রাস্তা বন্ধ করে বিক্ষোভ নয়, শাহিনবাগ নিয়ে সুপ্রিম কোর্ট | বিশ্ব | DW | 07.10.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

রাস্তা বন্ধ করে বিক্ষোভ নয়, শাহিনবাগ নিয়ে সুপ্রিম কোর্ট

প্রতিবাদের অধিকার আছে, কিন্তু অনির্দিষ্টকাল রাস্তা বন্ধ রেখে বিক্ষোভ দেখানো যাবে না, শাহিনবাগ নিয়ে রায় সুপ্রিম কোর্টের। 

প্রশ্ন উঠেছিল শাহিনবাগের বিক্ষোভ চলার সময়ই। এ ভাবে কোনো রাস্তা দিনের পর দিন বন্ধ করে বিক্ষোভ দেখানো যায় কি? শাহিনবাগে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে মুসলিম নারীদের বিক্ষোভ চলেছিল ১০১ দিন ধরে। করোনা প্রকোপ শুরু হওয়ার পর সেই বিক্ষোভ শেষ হয়। সুপ্রিম কোর্ট বুধবার তার রায়ে বলেছে, গণতন্ত্রে শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ দেখানোর অধিকার অবশ্যই জনগণের আছে। কিন্তু তাই বলে অনির্দিষ্টকালের জন্য রাস্তা বা কোনো পাবলিক প্লেস বন্ধ করে দিয়ে বিক্ষোভ দেখানোর অধিকার কারো নেই।

শাহিনবাগের বিক্ষোভ ছিল শান্তিপূর্ণ। সেই বিক্ষোভ অনেক দিক থেকেই ছিল অভূতপূর্ব। এতজন নারী একটি আইনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখিয়ে চলেছেন, তাঁরা রাতেও থাকছেন, কম বয়সী থেকে শুরু করে আশির বেশি বয়সের নারীরা বিক্ষোভে অংশ নিচ্ছেন, এমন দৃশ্য আগে কখনো দেখেনি দিল্লি। পাশাপাশি এটাও ঠিক, একটা ব্যস্ত রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে তাঁরা বিক্ষোভ দেখিয়ে গিয়েছেন। পুলিশ ও প্রশাসনের পক্ষ থেকে যন্তর মন্তরে গিয়ে বিক্ষোভ দেখানোর অনুরোধে করলেও তাঁরা কান দেননি।

সুপ্রিম কোর্ট জানিয়েছে, ''আমরা অবশ্যই  শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভের প্রশংসা করি, কিন্তু সেই বিক্ষোভ নির্দিষ্ট জায়গায় হতে হবে। অন্যদের অসুবিধা করে, সকলে যে জায়গা ব্যবহার করেন, তা বন্ধ করে দিয়ে অনির্দিষ্টকালের জন্য বিক্ষোভ হতে পারে না।''

বিচারপতি এস কে কল, বিচারপতি অনিরুদ্ধ বসু ও বিচারপতি কৃষ্ণ মুরারি তাঁদের রায়ে বলেছেন, ''শাহিনবাগ, দিল্লির অন্য কোথাও বা দেশের কোনো জায়গায় পাবলিক প্লেস দখল করে অনির্দিষ্টকালের জন্য বিক্ষোভ দেখানো যেতে পারে না। রাস্তা বন্ধ করে শাহিনবাগের বিক্ষোভ এ কারণেই আমরা মেনে নিতে পারছি না। এ ধরনের ক্ষেত্রে কর্তৃপক্ষকে ব্যবস্থা নিতে হবে। প্রশাসনকে এর জন্য আদালতেও আসতে হবে না।''

দিল্লিতে সাধারণত যন্তর মন্তরের পাশের একটি রাস্তায় বিক্ষোভ হয়। সারা বছরই সেখানে প্রচুর লোক নানা বিষয়ে বিক্ষোভ দেখান।

বিচারপতিরা বলেছেন, ''প্রতিবাদের অধিকার ও রাস্তা বন্ধ করার মধ্যে আমাদের ভারসাম্য বজায় রেখে চলতে হবে। সংসদীয় গণতন্ত্রে সংসদে প্রতিবাদ হবে। রাস্তাতেও হবে। তবে রাস্তায় প্রতিবাদ শান্তিপূর্ণ হতে হবে।'

শাহিনবাগ নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে অন্যতম আবেদনকারী মাহমুদ ফরাজা ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন, ''আমাদের আবেদনটা ছিল একটিমাত্র বিষয়ে, তা হলো, শাহিনবাগে যেন পুলিশ গিয়ে জোর করে বিক্ষোভ না তুলে দেয়। বিজেপি নেতারা দাবি করছিলেন, পুলিশ দিয়ে এই বিক্ষোভ উঠিয়ে দিতে হবে। সে জন্যই এই আবেদন করেছিলাম। আমরা রায় পুরোটা পড়িনি। পুরোটা পড়ে আমরা পরবর্তী পদক্ষেপ ঠিক করব।''

সিপিআই নেতা অতুন কুমার আনজান মনে করেন, সুপ্রিম কোর্ট আবার জানিয়ে দিল, বিক্ষোভ দেখানোর, নিজেদের মতামত দেয়ার অধিকার সকলের আছে। ডয়চে ভেলেকে তিনি জানিয়েছেন, ''লোকে সরকারের কাছে নিজেদের মতামত জানাতে পারে, বিক্ষোভ দেখাতে পারে, প্রতিবাদ জানাতে পারে। অবশ্যই এই প্রতিবাদ শান্তিপূর্ণ হবে। সুপ্রিম কোর্টও তাদের রায়ে এই কথাই বলেছে।''

জিএইচ/এসজি(পিটিআই, এএনআই)

 

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন