যৌন হয়রানি রোধে মাদ্রাসায় নারী মেন্টর | বিশ্ব | DW | 26.05.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

যৌন হয়রানি রোধে মাদ্রাসায় নারী মেন্টর

মাদ্রাসাগুলোতে কোনো ছাত্রী যাতে যৌন হয়রানির শিকার না হন সেজন্য প্রত্যেক মাদ্রাসায় একজন করে নারী মেন্টর নিয়োগের নির্দেশ দেয়া হয়েছে৷ তাঁর নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের একটি কমিটি থাকবে৷ ওই কমিটি এসংক্রান্ত অভিযোগের নিষ্পত্তি করবে৷

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতারোধে আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে নেয়া সিদ্ধান্তের আলোকে মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ড এই আদেশ জারি করেছে৷ আদেশে বলা হয়েছে:

১. যৌন হয়রানিসহ নারী ও শিশুর প্রতি সব ধরনের সহিংসতা প্রতিরোধে মনিটরিং ব্যবস্থা জোরদার করতে হবে৷
২. প্রতিটি মাদ্রাসায় একজন নারী শিক্ষককে মেন্টর নিযুক্ত করে মাদ্রাসার ছাত্রীদের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক এবং পারস্পরিক মিথস্ক্রিয়া বৃদ্ধি করতে হবে৷ 
৩. পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভুক্ত জেন্ডার সম্পর্কিত বিষয়গুলো পর্যালোচনা, মাদ্রাসার ছেলেমেয়েদের প্রজনন স্বাস্থ্যের ব্যাপারে সচেতনতা বৃদ্ধি এবং মেয়ে শিক্ষার্থীদের জন্য পৃথক ও পরিচ্ছন্ন টয়লেটের ব্যবস্থা করতে হবে৷
৪. নারী নির্যাতন ও যৌন হয়রানি প্রতিরোধে যে সকল আইন, নীতিমালা ও হাইকোর্টের যে নীতিমালা আছে তা প্রচারের ব্যবস্থা করতে হবে৷
৫. ফ্রি হেল্পলাইন-১০৯ সম্পর্কে শিক্ষার্থীদের জানাতে হবে৷

অডিও শুনুন 00:48

‘‘মাদ্রাসাগুলোতে এরইমধ্যে কমিটি প্রায় হয়ে গেছে’’

২২মে মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ড এই নির্দেশনা জারি করেছে৷ এর আগে ১৯মে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ড বিভাগ আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকের সিদ্ধান্তের আলোতে নির্দেশনা জারির আদেশ দেয়৷

মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান এ কে এম ছায়েফ উল্যা ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘শুধু নারী মেন্টর নয়, তাঁর নেতৃত্বে ৫ সদস্যের একটি কমিটিও গঠন করতে বলা হয়েছে যেখানে নারী শিক্ষকদের প্রাধান্য থাকবে৷ আইনে আছে শিক্ষকদের কমপক্ষে ৩০ ভাগ নারী হতে হবে৷ তাই এই কমিটি গঠন নিয়ে নারী শিক্ষকের সংকট হবেনা৷ যেসব মাদ্রাসায় ৩০ ভাগ নারী শিক্ষক নেই তারা যদি কোটা পূরণ না করে তাদের এমপিও বতিল করে দেয়া হবে৷''

মেন্টর ও কমিটির কর্মপরিধি সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘‘কোনো প্রয়োজনে কোনো ছাত্রীকে মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল সরাসরি ডাকতে পারবেন না৷ তাঁকে মেন্টর ও কমিটির মাধ্যমে ডাকতে হবে৷ তাদের উপস্থিতিতে ওই ছাত্রীর সাথে কথা বলতে হবে৷ আর এটা শুধু প্রিন্সিপাল নয়, যদি কোনো শিক্ষকের মাদ্রাসায় আলাদা কক্ষ থাকে সেক্ষেত্রেও একই নিয়ম প্রযোজ্য হবে৷ ছাত্রীরা কোনো ধরনের যৌন হয়রানি বা অশোভন আচরণের শিকার হলেও মেন্টর ও কমিটির কাছে অভিযোগ করতে পারবে৷ তারা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ করবেন৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘ছাত্রীরা যাতে তাদের সমস্যার কথা বলতে পারে সেজনই এই নারী মেন্টর ও কমিটি৷ নারীদের কাছে নারীরা তাদের কথা বলতে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন৷''

অডিও শুনুন 01:18

‘‘আমরা পত্রিকার মাধ্যমে এই নির্দেশনার কথা জেনেছি’’

 

এ কে এম ছায়েফ উল্যা বলেন, ‘‘ফেনীর সোনাগাজী মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল ছাত্রী নুসরাতকে যৌন হয়রানি করেছে৷ এরপর তাঁকে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়েছে৷ এই ধরনের কমিটি আগে থাকলে এই দুঃখজনক ঘটনা ঘটতো না বলে আমি মনে করি৷ আমাদের সিদ্ধান্ত হলো কোনো শিক্ষকের বিরুদ্ধে কোনো ধরনের যৌন হয়রানির প্রমাণ পেলে তাঁকে সরাসরি বরখাস্ত করে দেব৷ আমরা যদি দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে পারি তাহলে এটা বন্ধ হবে৷''

বাংলাদেশে মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ৯ হাজারেরও বেশি আলিয়া মাদ্রাসা আছে৷ আর এসব মাদ্রাসায় সহশিক্ষা প্রচলিত৷ মাদ্রসাগুলোতে ছাত্রী প্রায় ৫০ ভাগ৷ মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান বলেন, ‘‘আমাদের নির্দেশের পর এরমধ্যে প্রায় সব মাদ্রাসায় কমিটি হয়ে গেছে৷''

মাদ্রাসাগুলো যা ভাবছে:

মোহাম্মদপুর বায়তুল ফজল ইসলামিয়া মাদ্রাসায় ৩০০ শিক্ষার্থী৷ তাদের মধ্যে ৫০ ভাগই ছাত্রী৷ আর ২৫ জন শিক্ষকের মধ্যে ৭ জন নারী৷ মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা গোলাম মাওলা পটোয়ারী ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমরা পত্রিকার মাধ্যমে এই নির্দেশনার কথা জেনেছি৷ তবে এখনো কোনো লিখিত আদেশ পাইনি৷ আমরা কমিটি গঠন করব৷ আর কমিটি গঠনের জন্য আমাদের নারী শিক্ষক আছেন৷''

অডিও শুনুন 01:23

‘‘রমজানের পর আমরা ঠিক করবো কিভাবে কমিটি কাজ করবে’’

তিনি আরেক প্রশ্নের জবাবে বলেন, ‘‘যা পরিস্থিতি শুরু হয়েছে তাতে এধরনের কমিটি গঠন ছাড়া উপায় নেই৷ এই কমিটি হলে আমার মনে হয় ভালো হবে৷ আর সরকারি নির্দেশতো মানতেই হবে৷''

আর দক্ষিণের বরগুনা জেলার উত্তর কাঠালিয়া দখিল মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা আবু সালাম মোহাম্মদ জমিরউদ্দিন বলেন, ‘‘আমরা নির্দেশ পেয়েছি এবং এরইমধ্যে কমিটি গঠন করেছি৷ কিন্তু আমাদের মাদ্রাসায় কোনো নারী শিক্ষক না থাকায় পুরুষ শিক্ষক দিয়েই কমিটি করা হয়েছে৷ আশাপাশ থেকে কয়েকজন নারী তাদের সঙ্গে থাকবেন৷ এখন রমজানের বন্ধ৷ রমজানের পর আমরা ঠিক করবো কিভাবে কমিটি কাজ করবে৷''

কিন্তু, নারী শিক্ষক ছাড়া কিভাবে কমিটি হয় আর নারী শিক্ষক থাকা বাধ্যতামূলক হলেও নেই কেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘‘সরকারের আদেশ তাই আমরা কমিটি গঠন করে তালিকা পাঠিয়েছি৷ আর আমাদের পদ খালি নেই দেখে নারী শিক্ষক নিতে পারছি না৷ খালি হলেই নেব৷ কমিটিতে এমনিতে নারীদের নাম দিয়েছি৷''

তিনিও মনে করেন, ‘‘এই ধরনের কমিটি যৌন হয়রানি প্রতিরোধে কার্যকর ভূমিকা পালন করবে৷''

অডিও শুনুন 03:25

‘‘তাঁকে পুড়িয়ে হত্যা করা হয়েছে’’

সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই কমিটি করতে হবে:

এদিকে, খোঁজ নিয়ে জানা গেছে নারী মেন্টর ও কমিটি সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই করতে হবে৷ আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে সেই সিদ্ধান্তই হয়েছে৷ মাদ্রাসাগুলোতে আগেই শুরু হলো৷ ২০০৯ সালে উচ্চ আদালত যৌন হয়রানি প্রতিরোধে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নারীর নেতৃত্বে ৯ সদস্যের কমিটি গঠনের নির্দেশ দিয়েছিল৷ তবে তা অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানই মানেনি৷

শিক্ষামন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা বিভাগের সচিব মোহাম্মদ আলমগীর ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আন্তঃমন্ত্রণালয় বেঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মাদ্রাসাসহ সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকেই যৌন হয়রানি প্রতিরোধে কমিটি গঠন করতে হবে৷ মাদ্রাসাগুলোতে এরইমধ্যে কমিটি প্রায় হয়ে গেছে৷ আর মাদ্রাসার জন্য আমাদের একটা বাড়তি নির্দেশনা আছে৷ তাদের অবশ্যই ৩০ ভাগ নারী শিক্ষকের কোটা পূরণ করতে হবে৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘নারীদের নেতৃত্বে এই কমিটিগুলো হলে যৌন হয়রানিসহ আরো অনেক সমস্যা সমাধান সহজ হবে৷ কারণ নারীরা নারীদের কাছে তাদের সমস্যা বা অভিযোগ সহজে বলতে পারেন৷'' 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন