রাশিয়ার প্রতিশোধ: ২৩ ব্রিটিশ কূটনীতিক বহিষ্কার | বিশ্ব | DW | 17.03.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

রাশিয়া-ব্রিটেন

রাশিয়ার প্রতিশোধ: ২৩ ব্রিটিশ কূটনীতিক বহিষ্কার

রাশিয়া থেকে ২৩ জন ব্রিটিশ কূটনীতিককে নিজ দেশে ফেরত যেতে হবে বলে জানিয়েছে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়৷ লন্ডনে রুশ গুপ্তচরকে বিষ খাওয়ানোর ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাশিয়া ও ব্রিটেনের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে৷ 

শনিবার রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, তারা ব্রিটিশ কাউন্সিলের সব কার্যক্রম বন্ধের পরিকল্পনা করছে৷ এক সপ্তাহের মধ্যে ২৩ জন ব্রিটিশ কূটনীতিককে মস্কো ছাড়তে হবে বলেও জানানো হয়েছে সেখানে৷ এছাড়া, সেন্ট পিটার্সবুর্গ শহরে ব্রিটিশ কনস্যুলেট বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে৷ মস্কোতে ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূত ল্যরি ব্রিস্টোকে রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে তলব করে রুশ সরকারের এসব সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেওয়া হয়েছে৷ 

ব্রিস্টো চলে যাওয়ার পর পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, লন্ডন আরও বৈরি কোনো পদক্ষেপ নিলে তারাও সেটার জবাব দিবে৷ ব্রিটেনের অভিযোগকে ভিত্তিহীন বলে উল্লেখ করেছে তারা৷ বিশ্লেষকরা মনে করছেন, রাশিয়া আগামীতে আরও কিছু কঠোর সিদ্ধান্ত নিতে পারে ব্রিটেনের বিরুদ্ধে৷ 

ব্রিটেনের মাটিতে সাবেক এক রুশ গোয়েন্দা ও তাঁর মেয়েকে বিষ খাইয়ে হত্যা চেষ্টার জন্য রাশিয়াকে দায়ী করেছে ব্রিটেন৷ সেই থেকেই দু’দেশের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে৷ গত বুধবার ব্রিটিশ সংসদে দেয়া বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী টেরেসা মে ২৩ জন রুশ কূটনীতিককে এক সপ্তাহের মধ্যে ব্রিটেন ছেড়ে যাওয়ার নির্দেশ দেন৷ 

এছাড়া রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভকে দেয়া লন্ডন সফরের আমন্ত্রণও বাতিল করা হয়েছে৷ দুই দেশের মধ্যে উচ্চ পর্যায়ের যেসব বৈঠক হওয়ার কথা সেগুলোও স্থগিতের ঘোষণা দিয়েছেন টেরেসা মে৷ আর জুন-জুলাই মাসে রাশিয়ায় অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ফুটবল বিশ্বকাপের সময় সেখানে কোনো মন্ত্রী কিংবা রাজ পরিবারের কোনো সদস্যকে পাঠাবে হবে না বলেও জানান তিনি৷

উল্লেখ্য, গত ৪ মার্চ সাবেক রুশ গোয়েন্দা সের্গেই স্ক্রিপাল ও তাঁর মেয়েকে ব্রিটেনের সলসবেরি শহরের রাস্তার পাশে এক বেঞ্চে অচেতন অবস্থায় পাওয়া যায়৷ এরপর তাঁদের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়৷ দু’জনের অবস্থা এখনও সংকটজনক, তবে স্থিতিশীল বলে জানা গেছে৷ তাঁদের শরীরে ‘নোভিচক’ নামে একটি ‘নার্ভ এজেন্ট’ ব্যবহার করা হয় বলে জানিয়েছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী৷ 

সের্গেই স্ক্রিপাল রাশিয়ার সামরিক গোয়েন্দা সংস্থার একজন কর্নেল ছিলেন৷ পরে তাঁর বিরুদ্ধে ব্রিটেনের এম১৬ গোয়েন্দা সংস্থার হয়ে রুশ গোয়েন্দা এজেন্টদের সঙ্গে প্রতারণার অভিযোগ আনা হয়েছিল৷ এরপর ২০১০ সালে লন্ডন ও মস্কোর মধ্যে গোয়েন্দা বিনিময় চুক্তির আওতায় সের্গেই স্ক্রিপাল ব্রিটেনে গিয়েছিলেন৷

এপিবি/এসিবি (এপি, এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন