ম্যার্কেল সরকারের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত? | বিশ্ব | DW | 14.09.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

ম্যার্কেল সরকারের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত?

জার্মানির সরকারি জোটের ভবিষ্যৎ আবার প্রশ্নের মুখে পড়েছে৷ অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা সংস্থার প্রধানকে ঘিরে শরিকদের মধ্যে সংঘাত দানা বাঁধছে৷ আগামী মঙ্গলবার ফয়সালা হবার কথা৷

জার্মানির অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা সংস্থার প্রধান হান্স গেয়র্গ মাসেন-এর ভবিষ্যৎকে কেন্দ্র করে সরকারি জোটের মধ্যে আবার চিড় ধরছে৷ কেমনিৎস শহরের সাম্প্রতিক ঘটনাবলিকে কেন্দ্র করে তাঁর মন্তব্য ও আচরণের কারণে তিনি চরম বিতর্কে জড়িয়ে পড়েছেন৷ সরকারি জোট ও বিরোধী পক্ষের মধ্যে তাঁর প্রতি আস্থা কমে চলেছে৷ বৃহস্পতিবার ৩ শরিক দলের প্রধান জরুরি বৈঠকে এ বিষয়ে ঐকমত্যে আসতে পারেননি৷

বাভেরিয়ার সিএসইউ দলের নেতা ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হর্স্ট সেহোফার মাসেনকে তাঁর পদে বহাল রাখতে বদ্ধপরিকর৷ তাঁর দাবি, মাসেন চরম দক্ষিণপন্থিদের বিরুদ্ধে কড়া মনোভাব দেখিয়ে এসেছেন৷

অন্যদিকে এসপিডি দল তাঁকে অবিলম্বে পদচ্যুত করতে চায়৷ ভাইস চ্যান্সেলর ওলাফ শলৎস বলেন, মাসেন বিশ্বাসযোগ্যতা হারিয়েছেন৷ এবার তাঁর পরিণতির সময় এসে গেছে৷ যে কোনো নিরাপত্তা সংস্থার প্রধানকে সম্পূর্ণ আস্থার পাত্র হতে হবে, বলেন শলৎস৷ চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেলও সম্ভবত মাসেনের প্রতি আস্থা হারিয়েছেন৷ আগামী মঙ্গলবার সরকারি জোটের নেতারা আবার জরুরি বৈঠকে বসবেন৷ সরকার গঠনের ৬ মাসের মধ্যেই মন্ত্রিসভার মধ্যে পারস্পরিক আস্থা কমে যাওয়ার ফলে জোটের অস্তিত্ব নিয়ে প্রশ্ন উঠছে৷

বৃহস্পতিবার মাসেন নতুন করে আরো বিতর্কে জড়িয়ে পড়েছেন৷ তাঁর তৈরি বাৎসরিক রিপোর্ট সরকারের হাতে পৌঁছানোর আগেই চরম দক্ষিণপন্থি এএফডি দলের এক সংসদ সদস্যের কাছে চলে এসেছিল বলে অভিযোগ উঠেছে৷ মাসেন অবশ্য এই অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করেছেন৷ তবে একের পর এক বিতর্ক ও তার পরিপ্রেক্ষিতে তাঁর আচরণের কারণে তিনি সমর্থন হারাচ্ছেন৷

পরিস্থিতি সামলাতে ও সরকারি জোটের অস্তিত্ব রক্ষার স্বার্থে চাপের মুখে মাসেন নিজে পদত্যাগ করতে পারেন, এমন সম্ভাবনার কথাও শোনা যাচ্ছে৷ তবে এখনো পর্যন্ত তিনি আত্মসমালোচনা বা পিছু হঠার কোনো লক্ষণ দেখাননি৷ মাসেন বিদায় নিলে সরকারের মধ্যে অনেকে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলবেন, এ বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই৷

মাসেন স্বেচ্ছায় বিদায় না নিলে একমাত্র স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীই তাঁকে বরখাস্ত করার ক্ষমতা রাখেন৷ এমনকি চ্যান্সেলরও সেই পদক্ষেপ নিতে পারেন না৷ সরকারি জোটে আগেই কোণঠাসা সেহোফারের পক্ষে সেই সিদ্ধান্ত নেওয়া কঠিন হবে৷ বিশেষ করে বাভেরিয়ায় রাজ্য নির্বাচনের ঠিক আগে এমন পদক্ষেপকে তাঁর দুর্বলতা হিসেবে তুলে ধরতে পারে বিরোধীরা৷ অন্যদিকে ম্যার্কেলের সঙ্গে আবার সংঘাত শুরু করলে এবার তিনি নিজেই পদ খোয়াতে পারেন৷ সে ক্ষেত্রে সিএসইউ দল জোট ত্যাগ করবে৷ আগাম নির্বাচনের সম্ভাবনা বেড়ে যাবে৷ অথচ জোটের ৩ দলের মধ্যে কেউই এখন নির্বাচন চায় না৷ তিন শরিক দলের এমন উভয় সংকট পরিস্থিতিকে জটিল করে তুলেছে৷ সবার মুখরক্ষা করে এক সমাধানসূত্রের খোঁজ চলছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন