রহস্যে ভরা বিশ্বের প্রাচীনতম রেস্তোরাঁ | অন্বেষণ | DW | 03.07.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

রহস্যে ভরা বিশ্বের প্রাচীনতম রেস্তোরাঁ

স্পেনের রাজধানী মাদ্রিদে যে বিশ্বের প্রাচীনতম রেস্তোরাঁ চালু রয়েছে, অনেকেই সে খবর রাখেন না৷ ডয়চে ভেলের এক কর্মী সেই ঐতিহাসিক স্থান ঘুরে অনেক তথ্য সংগ্রহ করেছেন এবং অভিনব অভিজ্ঞতা অর্জন করেছেন৷

মাদ্রিদের বিখ্যাত প্লাসা মাইয়র স্কোয়্যার প্রায় ৪০০ বছর পুরানো৷ বুলফাইট থেকে শুরু করে ইনকুইজিশন আমলে বিচার প্রক্রিয়ার সাক্ষী এই চত্বর৷ ডয়চে ভেলের সাংবাদিক মেগিন লেই সেখানে দাঁড়িয়ে বলেন, ‘‘আমি মাদ্রিদের কেন্দ্রে প্লাসা মাইয়র চত্বরে দাঁড়িয়ে রয়েছি৷ এখানে কত কী যে চলছে! চারিদিকে রেস্তোরাঁ, ক্যাফে ও সুভেনিরের দোকান৷ অনেকেই জানেন না, যে ধনুকের মতোপথের পেছনে বিশ্বের সবচেয়ে প্রাচীন রেস্তোরাঁ রয়েছে৷সঙ্গে এলেই দেখতে পাবেন৷''

প্লাসা মাইয়র-কে ঘিরে পুরানো যুগের অনেক চিহ্ন রয়েছে৷ বেশ কয়েকটি করিডোর ও পাথর বসানো পথ কয়েক'শো বছর আগে তৈরি৷ কোনায় কোনায় গোপন রহস্য লুকিয়ে রয়েছে৷ তার মধ্যে একটি বিশেষভাবে নজর কাড়ার মতো৷ মেগিন জানালেন, ‘‘এই হলো বিশ্বের সবচেয়ে প্রাচীন রেস্তোরাঁ৷ নাম ‘সোব্রিনো দে বোতিন'৷ স্প্যানিশ ভাষায় এর অর্থ ‘বোতিন-এর ভাইপো'৷ বোতিন পরিবার এই রেস্তোরাঁর আসল মালিক ছিল৷ প্রথমে সরাইখানা ছিল৷ এক ফরাসি দম্পতি সেটি চালু করে৷ ভিতরে গিয়ে দেখা যাক৷'' 

১৯৩০-এর দশকে গনসালেস পরিবার এই রেস্তারাঁর মালিক হয়৷ তৃতীয় প্রজন্মের আন্তোনিও গনসালেস এখন রেস্তোরাঁর কর্ণধার৷ পারিবারিক ঐতিহ্যই সাফল্যের চাবিকাঠি৷ রেস্তোরাঁর সাজসজ্জার মধ্যে মৌলিক স্টাইলের পাশাপাশি মালিকের ব্যক্তিগত রুচির ছাপও রয়েছে৷

১৯৮৬ সালে গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস নির্দিষ্ট কারণেই এটিকেবিশ্বের সবচেয়েপ্রাচীন রেস্তোরাঁর স্বীকৃতি দেয়৷ আন্তোনিও গনসালেস বলেন, ‘‘শর্ত ছিল, একই নামে, একই জাগয়ায়, শুরু থেকে কোনো বিরতি ছাড়াই চালু থাকতে হবে৷ আমরা সেটা হাসিল করতে পেরেছি৷''

প্রতিদিন দুপুর ১টার সময় রেস্তোরাঁ খোলে৷ আন্তোনিও মনে করিয়ে দিলেন, যে রান্নাঘরের নীচে একটি খাবার ঘর এমনকি রেস্তোরাঁর থেকেও প্রাচীন৷ সেই ১৫৮০ সালেও তার অস্তিত্ব ছিল৷ সেখান থেকে একটি ঐতিহাসিক গুহাপথে ঢোকা যায়৷ ঘরটিতে আর্দ্রতা বেশি বলে শুধু ওয়াইনের বোতল রাখা আছে৷ আন্তোনিও মনে করেন, ‘‘সম্ভবত নবম শতাব্দীতে সেই আরব আমল থেকেই প্রতিরক্ষার স্বার্থে এই জায়গাটি কাজে লাগানো হয়েছে৷ আরব নির্মাণশিল্পের ঐতিহ্য অনুযায়ী, মাদ্রিদের পুরানো অংশে সব বাড়ির মধ্যে যোগাযোগ রাখা হতো৷''

উপরে উঠে মধ্যাহ্নভোজের পালা৷ ঐতিহ্যবাহী শুকরের রোস্ট অবশ্যই মেনুতে রয়েছে৷ দীর্ঘদিনের ওয়েটার খাবিয়ের সানচেস তা পরিবেশন করেন৷ ৪০ বছর ধরে কাজ করে তিনিও রেস্তোরাঁর অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে উঠেছেন৷ তিনি বলেন, ৫ জন পর্যন্ত এই পদ ভাগ করে খেতে পারেন৷ মেগিন লেই মনে করিয়ে দিলেন, ‘‘মার্কিন লেখক অ্যার্নেস্ট হেমিংওয়ে এই রেস্তোরাঁর নিয়মিত গ্রাহক ছিলেন৷ তিনি এতটাই গুণমুগ্ধ ছিলেন, যে ‘দ্য সান অলসো রাইজেস' ও ‘ডেথ ইন দ্য আফটারনুন' বইয়ে তিনি এর উল্লেখ করেছেন৷ আন্তোনিও এখানে হেমিংওয়ে-র সময় সম্পর্কে কী জানেন?'' 

আন্তোনিও স্মৃতিচারণ করে বলেন, ‘‘তিনি আমাদের খুবই পরিচিত ছিলেন৷ তিনি বোতিন রেস্তোরাঁয় খুবই স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করতেন৷ একবার তিনি নিজেই পায়েইয়া রান্না করার চেষ্টা করেছিলেন৷ তবে তার স্বাদ খুব ভালো হয়নি৷ আমার পিতামহ তাঁকে বলেছিলেন, অ্যার্নেস্টো তুমি লিখে যাও আর আমাকে পায়েইয়া রান্না করতে দাও৷''

 ডয়চে ভেলের সাংবাদিক মেগিন লেই এই প্রসঙ্গে বললেন, ‘‘আমাকে হেমিংওয়ে-র বইয়ের অংশ পড়ে শোনাতেই হচ্ছে, কারণ তিনি সেখানে ঠিক এই পদেরই উল্লেখ করেছেন৷ তিনি লিখেছেন, আমরা বোতিন রেস্তোরাঁয় উপর তলায় মধ্যাহ্নভোজ করলাম৷ এটি বিশ্বের সেরা রেস্তোরাঁগুলির অন্যতম৷ আমরা শুকরের রোস্ট খেলাম ও রিওখা ওয়াইন পান করলাম৷ এই প্রসঙ্গেই গেলাস তুলে ‘সালুদ' বলে বোতিন রেস্তোরাঁর আগামী কয়েক'শ বছরের উদ্দেশ্যে পান করা যাক৷''

মেগিন লেই/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন