রাজনীতি নয়, খেলা জিতে যায় | আলাপ | DW | 11.06.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ব্লগ

রাজনীতি নয়, খেলা জিতে যায়

বলা হয় প্রথম বিশ্বকাপে অংশ নিতে না পেরে রাজনৈতিক অহমে লেগেছিল মুসোলিনির৷ আর তাই ১৯৩৪ সালে দ্বিতীয় বিশ্বকাপকে রাজনৈতিক প্রভাব খাটিয়ে ইটালির ঘরেই রেখে দেওয়ার ব্যবস্থা করেছিল এই ফ্যাসিস্ট৷ এখন কি দিন বদলেছে? 

খেলার সাথে রাজনীতি অনেকেই ফারাকে রাখতে চান৷ বলতে চান খেলা হচ্ছে, এর সাথে রাজনীতির কোনো সম্পর্ক নেই৷ আসলে মোটেও তা নয়! খেলার মাঠে রাজনীতি ঢুকেই পড়ে৷ বিশ্বকাপ ফুটবলের ইতিহাস ব্যতিক্রম হবে এমন ভাবার কারণ নেই৷ এবারের বিশ্বকাপ শুরুর আগেই তো পরিস্থিতি যথেষ্ট তেতে উঠেছিল৷

এ বছরের ৪ মার্চ সাবেক রুশ গোয়েন্দা সের্গেই স্ক্রিপাল ও তাঁর মেয়েকে সোভিয়েত আমলের নার্ভ এজেন্ট দিয়ে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে ইংল্যান্ড থেকে ২৩ জন রুশ কূটনীতিককে বহিষ্কার করে দেশটির সরকার৷ এর প্রতিক্রিয়ায় রাশিয়া থেকেও ২৩ জন ব্রিটিশ কূটনীতিককে বহিষ্কার করা হয়৷

ঘটনা গড়াতে শুরু করলে ইংল্যান্ডের সরকার দলের মন্ত্রী এবং রাজপরিবার থেকে ঘোষণা আসে, তাঁরা কেউ রাশিয়া বিশ্বকাপের খেলা দেখতে যাবেন না৷

ইংল্যান্ড দলেরও বিশ্বকাপ বয়কটের শঙ্কা দেখা দিয়েছিল৷ অস্ট্রেলিয়া, জাপান ও পোল্যান্ডের মতো দেশগুলোও বিশ্বকাপ বয়কটের সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা চিন্তা করছিল৷ তবে শেষ পর্যন্ত সব দলই বিশ্বকাপে আসছে৷ যেমনটা এসেছিল গত বিশ্বকাপের আগ দিয়েও৷

২০১৪ সালের ওই বিশ্বকাপের আগ দিয়ে ইউক্রেনের ক্রাইমিয়া নিয়ে রাশিয়া ও অ্যামেরিকার মধ্যে সম্পর্ক অনেকটা নব্বই-পূর্ববর্তী স্নায়ুযুদ্ধকালীন পরিস্থিতির মতো উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল৷

বিশ্বকাপ ফুটবল সামনে রেখে তখন অ্যামেরিকার দু'জন সিনেটর এবং রাশিয়ার দুই সিনেটর একে অপরের দেশকে বিশ্বকাপ থেকে বহিষ্কারের জন্য ফিফার কাছে আনুষ্ঠানিকভাবে আবেদন করেছিলেন৷ ফিফা অবশ্য খেলার সঙ্গে রাজনীতিকে যুক্ত না করার নীতি অনুযায়ী অ্যামেরিকা বা রাশিয়া কোনো পক্ষের চিঠিকেই পাত্তা দেয়নি৷

সেই সময় থেকেই অ্যামেরিকা ও ইংল্যান্ড রাশিয়ায় অনুষ্ঠিতব্য বিশ্বকাপ বন্ধ করতে চাচ্ছে বলে অভিযোগ করে আসছিল রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়৷ তাদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র মারিয়া জাখারোভা এ নিয়ে টিভিতে সাক্ষাৎকারও দিয়েছেন৷

ইতিহাসও কিন্তু বিশ্বকাপ ফুটবলে রাজনীতি ঢুকে পড়ার সাক্ষ্যই দিচ্ছে৷ ১৯৭৯ সালে ইসলামি বিপ্লবের পরপরই ইরানের সাথে অ্যামেরিকার রাজনৈতিক ও কূটনৈতিক সম্পর্ক চরম আকার ধারণ করে৷

প্রায় ২০ বছর পর ১৯৯৮ সালে বিশ্বকাপে দুই দল মুখোমুখি হয়৷ এই খেলার আগে নেওয়া হয় কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা৷ সে সময়ের ইরানের সর্বোচ্চ ধর্মীয় নেতা আয়াতুল্লাহ খোমেনি দেশটির খেলোয়াড়দের উদ্দেশে বলেছিলেন, ‘‘খেলা শুরুর আগে ইরানের খেলোয়াড়দের অবশ্যই অ্যামেরিকান ফুটবলাদের সাথে করমর্দন করা উচিত নয়৷''

