রাইড শেয়ারিং যত বাড়বে, ততই মঙ্গল | বিশ্ব | DW | 11.06.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্লগ

রাইড শেয়ারিং যত বাড়বে, ততই মঙ্গল

‘রাইড শেয়ারিং' নিয়ে ইদানিং নানা কথা শোনা যায়৷ আমি মনে করি এই সেবার পরিধি যত বাড়বে, ততই মঙ্গল৷ তবে, সেটা হতে হবে নিয়ন্ত্রিত৷ কেন বলছি একথা? পড়ুন তাহলে৷

গতসপ্তাহের কথা৷ বার্লিনে গিয়েছি এক কাজে৷ রাতের বেলা বিমানবন্দর থেকে হোটেলে যাওয়ার গণপরিবহন খুঁজতে গিয়ে আবিষ্কার করলাম বাসে সেখানে যেতে হলে ভোর পাঁচটা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে৷

কোন এক কারণে বার্লিনে হোটল রুম পাওয়া যাচ্ছিল না৷ অফিস তাই এমন এক জায়গায় থাকার ব্যবস্থা করেছে যা মূল শহর থেকে বাইরে, দিনের বেলা ঘণ্টায় একটা করে বাস সেখানে যায়৷ মধ্যরাত থেকে ভোর অবধি কোন বাস নেই৷ তো উপায়ান্তর না পেয়ে ট্যাক্সি ডাকতে হলো৷

সেই হোটেলের নিকটবর্তী ট্রেন স্টেশন থেকে ট্যাক্সিতে সেখানে পৌঁছালাম সতের ইউরো খরচ করে৷ পরদিন সকালে ট্যাক্সিতে করে আবার নিকটবর্তী ট্রেন স্টেশনে যাবার কথা ভাবতেই মনে হলো উবার ডাকলে কেমন হয়৷ অ্যাপ চালু করতেই দেখি আশেপাশে কয়েকটি উবারের গাড়ি আছে৷ একট ডাকতেই চার মিনিটে হাজির৷ আর সেটাতে করে একই পথ ফিরলাম তের ইউরোতে৷

অল্প দূরত্বে ট্যাক্সি আর উবারের খরচের ব্যবধান চার ইউরোর মতো৷ দুই সময়ের মধ্যে খরচের ব্যবধান হওয়ার অন্য কোন কারণ হয়ত থাকতে পারে৷ তবে আমার কাছে একজন সাধারণ যাত্রী হিসেবে সময় আর কম খরচ গুরুত্বপূর্ণ৷ বার্লিনের যে ঘটনার কথা বললাম, সেখানে দু'ক্ষেত্রেই এগিয়ে আছে উবার৷

মনে আছে প্রায় এক যুগ আগে জার্মানিতে আসার পর প্রথমবার যখন দূরের এক শহরে ঘুরতে গিয়েছিলাম, তখন এক ‘রাইড শেয়ারিং' ওয়েবসাইটের মাধ্যমে সেই যাত্রার যাওয়া-আসার ব্যবস্থা করেছিলাম৷ অ্যাপের চল ততটা শুরু হয়নি তখনও৷ সেসময় এক সহকর্মী আমাকে রাইড পেতে সহায়তা করেছিলেন৷ প্রথমবার অপরিচিত একজনের গাড়িতে এভাবে লম্বা পথ যেতে কিছুটা ইতস্তত করেছিলাম৷ কিন্তু গাড়িতে ওঠার পর আবিষ্কার করলাম, শুধু বাড়তি দু'পয়সা আয় করাই নয়, জার্মানিতে অনেকেই দূরযাত্রায় সঙ্গী পাওয়ার আশাতেও রাইড শেয়ার করেন৷ কারো কারোক্ষেত্রে অর্থের চেয়ে সঙ্গটাই মূল কথা৷ লম্বা পথ অনেকেই একা গাড়ি চালাতে চাননা৷

