রাজনীতিবিদদের বিরুদ্ধে হুমকি বাড়ছে জার্মানিতে | বিশ্ব | DW | 11.02.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

রাজনীতিবিদদের বিরুদ্ধে হুমকি বাড়ছে জার্মানিতে

সারাদেশে রাজনীতিবিদের বিরুদ্ধে হুমকি বেড়েছে৷ নতুন এক পরিসংখ্যান বলছে, স্থানীয় রাজনীতিকরা পড়ছেন ঝুঁকির মুখে৷

রাজনীতিবিদ ও দলীয় সদস্যদের বিরুদ্ধে নিপীড়নের হুমকি ২০১৯ সালের চেয়ে ২০২০ সালে শতকরা নয় ভাগ বেড়েছে৷ জানা যায় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সাম্প্রতিক এক পরিসংখ্যান থেকে৷ রাজনীতিবিদদের বিরুদ্ধে গালাগাল, হেটস্পিচ ছাড়াও দলের অফিস ভাঙচুর, দেয়াল লিখন, অগ্নিসংযোগ এমন কি কিছু শারীরিক হামলার ঘটনাও এর মধ্যে রয়েছে৷ তবে সবচেয়ে বেশি হামলার শিকার হয় এএফডি বা উগ্র ডানপন্থিদল৷ পরিসংখ্যানে নিপীড়নের শিকার হওয়ার দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে আঙ্গেলা ম্যার্কেলের দল এবং তৃতীয় স্থানে সবুজদল বা গ্রিন পার্টির সদস্যরা৷

ফেডারেল ক্রিমিনাল পুলিশ প্রধান হলগার ম্যুনশ গত সপ্তাহে ডেয়ার স্পিগেল ম্যাগাজিনকে ‘‘করোনা ভাইরাস মহামারিকালে রাজনীতিবিদ, ভাইরোলজিস্ট এবং সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে হুমকির মাত্রা বেড়েছে৷’’

জার্মান সংসদ বুন্ডেসটাগের এএফডি দলের সদস্য মার্টিন হেস ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘রাজনীতিকদের বিরুদ্ধে হুমকি বামপন্থি উগ্রবাদী রাজনৈতিক দলের জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে, পরিসংখ্যান তাই প্রমাণ করেছে৷ এসব ঘটনা দেশের গণতান্ত্রিক আইনের শাসনে অপমানজনক৷ যার ফলে আমরা নিয়মিত গাড়ি, অফিস এবং অ্যাপার্টমেন্টগুলিতে হামলার মুখোমুখি হচ্ছি৷’’

গত কয়েক বছরে রাজনীতিকদের বিরুদ্ধে নিপীড়ন বাড়তে থাকায়  জার্মানির প্রেসিডেন্ট ফ্রাংক ভাল্টার স্টাইনমায়ারসহ শীর্ষ স্থানীয় বেশ কয়েকজন রাজনীতিক জার্মান সংস্কৃতির এই অবক্ষয়ের নিন্দা করেন৷ এসপিডি দলের মুখপাত্র উটে ফোক্ট ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমি মনে করি রাজনীতিবিদ হওয়ার জন্য সবসময়ই শক্তিশালী নার্ভের দরকার৷ তবে মানুষের প্রতি সম্মান উল্লেখযোগ্যভাবে কমে যাওয়ায় বর্তমানে তা আরো কঠিন হয়ে পড়েছে৷’’

গ্রিন পার্টির পলিসি মুখপাত্র ইরেনে মিহালিক এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘‘বুন্ডেসটাগের সদস্য হিসেবে তুলনামূলকভাবে আমরা সুরক্ষিত, আমাদের কেউ হুমকি দিলে পুলিশ ব্যবস্থা নেবে৷ তবে যারা আঞ্চলিক রাজনীতিবিদ এবং দলীয় স্বেচ্ছাসেবী নিয়মিত জনসাধারণের সাথে যোগাযোগ রাখতে হয় তাদের সুরক্ষা ব্যবস্থা কম থাকে৷ তাদের জন্য আসলে বেশি  বিপদ৷’’

উল্লেখ্য ২০১৯ সালে ক্যাসেলের স্থানীয় সরকার প্রধান ভাল্টার ল্যুবকেকে নিজের বারান্দায় গুলি করে খুন করা হয়৷ এবং ২০১৫ সালে কোলোনের মেয়র প্রার্থী হেনরিটেকে ছুরিকাঘাত ও হত্যার হুমকি দেওয়া হয়৷

বেন নাইট/এনএস

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়