বিশ্বখ্যাত ‘নোমা' রেস্টুরেন্টের উপদেষ্টা ছিলেন তিনি৷ তারপর নামকরা রেস্টুরেন্ট ছেড়ে সেদিকে মন দেন, যেখানে বহু মানুষজনকে প্রতিদিন তাঁর রান্না খাওয়াতে পারবেন: অফিস ক্যান্টিনে রাঁধতে শুরু করেন মিকেল৷ তাঁর অভিযান শুরু হয় ২০১২ সালে, এই অফিস ক্যান্টিনটিতে৷ তখন এই ক্যান্টিনে প্রচুর পরিমাণ মাংস আর চর্বিওয়ালা ঝোল ছাড়া বিশেষ কিছু পাওয়া যেতো না৷ আজ এই ক্যান্টিনের মেনু মিকেলের নিজের হাতে গড়া৷

ভিডিও দেখুন 04:13
এখন লাইভ
04:13 মিনিট

পারিবারিক জীবনের মূল্য দিতে ক্যান্টিনে রান্না

মিকেল বললেন, ‘‘আমরা সব কিছু বদলে দিয়েছি৷ প্রথমেই আমরা ভাঁড়ারে গিয়ে অনেক কিছু ফেলে দিই– যেমন আগে থেকে তৈরি খাবারদাবার বা সহজে রান্না করার মতো খাবারদাবার৷ আমরা সব কিছু নতুন করে শুরু করি৷''

মিকেলের মতে ক্যান্টিনে স্বাস্থ্যকর খাবার যে দামি হতেই হবে, এমন কোনো কথা নেই৷ বরং অফিসের কর্মচারীদের খাওয়াদাওয়ার অভ্যেস আর রুচি বদলানোটাই বেশি শক্ত৷ অনেকে গোড়ায় নাক কুঁচকেছেন৷ চার মাস ধরে মিকেলকে তাঁর রান্নার মর্ম বোঝাতে হয়েছে৷

মিকেল-এর মতে, ‘‘লোকজনকে বোঝালে তারা ঠিকই বোঝে৷ কাজেই আমি দুপুরের খাওয়ার সময় প্রতিদিন এখানে দাঁড়িয়ে থাকতাম আর লোকজনের সাথে কথা বলতাম; তাদের বলতাম, এটা এই রান্না আর আমরা এটা এভাবে রাঁধছি, কেননা মাংসের সাথে এই সবজিগুলো খুব ভালো মেলে৷''

ক্যান্টিনে লাইন  পড়ে

সাফল্যও পেয়েছেন মিকেল: আজ এই ক্যান্টিনে ঠিক দুপুর বারোটায় অফিসকর্মীদের লাইন পড়ে যায়৷ যে ক্যান্টিন আগে খুব খারাপ বলে গণ্য ছিল, আজ তা ডেনমার্কের সেরা অফিস ক্যান্টিনগুলোর মধ্যে পড়ে৷

অতিথিদের কেউ বলেন, তিনি এই খাবার খুব ভালোবাসেন; খুবই স্বাস্থ্যকর আর এখানে এমন সব খাবার পাওয়া যায়, যা বাড়িতে সাধারণত মেলে না৷

আরেকজন বললেন, তিনি ৩৬ বছর ধরে এই অফিসে কাজ করছেন৷ আগে এই ক্যান্টিনে টিনের মাছ আজ কলিজার ভর্তা ছাড়া কিছু পাওয়া যেতো৷ এখন অনেক উন্নতি হয়েছে৷

তাঁর পন্থা যে সফল হয়েছে, মিকেল কার্স্টাড তাতে খুশি৷ আপাতত তিনি একটি বৃদ্ধাশ্রম ও একটি হাসপাতালের বাসিন্দা ও রোগীদের পথ্য সংক্রান্ত উপদেষ্টা – আবার ডেনমার্কের সবচেয়ে নামকরা শেফদের একজনও বটে৷ মিকেল নানা খেতাব জিতেছেন ও রান্নার বই বার করেছেন৷ তাঁর সর্বাধুনিক রান্নার বইটির নাম হল ‘এভারগ্রিন', ‘চিরসবুজ': নিরামিষ রান্না নিয়ে বই৷ সোশ্যাল মিডিয়াও ভালো বোঝেন মিকেল, ইনস্টাগ্রামে রোজ একটি নতুন রেসিপি পোস্ট করেন৷ এছাড়া থাকে তাঁর ব্যক্তিগত জীবনের নানা খুঁটিনাটি – কেননা মিকেল চার সন্তানের জনক৷ ছেলেমেয়েদের সঙ্গে যতোটা সম্ভব সময় কাটাতে চান তিনি৷

নামকরা শেফ, ওদিকে চার ছেলেমেয়ের বাবা মিকেলের পক্ষে পেশা আর পরিবারের মধ্যে ভারসাম্য রাখা খুব সহজ হয়নি৷ তিনি যে নামিদামি রেস্টুরেন্টের শেফ হওয়ার কাজ ছেড়েছেন, তার একটি কারণ, মিকেল সন্ধ্যায় স্ত্রী আর ছেলেমেয়েদের সঙ্গে এক টেবিলে বসে রাতের খাওয়া খেতে ভালোবাসেন৷

কাজেই মিকেল কার্স্টাডকে এক নতুন ধরনের শেফ বলা চলে – যেমন তাঁর পেশায়, তেমনই তাঁর পারিবারিক জীবনে৷

আন্টিয়ে বিন্ডার/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন