যুক্তরাষ্ট্র-ইরানের বন্দি বিনিময় | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 05.06.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ইরান

যুক্তরাষ্ট্র-ইরানের বন্দি বিনিময়

ইরানে দুই বছর বন্দি থাকার পর শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রে ফিরেছেন মার্কিন নৌবাহিনীর সাবেক সদস্য মাইকেল হোয়াইট৷ বন্দি বিনিময় চুক্তির আওতায় গত মার্চে তিনি ইরানের জেল থেকে ছাড়া পেয়েছিলেন৷

হোয়াইটকে মুক্তি দেয়ার বিনিময়ে যুক্তরাষ্ট্রে বন্দি থাকা মার্কিন-ইরানি নাগরিক চর্ম বিশেষজ্ঞ মাটেও তেয়ারিকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে৷

ইরানের সর্বোচ্চ নেতাকে অবমাননা ও অনলাইনে ব্যক্তিগত তথ্য প্রকাশের অভিযোগে হোয়াইটকে দশ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছিল৷ ২০১৮ সালের জুলাই মাসে তাকে আটক করা হয়৷ 

তবে হোয়াইটের পরিবারের দাবি, অনলাইনে এক নারীর সঙ্গে পরিচয়ের পর ভালোবাসায় জড়িয়ে পড়লে তার সঙ্গে দেখা করতে ইরান গিয়েছিলেন হোয়াইট৷

এদিকে, ফ্লোরিডায় কাজ করা তেয়ারির বিরুদ্ধে ২০১৮ সালে ইরানে ফিল্টার রপ্তানির অভিযোগ আনা হয়েছিল৷ টিকা নিয়ে গবেষণা কাজে এসব ফিল্টার কাজে লাগবে বলে দাবি করেছিলেন তেয়ারি৷ তবে মার্কিন কর্তৃপক্ষের দাবি, কেমিক্যাল ও বায়োলজিক্যাল অস্ত্র তৈরিতে এই ফিল্টার ব্যবহার করা যায়৷

এছাড়া তেয়ারির বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের ব্যাংক সংক্রান্ত আইন ভঙ্গেরও অভিযোগ আনা হয়েছিল৷

এর আগে গত ডিসেম্বরে প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ে কাজ করা চীনা-মার্কিন নাগরিক জিয়ু ওয়াংকে মুক্তি দিয়েছিল ইরান৷ বিনিময়ে ছাড়া পেয়েছিলেন ইরানের একজন বিজ্ঞানী৷ 

ইরানের কারাগারে বন্দি অন্য মার্কিন নাগরিকদের মুক্তি দেয়ার আহ্বান জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র৷

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সহযোগিতার অভিযোগে কারাগারে আছেন ইরানি-মার্কিন নাগরিক সিয়ামাক নামাজি৷ জাতিসংঘের একটি প্যানেল এই অভিযোগ মিথ্যা বলে জানিয়েছে৷

এছাড়া গুপ্তচরবৃত্তির অভিযোগে বন্দি থাকা পরিবেশ বিষয়ক অ্যাক্টিভিস্টদের একজন মোরাদ তাহবেজ৷ ইরান ছাড়াও তিনি যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেনের নাগরিক৷

জেডএইচ/এসিবি (এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন