যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনায় আগ্রহী উত্তর কোরিয়া | বিশ্ব | DW | 26.02.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

উত্তর কোরিয়া

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনায় আগ্রহী উত্তর কোরিয়া

উত্তর কোরিয়ার একটি প্রতিনিধিদল বলেছে যে, পিয়ংইয়াং কোরিয়া উপদ্বীপে উত্তেজনা প্রশমনের জন্য ওয়াশিংটনের সঙ্গে আলাপ-আলোচনায় ‘খুবই আগ্রহী’৷ দক্ষিণ কোরিয়ায় শীতকালীন অলিম্পিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার সমাপ্তিপর্বে এ খবর জানা যায়৷

পিয়ংচাং-এর শীতকালীন অলিম্পিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা শেষ হয় গত রবিবার৷ তার আগেই কানাঘুষো শোনা যায় যে, দুই কোরিয়াকে আরো কাছাকাছি আনার উদ্যোগ অলিম্পিকের পরেও বজায় রাখার প্রচেষ্টা করা হবে৷

বর্ণাঢ্য সমাপ্তি অনুষ্ঠানে উত্তর কোরিয়ার উচ্চপদস্থ জেনারেল কিম ইয়ং চল যেখানে বসেছেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কন্যা ইভানকাসহ মার্কিন প্রতিনিধিদল তার মাত্র কয়েক আসন দূরে আসন গ্রহণ করে৷ জেনারেল চল অতীতে দক্ষিণ কোরিয়ার সামরিক বাহিনীর উপর একাধিক আক্রমণের পরিকল্পনা করেছিলেন বলে অভিযোগ আছে৷

ইতিমধ্যে দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রপতি ভবন, তথাকথিত ‘ব্লু হাউস’ থেকে ঘোষণা করা হয়েছে যে, জেনারেল চল-এর প্রতিনিধিদল বলেছে, উত্তর কোরিয়া মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনায় ‘খুবই আগ্রহী’৷

দক্ষিণ কোরিয়ার ইওনহাপ সংবাদ সংস্থার খবর অনুযায়ী, দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট মুন জে-ইন-এর সঙ্গে একটি সাক্ষাতে এই মন্তব্য করা হয় ও বলা হয় যে, উত্তর কোরিয়ার সৌল ছাড়া ওয়াশিংটনের সঙ্গেও সম্পর্কের উন্নতি ঘটানো উচিত৷ 

চল ও মুনের সাক্ষাৎ সম্পর্কে ব্লু হাউসের মুখপাত্র কিম অয়-কিওম বলেন, ‘‘প্রেসিডেন্ট মুন উল্লেখ করেন যে, দক্ষিণ ও উত্তর কোরিয়ার সম্পর্কের উন্নতি ও কোরিয়া উপদ্বীপ সংক্রান্ত বিভিন্ন প্রসঙ্গের বুনিয়াদি সমাধানের জন্য যথাশীঘ্র মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়ার মধ্যে সংলাপ সংঘটিত হওয়া প্রয়োজন৷’’

পারমাণবিক প্রসঙ্গটি সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ

কোরিয়া উপদ্বীপ সংক্রান্ত প্রসঙ্গাবলীর ব্যাখ্যা করতে গিয়ে দক্ষিণ কোরিয়ার এক কর্মকর্তা উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক সমরাস্ত্র কর্মসূচি ও কোরিয়া উপদ্বীপকে পারমাণবিক অস্ত্রবর্জিত এলাকা করার কথা বলেন৷

রবিবার শীতকালীন অলিম্পিকের সমাপ্তি অনুষ্ঠানের প্রাক্কালে চল ও মুনের মধ্যে সাক্ষাৎটি সংঘটিত হয়৷ অলিম্পিক চলাকালীন এটা ছিল উত্তর কোরিয়া প্রশাসনের উচ্চপদস্থ সদস্যদের সঙ্গে মুনের দ্বিতীয় সাক্ষাৎ – যার মধ্যে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের ছোটবোন কিম ইও জং-ও ছিলেন৷

অলিম্পিকের আগে জেনারেল চলকে আমন্ত্রণ জানানোর ব্যাপারে প্রতিবাদ প্রদর্শন করা হয়েছিল, কেননা, অতীতে যে টর্পেডো আক্রমণে দক্ষিণ কোরিয়ার একটি জঙ্গিজাহাজের ৪৬ জন নৌসেনার মৃত্যু ঘটে, তার সঙ্গে চল-এর যোগ ছিল বলে সন্দেহ করা হয়ে থাকে৷

ট্রাম্প প্রশাসন নিশ্চিত করে কিছু বলছে না

পিয়ংইয়াং যে নিরস্ত্রীকরণ সম্পর্কে আন্তরিক, উত্তর কোরিয়ার সাম্প্রতিক প্রস্তাবের অর্থ তাই কিনা, তা অপেক্ষা করে দেখা হবে বলে হোয়াইট হাউস রবিবার জানায়৷

‘‘পিয়ংইয়াং আলোচনায় আগ্রহী – আজকের এই বার্তা নিরস্ত্রীকরণের পথে প্রথম পদক্ষেপের আভাস দিচ্ছে কিনা, সময়ের অগ্রগতিতে আমরা তা দেখবো’’ বলে হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি সারা স্যান্ডার্স একটি লিখিত বিবৃতিতে মন্তব্য করেন৷ ‘‘ইত্যবসরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও বহির্বিশ্বকে পূর্বাপর স্পষ্ট করে দিতে হবে যে, উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক ও ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচিগুলি থেকে কোনো ফললাভ হবে না৷’’

স্যান্ডার্স স্বয়ং পিয়ংচাংয়ের সমাপ্তি অনুষ্ঠানে মার্কিন প্রতিনিধিদলে ছিলেন৷ তিনি আরো বলেন যে, উত্তর কোরিয়া তার পারমাণবিক সমরাস্ত্র কর্মসূচি পরিত্যাগ না করা অবধি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তাঁর ‘সর্বাধিক চাপ অভিযান’ চালিয়ে যাবেন৷

শুক্রবার ট্রাম্প প্রশাসন ঘোষণা করে যে, উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা লঙ্ঘণ করছে, এমন একাধিক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে৷ চীন ওয়াশিংটনের এই পদক্ষেপে উষ্মা প্রকাশ করে ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক আইনের পরিবর্তে তাদের স্বকীয় নিয়মকানুন প্রয়োগের অভিযোগ করে৷

এসি/এসিবি (ইওনহাপ, এএফপি, এপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়