যাদের কাছে গোয়েন্দা পুলিশও ‘ফেল’ | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 25.10.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

থাইল্যান্ড

যাদের কাছে গোয়েন্দা পুলিশও ‘ফেল’

থাইল্যান্ডে প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ এবং রাজার ক্ষমতা কমানোর দাবিতে বিক্ষোভ চলছে চার মাস ধরে৷ পুলিশ টের পায় না কোথায় কখন বিক্ষোভ মিছিল হবে, কিন্তু অনেক বিক্ষোভকারীর চেয়েও আগে খবর পেয়ে তারা ঠিকই হাজির হয় সেখানে!

তারা গোয়েন্দা পুলিশ নয়৷ কিন্তু এত দ্রুত কেমন করে যে বিক্ষোভের জায়গায় পৌঁছে যায় তা ভেবে থাইল্যান্ডের অনেকেই অবাক৷

আসলে তারা স্ট্রিট ফুড বিক্রেতা৷ গত জুলাই থেকে যেখানে বিক্ষোভ সেখানেই ঝটপট হাজির হয়ে যাচ্ছেন তারা৷

২৮ বছর বয়সি প্লয় ব্যাংককের রাস্তায় নিয়মিত বিক্ষোভে অংশ নেন৷ বেশির ভাগ সময় তার অনেক আগে খাবার বিক্রেতাদের ভ্যান নিয়ে পৌঁছে যেতে দেখে তিনি খুব অবাক, ‘‘তারা আমাদের চেয়েও আগে পৌঁছে যায় সেখানে৷’’

এত দ্রুত কিভাবে তারা বিক্ষোভ মিছিলের খবর সংগ্রহ করছেন, জানেন? মোবাইল ফোনের সহায়তায়৷

গণতন্ত্রপন্থিদের কোনো অংশ যখনই নিজেদের মধ্যে বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা করে, সঙ্গে সঙ্গেই সেই তথ্য নিজেদের মধ্যে ছড়িয়ে দেন স্ট্রিট ফুড বিক্রেতারা৷ ফলে বিক্ষোভকারীরা বিক্ষোভস্থলে হেঁটে পৌঁছানোর অনেক আগে গরম, টাটকা খাবারের ভ্যান চালিয়ে গিয়ে ক্রেতার অপেক্ষা শুরু করে দেন বিক্রেতারা৷

থাই পুলিশ, এমনকি অনেক বিক্ষোভকারীর চেয়েও আগে খবর সংগ্রহ করে ঘটনাস্থলে পৌঁছে যাওয়ার এই দক্ষতার জন্য ব্যাংককের স্ট্রিট ফুড বিক্রেতাদের নাম হয়ে গেছে ‘সিআইএ’! সিআইএ মানে মনে নেই? সেন্ট্রাল ইন্টেলিজেন্স এজেন্সি, অর্থাৎ কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা৷ হ্যাঁ, থাইল্যান্ডের অনেকেই মনে করেন, ব্যাংককের স্ট্রিট ফুড বিক্রেতারা গোপন খবর চট করে সংগ্রহ করে ঝটপট ঘটনাস্থলে চলে যাওয়ার দক্ষতায় গোয়েন্দাদেরও হার মানিয়েছেন৷

এসিবি/ কেএম (রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন