রংপুরে হামলা: টিটু লেখাপড়া জানে না, ফেসবুক স্ট্যাটাসটি তবে কার? | বিশ্ব | DW | 12.11.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

রংপুরে হামলা: টিটু লেখাপড়া জানে না, ফেসবুক স্ট্যাটাসটি তবে কার?

যার ‘কথিত ফেসবুক পোস্ট' নিয়ে রংপুরে হিন্দুদের বাড়ি ঘরে হামলা, আগুন আর লুটপাট করা হয়েছে, সেই টিটু রায় লেখা-পড়াই জানে না, এলাকায় নেই সাত বছর ধরে৷ খুলনার এক মাওলানার ফেসবুক থেকে স্ট্যাটাসটি ছড়িয়ে পড়ে বলে জানা গেছে৷

খুলনার মাওলানা আসাদুল্লাহ হামিদির ফেসবুকে একটি স্ক্রিন শট শেয়ার করা হয় ২৫শে অক্টোবর, তিনি অন্য একজনের ফেসবুক স্ট্যাটাস শেয়ার করেছিলেন৷ একই স্ট্যাটাস আবার ‘বাংলাদেশি টিনএজার' নামে একটি গ্রুপের সাথে শেয়ার করতে দেখা গেছে৷ তবে রংপুরের ঐ এলাকার স্থানীয় সূত্র জানিয়েছে, এলকাবাসীকে ওই একই ফেসবুক স্ট্যাটাসের ছবি দেখানো হয়েছে৷ তাতে দেখা যায় টিটুর ছবি দিয়ে একটি আইডি৷ কিন্তু ফেসবুক আইডি'র নাম এমডি টিটু৷

মাওলানা আসাদুল্লাহ হামিদি ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশ-এর খুলনার দিঘলিয়া উপজেলার সভাপতি এবং খুলনা জেলা শাখার সহ সাংগঠনিক সম্পাদক৷ তিনি ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘আমি সংবাদ মাধ্যমে জেনেছি যে আমি যে স্ট্যাটাস শেয়ার করেছি তা নিয়ে রংপুরে হিন্দুদের ওপর হামলা হয়েছে৷ কিন্তু আমি যে স্ক্রিন শট শেয়ার করেছি তা টিটু নামের কেউ দেয় নাই৷ দিয়েছে আর একজন৷ সে আমার ফেসবুক বন্ধু না৷ আর ওই আইডি আসল না নকল তাও আমি জানি না৷ তবে আমি শুনেছি, যে ব্যক্তি ঐ স্ট্যাটাস দিয়েছিল সিলেট থেকে অনেক আগেই গ্রেপ্তার হয়েছে সে৷''

অডিও শুনুন 06:27
এখন লাইভ
06:27 মিনিট

‘টিটু লেখাপড়া করেনি, কোনোমতে নিজের নামটা স্বাক্ষর করতে জানে’

এধরণের স্ট্যাটাস কেন শেয়ার করেছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘আমি বিচার চেয়েছি যারা এই কাজ করেছে তাদের৷ তাই বলে হিন্দুদের বাড়ি ঘরে হামলা, লুটপাট কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য না৷ যারা এই হামলা করেছে তাদের বিচার দাবি করছি৷'' তিনি আবারো বলেন,‘‘টিটুর সঙ্গে আমার শেয়ার করা স্ট্যাটাসের কোনো সম্পর্ক নেই৷''

রংপুরের স্থানীয় সাংবাদিক এবং প্রেস ক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক লিয়াকত আলী বাদল ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘মো. টিটু (MD TITU) নামে দু'মাস আগে একটি অ্যাকাউন্ট খোলা হয়, টিটু রায় নয়৷ তবে আইডিতে রংপুর সদরের ঠাকুরপাড়া গ্রামের টিটু রায় ও তার পরিবারের ছবি রয়েছে৷ আর ওই আইডি থেকে স্ট্যাটাসটি শেয়ার করা হয়েছে৷ তবে যে ব্যক্তির স্ট্যাটাস শেয়ার করা হয়েছে, সেই ব্যক্তিকে চিনতে পারেননি স্থানীয়রা৷''

ঠাকুরপাড়াবাসী ও স্বজনদের কাছ থেকে জানা গেছে, এই গ্রামের মৃত খগিন্দ্র চন্দ্রের ছেলে টিটু রায়৷ সে লেখাপড়া করেনি, কোনোমতে নিজের নামটা শুধু স্বাক্ষর করতে জানে৷ প্রায় সাত বছর আগে পাওনাদারের ভয়ে বাড়ি-ঘর ছেড়ে ঢাকায় চলে যায় টিটু৷

অডিও শুনুন 00:55
এখন লাইভ
00:55 মিনিট

‘হিন্দুদের বাড়ি ঘরে হামলা, লুটপাট কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য না’

সে বিভিন্ন এনজিওর কাছে ঋণ নিয়ে টাকা পরিশোধ করতে পারেনি৷ পাওনাদারদের অত্যাচারে বাড়ি থেকে একাই পালিয়ে চলে যায়৷ এরপর সে কখনই তার বাড়িতে আসেনি৷ প্রায় পাঁচ বছর আগে তার স্ত্রী ও ছেলে-মেয়োরাও চলে যায় টিটুর কাছে৷ এখন সে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় একটি গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিতে কাজ করছে৷''

রংপুর জেলা পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘আমরা এখনো নিশ্চিত হতে পারিনি যে পোস্টটি কার ফেসবুক থেকে দেয়া হয়েছে৷ বিষয়টি নিয়ে ঢাকার পুলিশ সদর দপ্তর-এর সাইবার অপরাধ টিম কাজ করছে৷ এটা নিয়ে তদন্ত চলছে৷''

এই ফেসবুক স্ট্যাটাস ব্যবহার করে মোসাদ্দেকুর রহমান নামে এক ব্যক্তি ফেসবুক ইভেন্ট খুলে প্রচারণা চালায় ওই এলাকায়৷ তিনি প্রথমে তার আইডি থেকে ইভেন্ট খোলার কথা স্বীকার করলেও পরে প্রশ্নের মুখে ফোন লাইন কেটে দেন৷

অডিও শুনুন 02:39
এখন লাইভ
02:39 মিনিট

‘হামলাকারীদের ছবি আছে, সেই ছবি দেখে আটক করছি’

অভিযোগ উঠেছে ঘটনার দু' সপ্তাহ আগে থেকেই এই কথিত ফেসবুক পোস্ট নিয়ে উত্তেজনা চলছিল৷ পুলিশ আগে থেকে ব্যবস্থা নিলে এই পরিস্থিতি হত না৷ পুলিশ সুপার এই অভিযোগের জবাবে বলেন, ‘‘আমরা আগে থেকেই পুলিশ মোতায়েন করেছিলাম৷ শুক্রবার জুমার নামাজের পর মিছিল করে বিক্ষোভকারীরা চলেও যায়৷ কিন্তু বিকেলে সদর উপজেলার মোমিনপুর ইউনিয়নে একটি জানাজার নামাজের পর জামাত শিবিরের কিছু লোক সাধারণ মুসল্লিদের উত্তেজিত করে ধান ক্ষেতের মধ্য দিয়ে গিয়ে হামলা চালায়৷ তারা প্রথমেই হামলা চালায় টিটু রায়ের পৈত্রিক বাড়িতে৷''

ঘটনার সাথে জড়িতদের সনাক্ত করছেন কীভাবে? এ প্রশ্নের জবাবে পুলিশ সুপার বলেন, ‘‘আমাদের কাছে হামলাকারীদের ছবি আছে৷ সেই ছবি দেখে এখন আটক করছি৷''

শুক্রবার বিকেলে রংপুর সদরের ঠাকুপাড়ায় হামলা চালিয়ে হিন্দুদের ৩০ টি বাড়ি পুড়িয়ে দেয়া হয়, ভাঙচুর করা হয় আরো ২৫টি বাড়িতে৷ চালানো হয় লুটপাট৷  রংপুর সদর এবং গঙ্গাচড়া এই দুই উপজেলা থেকেই জড়ো হয়ে দুর্বৃত্তরা হামলা চালায়৷ এপর্যন্ত ৩৯ জনকে হামলার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে আটক করেছে পুলিশ৷  মামলায় জামায়াত, বিএনপি এবং ওলামা দলের নেতা-কর্মীদের নাম উল্লেখ করা হয়েছে৷

এ প্রসঙ্গে আপনার মতামত লিখুন নীচে মন্তব্যের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়