পরবর্তীতে নিজে যখন গাড়ি চালিয়েছি তখনও মাঝেমাঝে রাইড শেয়ার করেছি৷ বিশেষ করে রাতের বেলা লম্বা পথ গাড়ি চালানোর সময় সঙ্গে কেউ থাকলে অনেক সুবিধা হয়৷

এখানে একটি কথা বলা প্রয়োজন৷ তাহচ্ছে, হঠাৎ করে অপরিচিত কাউকে গাড়িতে তোলা কিন্তু ঝুঁকিপূর্ণ এক ব্যাপার৷ তবে, রাইড শেয়ারিং অ্যাপ নিরাপত্তার বিষয়টি অনেকটা নিশ্চিত করে বিধায় অনেকেই জার্মানিতে রাইড শেয়ার করেন৷ আমি যে অ্যাপটি ব্যবহার করতাম, সেটিতে চালক এবং যাত্রী উভয়ের পরিচয় আগেই জানা যেতো৷ অ্যাপ কর্তৃপক্ষের কাছে উভয়পক্ষের কিছু ব্যক্তিগত তথ্যও জমা থাকে৷ পাশাপাশি র্যাটিং দেখেও বোঝা যায় তারা কে কতটা ভরসা করার মতো ব্যক্তি৷

Arafatul Islam Kommentarbild App

আরাফাতুল ইসলাম, ডয়চে ভেলে

শুধু জার্মানিতেই নয়, বাংলাদেশের ঢাকাতেও সর্বশেষ দুই সফরের সময় উবার এবং পাঠাও ব্যবহার করেছি৷ এই দুই সেবার কল্যাণে ঢাকায় যোগাযোগ ব্যবস্থায় এক বড় পরিবর্তন এসেছে৷ কয়েকবছর আগেও যেখানে কখনো কখনো ঘণ্টার পর ঘণ্টা রাস্তায় দাঁড়িয়ে থেকে সিএনজি বা ট্যাক্সি পাওয়া যেতো না কিংবা পাওয়া গেলেও নির্ধারিত ভাড়ার চেয়ে অনেক বেশি টাকা দিয়ে, অনুরোধ করে একটা রাইড নিতে হতো, সেই অবস্থা এখন আর নেই৷ এখন অ্যাপ চালু করে মিনিটখানেক অপেক্ষা করলেই সম্ভাব্য যাত্রার অনেকরকমের সুযোগ পাওয়া যায়৷

ফলে রাইড শেয়ারিং এর মতো সেবা বাংলাদেশের অন্যান্য শহরগুলোতে প্রয়োজনমত যত দ্রুত বাড়ানো যাবে ততই মঙ্গল৷ শুধু নিরাপত্তা আর যাত্রী হয়রানি যাতে না হয় সেটা খেয়াল রাখতে হবে৷ নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষের এবং রাইড শেয়ারিং অ্যাপগুলোর নিশ্চিত করতে হবে যে যেসব চালক এসব সেবা দিচ্ছেন তারা বৈধ লাইসেন্সের অধিকারী এবং  সত্যিকার অর্থেই গাড়ি চালাতে পারেন৷ আর রাইড শেয়ারিংয়ের ক্ষেত্রে দূরত্বের ভিত্তিতে একটি সর্বোচ্চ সীমাও নির্ধারণ করে দেয়া যেতে পারে৷ সেক্ষেত্রে হয়ত হঠাৎ করে দাম বাড়িয়ে দেয়ার প্রবণতা কমে যাবে৷ নিয়ন্ত্রক কর্তৃপক্ষের উচিত হবে রাইড শেয়ারিং মার্কেটে একটি সুষ্ঠু প্রতিযোগিতার সুযোগ সৃষ্টি করে দেয়া৷ কেউ যেন এককভাবে এই মার্কেটের দখল নিতে না পারে এবং স্থানীয় উদ্যোক্তারা একটু বাড়তি সুবিধা পায়, সেটা নিশ্চিত করতে হবে৷ তখন এমন সেবার জনপ্রিয়তা আরো বাড়বে৷ 

আপনি কি লেখকের সঙ্গে একমত? লিখুন নীচের ঘরে৷ 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন