যুক্তরাষ্ট্রে এবার গির্জায় বন্দুক নিয়ে বিয়ে | বিশ্ব | DW | 01.03.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

যুক্তরাষ্ট্র

যুক্তরাষ্ট্রে এবার গির্জায় বন্দুক নিয়ে বিয়ে

ফ্লোরিডায় এখনো কান্না থামেনি৷ সতীর্থদের হারানোর শোক সঙ্গে নিয়ে ছাত্র-ছাত্রীরা যেদিন স্কুলে ফিরেছে, সেদিনই গির্জায় হয়ে গেল অদ্ভুত এক বিয়ের অনুষ্ঠান৷ সেখানে বর-কনের হাতে ছিল রাইফেল আর মাথায় বুলেট-শোভিত মুকুট!

গত ১৪ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডার এক স্কুলে বন্দুকধারীর গুলিতে ১৭ জন মারা যায়৷ মর্মান্তিক এ ঘটনার পর ফ্লোরিডায় তো বটেই, দেশের অন্যান্য স্থানেও বন্দুকবিরোধী আইন কঠোর করার দাবিতে আন্দোলন হয়েছে৷ প্রায় অনায়াসে বন্দুক রাখার আইনকে কঠোর করার দাবি আদায়ে অভিনব সব কর্মসূচি পালন করেছেন প্রতিবাদকারীরা৷ প্রতিবাদ, বিক্ষোভে একেবারে সামনের কাতারে ছিল ফ্লোরিডার শিক্ষার্থীরা

বুধবার, অর্থাৎ বন্দুক হামলার ১০ দিন পর মারজোরি স্টোনম্যান ডগলাস হাইস্কুলে ফিরেছে শিক্ষার্থীরা৷ কিন্তু তাদের শ্রেণিকক্ষে ফেরার দিনেই পেনসিলভানিয়া রাজ্যের এক গির্জায় বন্দুক বিক্রির প্রচলিত আইনের সমর্থনে আয়োজন করা হয় এক অনুষ্ঠান৷ নিউফাউন্ডল্যান্ড  শহরের অনুষ্ঠানটি ছিল মূলত বিয়ে নবায়নের৷ আড়াইশ'র মতো জুটি অনুষ্ঠানে যোগ দেন৷ সবার সঙ্গে ছিল এআর-ফিফটিন রাইফেল৷ এই রাইফেল দিয়েই ফ্লোরিডার স্কুলে ১৭ জনকে হত্যা করেছিল ১৯ বছর বয়সি এক প্রাক্তন ছাত্র৷

সব বর বিয়ের অনুষ্ঠানে এসেছিলেন সাদা-কালো পোশাক পরে৷ কণেদের পরনে ছিল ঐতিহ্যবাহী সাদা পোশাক৷ তবে অভিনবত্ব ছিল মুকুটে৷ অনেকেই সগর্বে মাথায় তুলে নিয়েছিলেন এমন মুকুট যাতে লাগানো ছিল রাইফেলের গুলি৷

তবে কারো রাইফেলেই গুলি ছিল না৷ গির্জায় প্রবেশের আগেই নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিরা প্রত্যেকটি রাইফেল সময় নিয়ে দেখে তবেই প্রবেশ করতে দেন অভ্যাগতদের৷

USA Gottesdienst mit Waffen (picture-alliance/AP Photo/J. Larma)

সবার হাতে রাইফেল আর অনেকে মাথায় বুলেট-শোভিত মুকুট

তারপরও এমন এক আয়োজনের কারণে নিউফাউন্ডল্যান্ডে ছড়িয়ে পড়ে আতঙ্ক৷ গির্জার পাশের একটি প্রাথমিক স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের নিরাপত্তা নিয়ে দেখা দেয় শঙ্কা৷ বাধ্য হয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের ক্যাম্পাসের অপেক্ষাকৃত নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয় স্কুল কর্তৃপক্ষ৷

তবে নিউফাউন্ডল্যান্ডের ‘ওয়ার্ল্ড পিস অ্যান্ড ইউনিফিকেশন স্যাঙ্কচুয়ারি'-তে  বন্দুক নিয়ে এমন আয়োজন নতুন কিছু নয়৷ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে আছে এই গির্জার অনুসারী৷ অনুসারীরা মনে করেন, বন্দুক ক্রয়ের আইন কঠোর করে কখনোই যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুক হামলা রোধ করা যাবে না৷ বরং তাদের মতে, বন্দুক এমন এক ‘লৌহদণ্ড' (রড অফ আয়রন), যা দিয়ে ‘শয়তান', অর্থাৎ বন্দুকবাজ অপশক্তিকে প্রতিহত করা যায়৷

বুধবারের অনুষ্ঠানে বন্দুক আইনে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অবস্থানের প্রতি পূর্ণ সমর্থন জানানো হয়৷ সেখানে অনুষ্ঠানের আয়োজক হিউং জিন মুন বাইবেল থেকে উদ্ধৃতি দিয়ে অশুভকে দমনের জন্য সমাজের সর্বস্তরের মানুষের সঙ্গে বন্দুক রাখার পক্ষে যুক্তি দেখিয়ে বক্তব্যও দেন৷

এসিবি/এসবি (এএফপি, এপি, রয়টার্স) 

নির্বাচিত প্রতিবেদন