ম্যার্কেল বিদায় নিচ্ছেন, কিন্তু হাল ধরবেন কে? | বিশ্ব | DW | 30.10.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

জার্মানি

ম্যার্কেল বিদায় নিচ্ছেন, কিন্তু হাল ধরবেন কে?

আগামী ডিসেম্বর মাসে দলীয় সম্মেলনে আঙ্গেলা ম্যার্কেল প্রধান হিসেবে সরে দাঁড়াচ্ছেন৷ তাঁর উত্তরসুরির খোঁজ চলছে৷ এদিকে এই সিদ্ধান্তের ফলে জার্মানির বাকি দলগুলি চাপের মুখে পড়েছে৷

প্রায় ১৮ বছর পর জার্মানির সিডিইউ দলের প্রধান হিসেবে বিদায় নিচ্ছেন আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷ তবে চ্যান্সেলর হিসেবে কার্যকাল শেষ করতে চান তিনি৷ যদিও নির্ধারিত ২০২১ সাল পর্যন্ত মহাজোট সরকার টিকে থাকবে,  অনেকেই এমন সম্ভাবনা দেখছেন না৷ কারণ, দুর্বল শরিক হিসেবে এসপিডি অদূর ভবিষ্যতে মহাজোট ত্যাগ করতে পারে, এমন ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে৷ সে ক্ষেত্রে সংখ্যালঘু সরকার হিসেবে কাজ চালিয়ে যেতে না পারলে আগাম নির্বাচন ডাকতে হবে৷

আপাতত সিডিইউ দলের আগামী নেতা কে হবেন, তা নিয়ে জল্পনাকল্পনা চলছে৷ দলের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ও ম্যার্কেলের ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত আনেগ্রেট ক্রাম্প কারেনবাউয়ার এবং স্বাস্থ্যমন্ত্রী ইয়েন্স স্পান প্রার্থী হতে চান৷ সক্রিয় রাজনীতি থেকে সরে দাঁড়ানো প্রাক্তন নেতা ফ্রিডরিশ ম্যার্ৎস-ও আগ্রহ দেখাচ্ছেন৷ নর্থরাইন ওয়েস্টফেলিয়া রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী আরমিন লাশেটের নামও শোনা যাচ্ছে৷ তবে শেষ পর্যন্ত কে দলের সংখ্যাগরিষ্ঠ অংশের সমর্থন পাবেন, তা এখনো স্পষ্ট নয়৷ রীতি অনুযায়ী সেই ব্যক্তি আগামী নির্বাচনে চ্যান্সেলর পদপ্রার্থী হতে পারেন৷ ফলে বিষয়টি বাড়তি গুরুত্ব পাচ্ছে৷ অবশ্য ম্যার্কেল নিজের সিদ্ধান্ত জানাতে গিয়ে সোমবার বলেন, এই দুই পদে এক ব্যক্তি না থাকার ঝুঁকি সম্পর্কে তিনি সচেতন রয়েছেন৷ কারণ, এই দুই ব্যক্তির মধ্যে মতের অমিল হলে সরকার ও দল, দুই পক্ষই দুর্বল হয়ে পড়তে পারে৷ তিনি নিজের উত্তরসুরি বাছাইয়ের এই প্রক্রিয়ায় কোনোরকম হস্তক্ষেপ করবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন৷

ম্যার্কেল আচমকা দলের শীর্ষ নেত্রী হিসেবে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা করায় বাকি দলগুলি বেকায়দায় পড়েছে৷ বিশেষ করে সরকারের শরিক বাভেরিয়ার সিএসইউ দলের নেতা ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হর্স্ট সেহোফার বাড়তি চাপের মুখে পড়ছেন৷ সরকারের ভাবমূর্তির ক্ষতির জন্য সাম্প্রতিক কালে তাঁর ‘দায়িত্বজ্ঞানহীন' আচরণকে অনেকেই দায়ী করছেন৷ দুই সপ্তাহ আগে রাজ্য নির্বাচনে দলের ভরাডুবির দায় মেনে নিয়ে তাঁকেও শেষ পর্যন্ত পদত্যাগ করতে হবে বলে অনুমান করা হচ্ছে৷ এসপিডি দলের নেতা আন্দ্রেয়া নালেসও একের পর এক নির্বাচনে বিপর্যয়ের ফলে চাপের মুখে রয়েছেন৷ বিরোধী সবুজ দল ম্যার্কেল-এর অর্জন ও তাঁর সিদ্ধান্তের প্রতি শ্রদ্ধা প্রকাশ করেছে৷ তবে উদারপন্থি এফডিপি দল, বামপন্থি দল ‘ডি লিংকে' ও উগ্র দক্ষিণপন্থি এএফডি চ্যান্সেলর হিসেবেও ম্যার্কেলের পদত্যাগের ডাক দিয়েছে৷

এমন পরিস্থিতিতে জার্মানি আন্তর্জাতিক আঙিনায় তার গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা কতটা পালন করতে পারবে, তা নিয়েও প্রশ্ন উঠছে৷ বিশেষ করে ব্রেক্সিট ও ইটালিকে ঘিরে বর্তমান সংকটের মুখে ইউরোপে জার্মানির নেতৃত্ব যখন বাড়তি গুরুত্ব পাচ্ছে, এমন এক সময়ে সে দেশের অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক সংকট নিয়ে অনেকেই দুশ্চিন্তায় রয়েছেন৷ ‘লেম ডাক' সরকারপ্রধান হিসেবে ম্যার্কেল দুর্বল হয়ে পড়লে কী হবে, সেই প্রশ্নের জবাবে ম্যার্কেল নিজে বলেছেন, আন্তর্জাতিক আঙিনায় এমন অনেক দৃষ্টান্ত রয়েছে৷ তাঁর মতে, এমন নেতারাও ভালোভাবে দেশ শাসন করে চলেছেন৷

এসবি/এসিবি (ডিপিএ, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন