যুদ্ধাপরাধের বিচার হতেই হবে: জয়া আহসান | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 15.12.2011
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সমাজ সংস্কৃতি

যুদ্ধাপরাধের বিচার হতেই হবে: জয়া আহসান

বাংলাদেশের জনপ্রিয় মডেল ও অভিনেত্রী জয়া আহসান৷ মুক্তিযোদ্ধা নাসির উদ্দিন ইউসুফ বাচ্চুর ‘গেরিলা’ ছবির কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি৷ মুক্তিযুদ্ধের সত্য ঘটনা নিয়ে নির্মিত গেরিলা ইতিমধ্যে সাড়া জাগিয়েছে৷

default

জয়া আহসান মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী প্রজন্মের মানুষ৷ মা-বাবার কাছে শুনেছেন মুক্তিযুদ্ধের কথা৷ তাঁর কাছে মুক্তিযুদ্ধটা ছিল যেন একটা ‘ফ্যান্টাসি'র মত৷ বললেন তিনি ডয়চে ভেলের সঙ্গে এক একান্ত সাক্ষাৎকারে৷ তিনি বলেন: ‘‘আমাদের যে নতুন প্রজন্ম, আসলে আমরা কল্পনা করতাম, এটা কী আসলেই সম্ভব? আদৌ কী এরকম ঘটনা ঘটেছিল? বা এভাবে কী যুদ্ধ হয়েছিল? আমাদের কাছে এটা খুব ‘রেয়ার' ছিল৷''

গেরিলা ছবিতে অভিনয় মুক্তিযুদ্ধের অনেক কাছাকাছি নিয়ে এ সেছে তাঁকে৷ তিনি বলেন: ‘‘কাজটা (গেরিলা) করতে যাওয়ার পরে আসলে আমি এখন নিজে মনে করি, মুক্তিযুদ্ধে কোন না কোনভাবে আমি কিছুটা হলেও অবদান রেখেছি৷ আমার দায়িত্বের জায়গা থেকে, আমার ভালবাসার জায়গা থেকে, আমার আবেগের জায়গা থেকে আমি এখন বলতে পারি, হ্যাঁ, মুক্তিযুদ্ধে কোন না কোনভাবে আমার অংশগ্রহণ ছিল৷ কারণ এই ছবিটি করার সময় আমাদের এমনই একটি অনুভূতি ছিল, বিশেষ করে আমাদের টিমের সবাই যুদ্ধের উত্তেজনাটা সম্পূর্ণরূপে অনুভব করেছিলাম৷''

ছবির বাস্তবতার মধ্য দিয়ে যুদ্ধের সময়কার বিষয়গুলো বিশ্বাসযোগ্য হয়ে দেখা দিয়েছে তাঁর কাছে৷

Guerrilla (Filmplakat)

গেরিলা ছবির পোস্টার

যদি বিশ্বাসযোগ্য না হত, তাহলে এরকম একটি সুন্দর ছবিতে ভালোভাবে অভিনয় সম্ভব ছিল না বলে তিনি মনে করেন৷

মুক্তিযুক্তভিত্তিক অন্যান্য ছবির সঙ্গে তুলনায় গেরিলা'র বিশেষত্বের দিকে দৃষ্টি আকর্ষণ করতে গিয়ে জয়া আহসান বললেন: ‘‘আমার কাছে মনে হয়েছে, গেরিলা মুক্তিযুদ্ধের অন্য একটা দিকে আলো ফেলেছে৷ সেটি হচ্ছে গণহত্যা এবং জেনোসাইড৷ এই দুটি বিষয় আসলে এত ভয়াবহভাবে, এত সত্যিকার অর্থে আর কোন মুক্তিযুদ্ধের ছবিতে আমরা পাইনি৷ এমনকি আমি বলব, সাহিত্যেও খুব কম এসেছে৷ সেইদিক থেকে এই ছবিটি একটি আলাদা জায়গা তৈরি করেছে৷ আরেকটি কথা, যেটা শুধু আমার নয়, সবাই বলে যে, গেরিলা আসলে মুক্তিযুদ্ধের একটি দলিল হিসেবে কাজ করবে৷ মুক্তিযুদ্ধে যে ব্যাপকতা, মহাকাব্যিক ব্যাখ্যা, এগুলো আসলে মুক্তিযুদ্ধের দলিল হিসেবেই কাজ করবে৷ এখন এটার প্রয়োজনীয়তা আছেই, আরো দশ বছর পর আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম আসলে বুঝতে পারবে এরকম একটি ছবির কতটা প্রয়োজন ছিল৷''

বর্তমান প্রজন্মের একজন বিশিষ্ট তারকা হিসেবে জয়া আহসান মনে করেন, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার প্রক্রিয়ার আর কোন বিকল্প নেই৷ এটা হতেই হবে৷

সাক্ষাৎকার: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ আল-ফারূক

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন