রাশিয়ায় সাংবাদিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রত্যাহার | বিশ্ব | DW | 12.06.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

রাশিয়া

রাশিয়ায় সাংবাদিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রত্যাহার

রুশ সাংবাদিক ইভান গোলুনভকে গৃহবন্দিত্ব থেকে মুক্তি দেয়া হয়েছে৷ তাঁর বিরুদ্ধে আনা সব অভিযোগও প্রত্যাহার করে নিয়েছে কর্তৃপক্ষ৷ একই সঙ্গে তাঁকে গ্রেপ্তার করা কর্মকর্তাদেরও করা হয়েছে বরখাস্ত৷

গোলুনভের বিরুদ্ধে গত সপ্তাহে মাদকসেবন সংক্রান্ত অভিযোগ আনা হয়৷ তবে তা প্রমাণিত হয়নি বলে জানিয়েছেন এক মন্ত্রী৷

রুশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ভ্লাডিমির কোলোকোল্টসেভ মঙ্গলবার সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘পেশা নির্বিশেষে নাগরিকদের অধিকার রক্ষা করা আমাদের দায়িত্ব৷' আজই (মঙ্গলবার) তাঁকে মুক্তি দেয়া হবে, তাঁর বিরুদ্ধে সব অভিয়োগও তুলে নেয়া হবে৷''

কলোকোল্টসেভ গোলুনভেকে হয়রানির পালটা পদক্ষেপ নেয়ারও ঘোষণা দেন৷ তিনি বলেন, ‘‘আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি পশ্চিম মস্কোর পুলিশ প্রধান মেজর জেনারেল আন্দ্রেই পুশকভ এবং মস্কো পুলিশের মাদক নিয়ন্ত্রণ বিভাগের প্রধান মেজর জেনারেল ইউরি ডেভিয়াটকিনকে বরখাস্ত করার জন্য রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাডিমির পুটিনকে অনুরোধ করবো৷''

গোলুনভ মেডুৎসা নামের একটি অনলাইন পত্রিকার হয়ে সাংবাদিকতা করেন৷ মূলত স্থানীয় বিভিন্ন দুর্নীতি নিয়ে কাজ করেন তিনি৷ গত সপ্তাহের বৃহস্পতিবার মাদক সংক্রান্ত অভিযোগে তাঁকে মস্কোতে গ্রেপ্তার করা হয়৷

গ্রেপ্তারের ১২ ঘণ্টা পরও গোলুনভকে কোনো উকিলের সঙ্গে কথা বলতে দেয়া হয়নি৷ এসময় পুলিশ হেফাজতে তাঁকে মারধর করার অভিযোগও ওঠে৷ এরপর গোলুনভকে গৃহবন্দি করে রাখা হয়৷ বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন এই ঘটনাকে ‘সাজানো' বলে উল্লেখ করে৷

এই ঘটনার প্রতিবাদে রাশিয়ার বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম একসঙ্গে প্রতিবাদ জানানোর সিদ্ধান্ত নেয় এবং তাঁর মুক্তি দাবি করে৷ নাগরিকরাও বিভিন্নভাবে এর প্রতিবাদ জানান৷

রুশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অবশ্য এই ঘটনাকে দুঃখজনক বলে স্বীকার করেছেন৷ রুশ প্রশাসনের তৃতীয় জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা ভেলেন্টিনা মাটভিয়েঙ্কো গোলুনভের গ্রেপ্তারের ঘটনাকে খুব ‘খারাপ উদাহরণ' বলে উল্লেখ করেছেন৷

মাটভিয়েঙ্কো বলেন, ‘‘এই তদন্ত নিয়েই মানুষের মনে অবিশ্বাসের সৃষ্টি হয়েছে৷ তদন্তকারীরা হয় অপেশাদার আচরণ করেছেন, অথবা ইচ্ছেকৃত ভুল৷ এই মুহূর্তে এটাকে কি বলা উচিত, বুঝতে পারছি না৷''

এডিকে/ (এএফপি, ডিপিএ) 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন