ম্যার্কেলকে গুরুত্ব দিন, ফেসবুক-টুইটারে নজর দিন | বিষয় | DW | 12.01.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সংবাদভাষ্য

ম্যার্কেলকে গুরুত্ব দিন, ফেসবুক-টুইটারে নজর দিন

ডনাল্ড ট্রাম্পকে পছন্দ না করলেও তার টুইটার অ্যাকাউন্ট বন্ধের বিষয়টি সমর্থন করছেন না জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল৷ বিশ্বের আরও কয়েকজন নেতাও ম্যার্কেলের মতো প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন৷

ম্যার্কেলমনে করছেন, অ্যাকাউন্ট স্থগিতের বিষয়টি ‘সমস্যাজনক'৷ তিনি মনে করেন, ‘মত প্রকাশের মৌলিক অধিকারের' বিষয়টি আইনের শাসন ও সরকারের নির্ধারণ করা উচিত, ‘সামাজিক মাধ্যমের ব্যবস্থাপকদের সিদ্ধান্তঅনুযায়ী নয়'৷

ইউরোপে প্রযুক্তিবিষয়ক কোম্পানিগুলোকে নিয়ন্ত্রণের মধ্যে আনার জন্য কাজ করছেন ইইউ কমিশনার থিয়েরি ব্রত্তোঁ৷ ‘পলিটিকো'তে এক প্রবন্ধে তিনি লিখেছেন, পরীক্ষা-নিরীক্ষা ছাড়াই একটি কোম্পানির প্রধান নির্বাহী ‘পিওটিইউএস' (মার্কিন প্রেসিডেন্টের অফিসিয়াল)-এর লাউডস্পিকারের প্লাগ টেনে খুলে ফেলা ধাঁধায় পড়ার মতো একটি বিষয়৷

ফ্রান্সের অর্থমন্ত্রী, ব্রিটেনের স্বাস্থ্যমন্ত্রীও প্রযুক্তি কোম্পানিগুলোর ক্রমবর্ধমান প্রভাব নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন৷

জার্মানির এসপিডি দলের সাংসদ ইয়েন্স সিমারমান ডিডাব্লিউকে জানিয়েছেন, ‘‘ট্রাম্পের অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দেয়া অবশ্যই সমস্যার৷ কারণ, আমাদের জানতে হবে, কেন এই সিদ্ধান্ত নেয়া হলো, কোন আইন অনুসারে নেয়া হলো, এর ভবিষ্যৎ কী?'' তিনি বলেন, ‘‘একটি কোম্পানির সিইও একজন রাষ্ট্রনেতাকে কোটি কোটি মানুষের কাছে পৌঁছাতে দিচ্ছেন না৷ ট্রাম্প জার্মানিতে খুব একটা জনপ্রিয় নন৷ কিন্তু তিনি একটি গণতান্ত্রিক দেশের প্রধান৷ আজ এটা ট্রাম্পের সঙ্গে হয়েছে৷ কাল অন্য দেশের নির্বাচিত রাষ্ট্রপ্রধানের সঙ্গে হতে পারে৷ তাই এ বিষয়ে আইন করা দরকার৷''

এ ব্যাপারে জার্মানি ইতিমধ্যে প্রথম পদক্ষেপটি নিয়েছে৷ ২০১৮ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ‘নেটওয়ার্ক এনফোর্সমেন্ট অ্যাক্ট' চালু আছে৷ এই আইনের কারণে সামাজিক মাধ্যমগুলো ভুয়া খবরের বিরুদ্ধে লড়তে বাধ্য৷

ইইউ কমিশন এই আইনকে স্বাগত জানিয়েছে৷ ফেসবুকসহ অন্যান্য সামাজিক মাধ্যমে পোস্টের উপর নজর রাখা এবং প্রয়োজন হলে মুছে দেয়ার জন্য জার্মানিতে কয়েকশ ‘কন্টেন্ট মডারেটর' নিয়োগ দেয়া হয়েছে৷

DW Bengali Mohammad Zahidul Haque

মোহাম্মদ জাহিদুল হক, ডয়চে ভেলে

এদিকে, এসব আলোচনার মধ্যেই খবর এসেছে, উগান্ডায় বৃহস্পতিবার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে দেশটির তথ্য মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে সম্পর্কিত একটি নেটওয়ার্ক ফেসবুক বন্ধ করে দিয়েছে৷ ফেসবুকের অভিযোগ, ওই নেটওয়ার্ক ভুয়া ও নকল অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করে বিভিন্ন পাতা চালাচ্ছিল, অন্যের পোস্টে মন্তব্য করছিল এবং কোনো পোস্টকে জনপ্রিয় করতে বিভিন্ন গ্রুপে পুনরায় শেয়ার করছিল৷

প্রযুক্তি কোম্পানিগুলোর এমন প্রভাব মোকাবিলায় এখনই বৈশ্বিক একটি নীতিমালা দরকার৷ জার্মানিসহ কয়েকটি দেশে যে আইনগুলো রয়েছে সেগুলো কেমন চলছে, তা বিবেচনায় নিয়ে সবার জন্য প্রযোজ্য একটি নীতিমালা করার সময় এসে গেছে৷ শুধু টাকা কামিয়ে আর পার পাওয়া যাবে না, এমন এক বার্তা সামাজিক মাধ্যমের প্ল্যাটফর্মগুলোকে দিতে হবে৷ প্রয়োজনে জাতিসংঘে এ নিয়ে আলোচনা হতে পারে৷