ম-এ মা, ম-এ মিথ্যা, ম-এ মুখোশ | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 10.05.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ব্লগ

ম-এ মা, ম-এ মিথ্যা, ম-এ মুখোশ

করোনা সংকটে আমরা সবাই মাস্ক পরছি৷ মা দিবসে বলছি, ‘‘মা-কে খুব ভালোবাসি৷ আমার মা সেরা মা!’’

প্রতীকী ছবি

প্রতীকী ছবি

আসলে আমরা অনেকেই শুধু নিজের মা-কে ভালোবাসি৷ অনেকের মা শুধু নিজের সন্তানের জন্যই সেরা৷ এটা কি খুব ভালো কথা?

ঢাকার এক নারী সাংবাদিক এই লকডাউনে স্বামীর দ্বিতীয় বিয়ে ঠেকাতে অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে ছুটে গিয়েছিলেন দূরের এক শহরে৷ গিয়ে অকথ্য গালাগাল আর পিটুনি খেয়ে ফিরতে হয়েছে তাকে!

অথচ তার স্বামী দৈনিক যুগান্তরের সাংবাদিক৷

পাঁচ মাস আগে দুই সংবাদিকের প্রেম শুরু৷ প্রেমিক প্রবর পরিবারেরআপত্তির কথা জানিয়ে আপাতত গোপনে বিয়ে সেরে ফেলার প্রস্তাব দিলে ওই নারী তা মেনে নেন৷

নিজে দৈনিক সমকালের সাংবাদিক, নারী নির্যাতন নিয়ে প্রতিবেদন করেন নিয়মিত৷ তাই ভাবেননি তার জীবনেও নামতে পারে একই অন্ধকার৷

তাছাড়া পুরুষ সাংবাদিকটি যে পেশাদার প্রতারকদের চাইতেও ভালো অভিনেতা তা-ও বুঝতে পারেননি৷ সে কারণে হঠাৎ ‘মা খুব অসুস্থ' বলে বাড়ি যেতে চাইলে স্বামীকে বলেছিলেন, ‘শিগগির যাও!’ 

তারপর সাত দিনের মধ্যেই নাকি বেরিয়ে আসে থলের বিড়াল৷

জানা যায়, ওই পুরুষ সাংবাদিক মায়ের অসুস্থতার কথা বলে আসলে গিয়েছেন দ্বিতীয় বিয়ে করতে৷ আরো জানা যায়, এর আগেও প্রেমের কথা, বিয়ের কথা বলে অনেক নারীকে তিনি ধোঁকা দিয়েছেন, গোপন স্বার্থ হাসিলের পর ছুড়ে ফেলেছেন তাদের৷

সব শুনে নারী সাংবাদিকও বুঝলেন, দেরি করলে তার কোনো ‘আশ্রয়’ থাকবে না, পেটে যে সন্তান এসেছে তার জীবনটাও তাহলে দুর্বিষহ হবে৷

লকডাউনে কোনো গাড়ি চলে না৷ তাই প্রভাব খাটিয়ে একটা অ্যাম্বুলেন্স ম্যানেজ করে ছুটে গিয়েছিলেন শ্বশুর বাড়িতে৷ ভেবেছিলেন, গিয়ে হয়তো দেখবেন বিয়ের খবরটা ভুল৷ ভেবেছিলেন, নাতি বা নাতনি হবে জানলে শ্বশুর-শাশুড়িও এতদিন গোপন রাখা বিয়েটা মেনে নিয়ে ‘বৌমা' বলে জড়িয়ে ধরে বরণ করে নেবেন তাকে৷

মিথ্যে আশা মরীচিকা৷

কেউ তার সঙ্গে একটু ভালোভাবে কথা বলেনি৷ অকথ্য গালাগালি সইতে হয়েছে৷ পেটানোও হয়েছে তাকে৷

এই মা দিবসেই একাত্তর টেলিভিশনের এক টক শো-তে শুনলাম, স্বামীর মা-ও নাকি অশ্রাব্য গালাগাল দিয়েছেন, নিজে নারী হয়ে হাত তুলেছেন স্ত্রী-র অধিকার অক্ষুন্ন রাখতে মরিয়া এক নারীর গায়ে! মা হয়েও তিনি আরেক মায়ের প্রতি ন্যূনতম সহানুভূতি দেখাননি, পেটের সন্তানের কী হবে তা একদম না ভেবে নাকি পিটিয়েছেন তাকে!

নেপোলিয়ান বলেছিলেন, ‘‘তুমি আমাকে একটা ভালো মা দাও, আমি তোমাকে একটা ভালো জাতি উপহার দেবো৷’’ 

কিন্তু ঘরে ঘরে শুধু নিজের সন্তানের ন্যায্য-অন্যায্য, নৈতিক-অনৈতিক সব দাবি স্বার্থপর আর অন্ধের মতো মেনে নিতে অস্থির মা ছড়িয়ে পড়লে জাতি কখনো ‘ভালো’ হবে বলে মনে হয় না৷ বরং এমন মায়েদের কেউ কেউ শুধু নিজের সন্তানকে ভালোবেসে শিশু গৃহকর্মীকে নির্যাতন করবেন৷ কেউ আবার আদর-সোহাগ দিয়ে অসৎ, প্রতারক, নির্যাতক সন্তান গড়ে সমাজের দুর্ভোগ বাড়াতে থাকবেন৷

Ashish Chakraborty

আশীষ চক্রবর্ত্তী, ডয়চে ভেলে

পুরুষ শাসিত সমাজে শুধু নিজের সন্তানবান্ধব মায়ের চেয়ে সার্বিক অর্থে শিশুবান্ধব, নারীবান্ধব মানবিক মা অনেক বেশি দরকার৷

মা দিবসে স্বামী-শাশুড়ির নির্যাতনে সন্তান হারানো নারী সাংবাদিকের প্রতি অশেষ শ্রদ্ধা ও সহমর্মিতা আর তার প্রতারক স্বামী ও পুত্র-স্নেহে অন্ধ মায়ের জন্য করুণা!

বিশেষ অনুরোধ

করোনার হাত থেকে বাঁচতে সবাই অবশ্যই মাস্ক পরবেন, কিন্তু কেউ অন্যকে ধোঁকা  দিতে, কষ্ট দিতে মুখোশ পরে ঘুরে বেড়াবেন না, প্লিজ!

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন