যুক্তরাষ্ট্রের যে কোনো অংশে আঘাত হানতে সক্ষম উত্তর কোরিয়া | বিশ্ব | DW | 29.11.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

উত্তর কোরিয়া

যুক্তরাষ্ট্রের যে কোনো অংশে আঘাত হানতে সক্ষম উত্তর কোরিয়া

দীর্ঘ পাল্লার আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক মিসাইলের পরীক্ষা চালিয়েছে উত্তর কোরিয়া৷ পিয়ংইয়ং-এর দাবি, অ্যামেরিকা মহাদেশের যে কোনো স্থানে আঘাত হানতে সক্ষম এটি৷ এই পরিস্থিতিতে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ জরুরি বৈঠক ডেকেছে৷

সেপ্টেম্বরের পর এই প্রথম ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের সফল পরীক্ষা চালালো উত্তর কোরিয়া৷ দক্ষিণ কোরিয়ার ইয়োনহাপ সংবাদ সংস্থা জানিয়েছে, দক্ষিণ পিয়ংইয়ং-এর সাইন নি থেকে ক্ষেপণাস্ত্রটি উৎক্ষেপণ করা হয়েছে৷ উৎক্ষেপণের পর ক্ষেপণাস্ত্রটি সাড়ে চার হাজার কিলোমিটার উচ্চতায় পৌঁছায় তারপর নেমে এসে বুধবার সকালে উত্তর কোরিয়া থেকে ৯৬০ কিলোমিটার দূরে জাপানের জলসীমায় পড়ে৷

উত্তর কোরিয়ার টেলিভিশনে একটি বিবৃতি দেখানো হয়, যেখানে বলা হয়েছে পিয়ংইয়ং নতুন ধরনের আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক মিসাইলের (আইসিবিএম) এর পরীক্ষা চালিয়েছে, যার নাম হোয়াসং-১৫৷ এতে দাবি করা হয়েছে অ্যামেরিকা মহাদেশের যে কোনো স্থানে আঘাত হানতে সক্ষম এটি৷ এতে আরও বলা হয়েছে, ক্ষেপণাস্ত্রটি ভীষণ বড় এবং ভারী ওয়ারহেড বহনে সক্ষম৷

যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক ‘ইউনিয়ন অফ কনসার্নড সায়েন্টিস্টস' এক বিবৃতিতে বলেছে, উত্তর কোরিয়ার এবারের ক্ষেপণাস্ত্রটি ১৩ হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে সক্ষম৷ সেক্ষেত্রে যুক্তরাষ্ট্রের যে কোনো স্থানে সেটা পৌঁছানো সম্ভব৷ যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রী জেমস ম্যাটিস সাংবাদিকদের বলেছেন, উত্তর কোরিয়ার এবারের ক্ষেপণাস্ত্রটির পাল্লা ছিল আগের যে কোনোটির চেয়ে বেশি৷

যে কোনো ধরনের ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের প্রযুক্তির উন্নয়ন ও ব্যবহারের বিষয়ে উত্তর কোরিয়ার উপর জাতিসংঘের নিষেধাজ্ঞারয়েছে৷ কিন্তু আন্তর্জাতিক সমালোচনা ও নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করেই গত কয়েক বছর ধরে একের পর এক পারমাণবিক অস্ত্র ও দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়ে আসছে পিয়ংইয়ং৷

বিশ্ব নেতাদের প্রতিক্রিয়া

নতুন নিষেধাজ্ঞা আরোপের পথ তৈরি করতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প উত্তর কোরিয়াকে ‘সন্ত্রাসের পৃষ্ঠপোষক রাষ্ট্র' ঘোষণা করার এক সপ্তাহের মাথায় এই ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালানো হলো৷ এ ব্যাপারে ট্রাম্প সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘আমরা ব্যাপারটা দেখছি৷''

জাপানের প্রধানমন্ত্রী সিনজো আবে সাংবাদিকদের বলেন, ‘‘উত্তর কোরিয়ার এমন আচরণ বরদাস্ত করা হবে না৷ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে এক হয়ে এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়তে হবে, যাতে শান্তিপূর্ণ সমাধানে আসা যায়৷'' উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে পূর্ণ অবরোধের আহ্বান জানিয়েছে জাপান৷ দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট যথারীতি এর নিন্দা জানিয়েছেন৷

এদিকে, জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ এ ব্যাপারে আজ জরুরি বৈঠক ডেকেছে৷ ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্র বিষয়ক প্রধান ফেডেরিকা মোঘেরিনি একে আন্তর্জাতিক নীতির লঙ্ঘন বলে মন্তব্য করেছেন৷ বিশ্বের নিরাপত্তার জন্য এটা একটা বড় হুমকি বলে উল্লেখ করেছেন তিনি৷

ফরাসি প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল মাক্রোঁ টুইটারে এই পরীক্ষার নিন্দা জানিয়ে পিয়ংইয়ং-এর উপর চাপ প্রয়োগের আহ্বান জানিয়েছেন৷

এপিবি/ডিজি (এপি, এএফপি, রয়টার্স, ডিপিএ)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন