‘রামপালে ক্ষতির বিষয়ে এখনো নিশ্চিত নই′ | বিশেষ আয়োজন | DW | 18.11.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জলবায়ু পরিবর্তন

‘রামপালে ক্ষতির বিষয়ে এখনো নিশ্চিত নই'

রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র হলে তাতে ঠিক কী ধরনের ক্ষতি হবে সে ব্যাপারে এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান মুকিত মজুমদার৷ ডয়চে ভেলেকে দেয়া সাক্ষাৎকারে এ কথা বলেন তিনি৷

default

মুকিত মজুমদার বাবু, প্রকৃতি ও জীবন ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান

জার্মানির বন শহরে জলবায়ু সম্মেলনে অংশ নিতে বিশ্বের অন্যান্য দেশের সঙ্গে বাংলাদেশ থেকেও এসেছেন সরকার, এনজিও এবং গণমাধ্যমের বেশ কয়েকজন প্রতিনিধি৷ তাদের একজন মুকিত মজুমদার বাবু৷ বাংলাদেশের অন্যতম বেসরকারি টেলিভিশন কেন্দ্র ‘চ্যানেল আইতে' ‘প্রকৃতি ও জীবন' নামের একটি পরিবেশ বিষয়ক অনুষ্ঠানের পরিচালক তিনি৷

জলবায়ু সম্মেলন কপ২৩-তে পর্যবেক্ষক হিসেবে অংশ নিচ্ছেন তিনি৷ বিগত বছরগুলোতে একাধিকবার এই সম্মেলনে অংশ নিয়েছেন তিনি৷ এই বিষয়ে অভিজ্ঞতা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘মারাকাস এবং বনে উৎসাহ উদ্দীপনা কম মনে হচ্ছে৷ প্যারিস এগ্রিমেন্টের পর ট্রাম্পের মন্তব্যের কারণে সম্মেলনটা হয়ত একটু নিষ্প্রভ হয়েছে৷''

মজুমদার অবশ্য আশাবাদী৷ তিনি মনে করেন, রাষ্ট্র হিসেবে অ্যামেরিকা কপে না থাকলেও আমেরিকার জনগণ যে আছে সেটা ক্রমশ পরিষ্কার হয়ে উঠছে৷ বনেও জলবায়ু সম্মেলনেও দেশটির একটি অনানুষ্ঠানিক প্যাভেলিয়ন রয়েছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের পর উচ্চশিক্ষার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইংল্যান্ডে কয়েকবছর কাটিয়েছেন মুকিত মজুমদার বাবু৷ বাংলাদেশি এবং পশ্চিমাদের মধ্যে পরিবেশ বিষয়ক সচেতনতার মধ্যে ব্যবধানটা পরিষ্কারভাবেই বোঝেন তিনি৷ এই বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘পশ্চিমা বিশ্বের আমাদের চেয়ে সচেতনতা বেশি৷ আমাদের দেশে আসলে দরিদ্রতার কারণে বিষয়টি ভিন্ন৷ মানুষ জীবনধারনের জন্য অনেক কিছু করছে৷ পুকুর ভরে ফেলছে, গাছ কেটে ফেলছে৷ আমরা যদি দরিদ্রতার হার কমিয়ে আনতে পারি তাহলে হয়ত সমস্যা কম হবে৷''

প্রকৃতিপ্রেমী হিসেবে পরিচিত মুকিত মজুমদারের কাছে বাংলাদেশের রামপালে ভারতের সহায়তায় কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে চলমান বিতর্কের বিষয়েও জানতে চাওয়া হয়৷ পরিবেশবিদরা মনে করেন, এই বিদ্যুৎকেন্দ্র তৈরি হলে সুন্দরবন ধ্বংস হয়ে যাবে যা পরিবেশের জন্য হবে বিপর্যয়কর৷ তবে মজুমদার এই বিষয়ে নিশ্চিত নন বলে জানিয়েছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘রামপালের বিষয়টি এখনো আমরা নিশ্চিত নই যে কী ধরনের ক্ষতি হবে কিংবা ক্ষতি হতে পারে৷ এটা নিয়ে এখনো নিশ্চিত কোন সিদ্ধান্তে আসা যায়নি এবং ইউনেস্কো আমি বলবো যে আগে যেধরনের সোচ্চার ছিল, এখন সেই ধরনের সোচ্চার নেই এ ব্যাপারে৷ সুতরাং আমাদের একটু অপেক্ষা করতে হবে এটা জানতে যে আসলে কী হবে৷'' 

‘‘তবে ব্যক্তিগতভাবে আমি মনে করি যে, যেটা নিয়ে সন্দেহ থাকে, সেটা থেকে দূরে থাকাটাই ভালো,'' যোগ করেন তিনি৷ পাশাপাশি রূপপুরে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে সর্বাধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করায় ভবিষ্যতে বড় বিপর্যয়ের আশঙ্কা নেই বলেও মনে করেন এই টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব৷

ডয়চে ভেলের সঙ্গে তাঁর সাক্ষাৎকারটি দেখতে ক্লিক করুন এখানে

আপনার কি কিছু বলার আছে? লিখুন নীচের মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়