রাস্তায় নেমে প্রতিবাদে মমতা থেকে প্রিয়াঙ্কা গান্ধী | বিশ্ব | DW | 16.12.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

রাস্তায় নেমে প্রতিবাদে মমতা থেকে প্রিয়াঙ্কা গান্ধী

নাগরিকত্ব বিল নিয়ে রাজনৈতিক প্রতিবাদও জোরালো হতে শুরু করল। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্য়ায় থেকে প্রিয়াঙ্কা গান্ধী সকলেই রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ দেখালেন।

এনআরসি নিয়ে পথে নামলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, প্রিয়ঙ্কা গান্ধীরা৷ মমতা কলকাতায় মিছিল করেছেন। আর প্রিয়ঙ্কা গান্ধী ইন্ডিয়া গেটে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু করে দিয়েছেন৷ এভাবেই চাত্রদের পাশাপাশি বিরোধী নেতা-নেত্রীরাও প্রতিবাদ দেখাতে শুরু করলেন। এই প্রথমবার দিল্লিতে প্রিয়ঙ্কা রাস্তায় নেমে বিরোধ দেখালেন৷  

মমতা বন্ধ্যোপাধ্য়ায়৷ সোমবার দুপুরে কলকাতার রাস্তায় মিঠিল ককরেন সেই মিছিল শেষ হল রবীন্দ্রনথের স্মৃতিবিজড়িত জোড়াসাঁকোয়৷ শুধু তাই নয়, এই দুটি বিষয়ে একেবারে কট্টর অবস্থান নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকার ও বিজেপি-কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, ''চাইলে আমার সরকার বরখাস্ত করুক কেন্দ্র৷ কিন্তু পশ্চিমবঙ্গে আমি থাকতে কেউ এনআরসি ও নাগরিকত্ব আইন চালু করতে পারবে না৷ করতে হলে আমার মৃতদেহের ওপরে করতে হবে।'' তৃণমূল নেতারা মনে করছেন, রাজ্যে সম্প্রতি তিনটি উপ নির্বাচনে এনআরসি নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর অবস্থান তাঁদের জিতিয়েছে। একুশেও বিধানসভা নির্বাচনে তুরুপের তাস হয়ে উঠতে পারে এই বিরোধিতা৷ আর ভারতের বিভিন্ন রাজ্যের ছাত্ররা যখন প্রতিবাদে মুখর, তখন তাঁর বিরোধিতা আরও বেশি করে লোকের কাছে পৌঁছবে৷ মুখ্যমন্ত্রী অবশ্য এ দিন স্পষ্ট করে দিয়েছেন, তিনি হিংসা বরদাস্ত করবেন না৷ কেউ যেন হিংসার আশ্রয় না নেয়৷ মমতা জানিয়েছেন, মঙ্গল ও বুধবারও তৃণমূলের প্রতিবাদ বিক্ষোভ চলবে৷    

নাগরিকত্ব বিল নিয়ে দেশের বিভিন্ন জায়গায় ছাত্রদের প্রতিবাদ শুরু হতেই তার পাশে দাঁড়িয়েছে বিরোধী দলগুলি৷  সোমবার দিল্লিতে বিরোধী দলগুলির তড়িঘড়ি করে বৈঠক ডাকে কংগ্রেস৷ বৈঠকে এনসিপি, আরজেডি, সিপিএম, সিপিআই নেতারা এবং শরদ যাদব যোগ দেন৷ বৈঠকের পর বিরোধী নেতারা জানান, ছাত্ররা বিক্ষোভ দেখাবেনই৷ আগেও দেখিয়েছেন, পরেও দেখাবেন৷ তাই বলে কোনও অনুমতি ছাড়াই পুলিশ বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে ঢুকে নির্মমভাবে তাদের মারবে? কংগ্রেস নেতা গুলাম নবি আজাদ, সিপিএমের সীতারাম ইয়েচুরিরা প্রশ্ন তুলেছেন, দিল্লিতে এরকম ঘটনা ঘটছে, সেখানে স্বরষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ কোথায়?

অমিত শাহ অবশ্য সোমবার ঝাড়খন্ডে নির্বাচনী জনসভা করেছেন৷ সেখানে তিনি ঘোষণা করেছেন, চার মাসের মধ্য়ে রামমন্দির নির্মাণের কাজ শুরু হয়ে যাবে৷ সেই জনসভায় অবশ্য নাগরিকত্ব বিল নিয়ে প্রতিবাদের বিষয়ে অমিত শাহ নীরব থেকেছেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এ নিয়ে একাধিক  টুইট করেছেন। মোদী বলেছেন, ''আমি ভারতীয়দের আশ্বস্ত করতে চাই, নাগরিকত্ব বিল কোনও ভারতীয় নাগরিকের ক্ষতি করবে ন। তাই তাদের চিন্তার কোনও কারণ নেই৷''

এভাবেই নাগরিকত্ব বিল নিয়ে ছাত্রদের প্রতিবাদের পাশাপাশি শুরু হয়ে গিয়েছে রাজনৈতিক লড়াইও।

জিএইচ/এসজি

 

 

 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন