রাশিয়ার থেকেও চীন বড় বিপদ: অ্যামেরিকা | বিশ্ব | DW | 27.05.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্র

রাশিয়ার থেকেও চীন বড় বিপদ: অ্যামেরিকা

রাশিয়ার থেকেও চীন আরো বড় বিপদের কারণ বলে মনে করে অ্যামেরিকা। তাদের মতে, রাশিয়া এখন বিপদের কারণ হয়েছে। চীন ভবিষ্যতে আরো বড় বিপদের কারণ হতে পারে।

ব্লিংকেন মনে করেন, রাশিয়ার থেকেও চীন বড় বিপদের কারণ।

ব্লিংকেন মনে করেন, রাশিয়ার থেকেও চীন বড় বিপদের কারণ।

বৃহস্পতিবার জর্জ ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাষণ দিচ্ছিলেন মার্কিন সেক্রেটারি অফ স্টেট অ্যান্টনি ব্লিংকেন। সেখানেই তিনি অ্যামেরিকার এই মনোভাবের কথা স্পষ্ট করে জানান। তিনি বলেছেন, চীনের মোকাবিলায় ও তাদের থামাতে আন্তর্জাতিক বিশ্বকে একজোট হতে হবে।

ব্লিংকেন বলেছেন, চীন এমন একটা দেশ যাদের আন্তর্জাতিক পরিস্থিতিকে প্রভাবিত করার মতো আর্থিক, সামরিক, প্রযুক্তিগত ও কূটনৈতিক দক্ষতা আছে এবং তাদের সেই ইচ্ছে আছে। অ্যামেরিকা মনে করে, রাশিয়া বর্তমানে বিপদের কারণ। কিন্তু দীর্ঘমেয়াদী দৃষ্টিতে দেখতে গেলে চীন অনেক বড় বিপদের কারণ।

ইউক্রেন আক্রমণ করার আগে রাশিয়া চীনের সঙ্গে নো লিমিটস নিরাপত্তা চুক্তিতে সই করেছে। সেখানে মস্কো অবশ্য ন্যাটোর বিপদের মোকাবিলা করার কথা বলেছে। কিন্তু চীন ইংরাজিতে যে বিবৃতি জারি করেছে, সেখানে ন্যাটোর বিপদের মোকাবিলা করার কথা নেই।

ব্লিংকেন কেন বললেন?

চীনকে নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য অ্যামেরিকা তার বন্ধু ও সহযোগী দেশগুলির উপর নির্ভর করবে। মার্কিন কর্মকর্তারা মনে করেন, চীনের চারপাশে এমন একটা পরিবেশ তৈরি করে রাখা উচিত, যা চীনের নীতিকে প্রভাবিত করবে।

অ্যামেরিকার একজন প্রধান কূটনীতিকের মতে, ঠিক যেভাবে রাশিয়ার মোকাবিলা করা হচ্ছে, সেভাবেই চীনের মোকাবিলা করতে হবে। দুই মডেল একই হওয়া দরকার।

ব্লিংকেন বলেছেন, ''আমরা পুটিনকে সফল হতে দিইনি। যে চ্যালেঞ্জ এসেছিল, তার মোকাবিলা করা গেছে। পরমাণু শক্তিধর দেশগুলি যুদ্ধে জড়ায়নি।''

কৌশলগত দিক

মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন সম্প্রতি দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপান সফর করেছেন। দুই জায়গাতেই আলোচনায় চীন প্রাধান্য পেয়েছে। চার দেশের কোয়াড শীর্ষবৈঠকে চীন নিয়ে দীর্ঘ আলোচনা হয়েছে। বাইডেন জানিয়ে দিয়েছেন, চীন যদি তাইওয়ান আক্রমণ করে, তাহলে অ্যামেরিকা চুপ করে বসে থাকবে না। তারাও যুদ্ধে সামিল হবেন। 

জিএইচ/এসজি (এএফপি, এপি, রয়টার্স)