কিন্তু সবাইকে বিস্মিত করে দিয়ে ওই খেলার আগে প্রত্যেক ইরানি খেলোয়াড় অ্যামেরিকান খেলোয়াড়দের ফুল উপহার দিয়েছিলেন৷ খেলার কাছে প্রতিহিংসার রাজনীতি হয়ত পরাজিত হয়, কিন্তু উত্তেজনা থেকেই যায়৷

Habib Imran

হাবিব ইমরান, ডয়চে ভেলে

১৯৮২ সালে নিজেদের সীমানার ৩০০ মাইল দূরে ফকল্যান্ড দ্বীপ দখল করে আর্জেন্টিনা৷ দ্বীপটি ব্রিটিশ শাসনের আওতায় ছিল৷ ফলে দুই দেশের মধ্যে যুদ্ধ লেগে যায়৷ দু'পক্ষের ৯০০ লোকের প্রাণহানি হয়৷ এর চার বছর পরে ভাগ্যের ফেরে ১৯৮৬ সালের বিশ্বকাপ কোয়ার্টার ফাইনালে দু'দেশের দেখা হয়ে যায়৷ ওই বিশ্বকাপের নায়ক মারাদোনা পরবর্তীতে বলেছিলেন, ইংল্যান্ডের সাথে ওই ম্যাচ জেতার ক্ষেত্রে ফকল্যান্ড যুদ্ধে নিহত আর্জেন্টাইন সেনাদের মুখচ্ছবি তাঁকে প্রেরণা দিয়েছিল৷

১৯৭৪ সালের বিশ্বকাপ ছিল অদ্ভুত৷ পুঁজিবাদী ও কমিউনিস্ট ভাবধারার দেশগুলোর মধ্যে চলছিল স্নায়ুযুদ্ধ৷ ঠিক এ সময়ে  ইউরোপের ফুটবল পরাশক্তি ও পুঁজিবাদী ভাবধারার রাষ্ট্র হিসেবে পরিচিত ইংল্যান্ড, ফ্রান্স, স্পেন এবং পর্তুগাল প্রতিযোগিতার বাছাই পর্বেই বাদ পড়ে৷ তাদের বদলে বিস্ময়করভাবে ইউরোপ থেকে বিশ্বকাপে ঠাঁই নেয় সমাজতান্ত্রিক বুলগেরিয়া, পোল্যান্ড, যুগোশ্লাভিয়া এবং পূর্ব জার্মানি৷

ঐ বিশ্বকাপের প্রথম পর্বে মুখোমুখি হয়েছিল পূর্ব ও পশ্চিম জার্মানি৷ ফুটবল দক্ষতায় পশ্চিম জার্মানি অনেক এগিয়ে থাকলেও পূর্ব জার্মানি সেবার ১-০ গোলে জিতেছিল৷ অবশ্য পরে বিশ্বকাপটি জিতেছিল পশ্চিম জার্মানি৷

২০০৬ সালে বিশ্বকাপে অ্যাঙ্গোলা-পর্তুগালের খেলাকে ঘিরেও যথেষ্ট উত্তেজনা ছড়িয়েছিল৷ ১৯৭৫ সালে স্বাধীনতা লাভের আগে অ্যাঙ্গোলা প্রায় ৫০০ বছর পর্তুগিজ উপনিবেশ ছিল৷ ২০০১ সালে দু'দেশ এক বন্ধুত্বপূর্ণ ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল, তবে পরে ম্যাচটি ঘিরে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়৷ ম্যাচটিতে অ্যাঙ্গোলার চারজন খেলোয়াড় লালকার্ড দেখার পর সংঘর্ষ শুরু হয়৷ পরে ৬৭ মিনিটে ম্যাচটি পরিত্যক্ত হয়৷ পর্তুগাল ৫-১ গোলে জেতে৷

অবশ্য ২০০৬ সালের বিশ্বকাপে অবশ্য কোনোরকম অঘটন বা লালকার্ড ছাড়াই খেলা শেষ হয়েছিল৷

রাজনীতি আর খেলার মধ্যে সম্পর্ক বাংলাদেশের দিকে তাকালেও পাওয়া যাবে৷ আমাদের দেশে আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিলের সমর্থক বেশি থাকার একটি বড় কারণ সম্ভবত তারাও আমাদের মতোই গরিব রাষ্ট্রের প্রতিনিধিত্ব করে বিশ্বকাপে৷

রাজনৈতিক দর্শন থেকে, এমনকি পশ্চিমা ক্লাব ফুটবলও বাদ যায় না৷ সে আলোচনা করতে গেলে লেখা দীর্ঘ হবে৷ আশার কথা এই যে, বিগত চার-পাঁচ দশকে প্রতিহিংসার রাজনীতি ফুটবলের সৌন্দর্য্যে শঙ্কা তৈরি করলেও, শেষ পর্যন্ত জয় হয়েছে খেলারই৷

ক্রীড়ার ওপর রাজনীতির প্রভাব কতটা? লিখুন নীচের ঘরে৷ 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন