যমজদের গ্রামের ব্যাখ্যা আজও বিজ্ঞানীদের অধরা | বিশ্ব | DW | 13.05.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভারত

যমজদের গ্রামের ব্যাখ্যা আজও বিজ্ঞানীদের অধরা

কোডিনহি, দক্ষিণ ভারতের কেরালা রাজ্যের প্রত্যন্ত একটি গ্রাম৷ কিন্তু বর্তমানে এই গ্রাম বিশ্বজোড়া পরিচিতি পেয়েছে ‘যমজদের গ্রাম' হিসেবে৷ বিজ্ঞানীরাও স্তম্ভিত এখানকার যমজদের ক্রমবর্ধমান জন্মহার দেখে!

একটি গ্রামে এলে চমকে যাবেন না৷ গ্রামের রাস্তাঘাটে, খেলার মাঠে, স্কুলে বা অফিসে সর্বত্র জোড়ায় জোড়ায় মুখ দেখতে পাবেন৷ এক স্কুলের প্রধানশিক্ষক জানান, তাঁর স্কুলেই ১৭ জোড়া যমজ আসে রোজ৷ আবার খেলার মাঠে যমজ খেলোয়াড়দের নিয়েও দর্শকরা মাঝে মাঝে বিভ্রান্তিতে পড়েন৷ ব্যাপারগুলো যেমন মজার তেমনই আশ্চর্যের৷ কোচি বন্দরের মাত্র ১৫০ কিমি দূরত্বে এই গ্রামে ঢুকে এমনই দেখবেন৷ ভাবছেন, সত্যিই কি তাই?  

সার্কাস বা পেশাদার থিয়েটার নয়, আসলে মালাপ্পুরম জেলার কোডিনহি গ্রামের প্রায় প্রতিটি পরিবারেই রয়েছে যমজ ভাই-বোন৷ গ্রামে ঢোকার আগেই সাইনবোর্ডে দেখতে পাবেন, ‘ঈশ্বরের একান্ত আপন যমজদের গ্রাম – কোডিনহি৷'

এখানে হাজারটি জন্মের মধ্যে ৪২টি জন্মই যমজদের৷ ২০০৮ এর পরিসংখ্যানে তাকালে দেখা যাবে, এই গ্রামে জন্ম নিয়েছিল ২৬৪ যমজ শিশু, সংখ্যাটা বেড়ে এখন ৪৫০ এ দাঁড়িয়েছে৷ সারা বিশ্বে যমজ সন্তান প্রসবের যে হার, কেরালার এই গ্রামে সে হার প্রায় ছয় গুণ বেশি৷ গ্রামের ৮৫ শতাংশ মানুষ মুসলিম হলেও হিন্দুদের মধ্যেও যমজ সন্তান জন্মের হার একইরকম৷

যমজের জন্মের এই আশ্চর্য ঘটনা বিশ্বে কেবল কোডিনহিতে নয়, আরও দু'টি গ্রামেও ঘটে৷ নাইজেরিয়ার ইগবো ওরা এবং ব্রাজিলের ক্যানডিডো গডোই নামের গ্রামে৷ এই দু'টি গ্রামের যমজ সন্তান জন্মের ব্যাখা অবশ্য পাওয়া গেছে৷ কিন্তু এই ইন্টারনেটের যুগে এসেও বিজ্ঞানীরা সঠিকভাবে কোডিনহির ব্যাখা দিতে পারছেন না৷

গ্রামটিতে যমজ শিশু জন্মের এই ধারা শুরু হয়েছিল ৬০-৭০ বছর আগে৷ যমজের সংখ্যা এরপর ক্রমেই বেড়েছে৷ দেখা গেছে, বিয়ের পর কোনও মহিলা এই গ্রামে এলে তিনিও যমজ সন্তান প্রসব করছেন৷ স্থানীয় চিকিৎসক শ্রীবিজু জানালেন, পাশ্চাত্যের মতো এ গ্রামে সন্তান জন্মের জন্য কোনো কৃত্রিম পদ্ধতি অবলম্বন করা হয় না৷ সাধারণত কমবয়সি মহিলারাই প্রথমবারের মাতৃত্বে এমন যমজ সন্তানের অভিজ্ঞতা লাভ করেছেন৷ আর গ্রামবাসীরা তো যমজ জন্মের এই ব্যাপারটিকে ঐশ্বরিক আশীর্বাদ বলে ধরে নিয়েছেন৷

গ্রামের সবচেয়ে বয়স্ক যমজরা এখনও বেঁচে৷ কুনহি পাথুটি এবং পাথুটি নামের সত্তর বছরের এই দুই বোনের দাবি, সবটাই ঈশ্বরের আশীর্বাদ৷ বিজ্ঞান কিছুই করে উঠতে পারবে না৷ তাঁরা তো যমজ পেরিয়ে এখন ট্রিপ্লেট (তিনটি বাচ্চার একসঙ্গে জন্ম) আর কোয়াড্রপ্লেট মানে চারটে বাচ্চাও জন্মাতে দেখছেন৷

তবে বিজ্ঞানীরা হাল ছেড়ে দেননি৷ যমজ জন্মের নেপথ্যে জেনেটিক, অর্থাৎ জিনগত নাকি আবহাওয়ার কারণ দায়ী, তার পরীক্ষা চলছে৷ বিভিন্ন দেশ থেকে বিজ্ঞানীরা ভগবানের এই আপন দেশে এসে যমজদের বিভিন্ন জৈবিক নমুনা সংগ্রহ করে চলেছেন৷ ২০০৬ সালে এই যমজদের সুরক্ষার জন্য সমিতিও গড়ে উঠেছে৷ দুঃস্থ যমজদের পরিবারকে সাহায্যের জন্য এই সমিতি গড়ে তোলা হয়েছে৷ ভারতবর্ষে এমন সমিতি আর নেই৷ আপাতত সারা বিশ্বের গণমাধ্যমের চোখের মনি এই গ্রাম৷ দেখা যাক, আরও কত কী অভিনব হয় যমজদের গ্রামে! 

মুরালী কৃষ্ণণ/পিএস

যমজ গ্রামের গল্প কেমন লাগলো আপনাদের? জানান আমাদের, লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন