মৌমাছি কাজে লাগাতে এক ঢিলে দুই পাখি | বিশ্ব | DW | 23.07.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

মৌমাছি কাজে লাগাতে এক ঢিলে দুই পাখি

মৌমাছি পালন শুধু মধুর জন্য গুরুত্বপূর্ণ নয়, গাছপালা পরাগিত করার কাজেও এই প্রাণীদের প্রধান ভূমিকা রয়েছে৷ এই দুই কাজের মধ্যে মেলবন্ধন ঘটাতে জার্মানিতে এক অভিনব উদ্যোগ শুরু হয়েছে৷

মৌমাছির গুন গুন শব্দের রকমফের আধুনিক মধুর ব্যবসার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ৷ মৌমাছি বিশেষজ্ঞ হিসেবে মিশাল রোইসমান মনে করেন, ‘‘শব্দ আসলে খুবই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়৷ তার মাধ্যমে মৌচাকের মধ্যে কার্যকলাপ বোঝা যায়, মক্ষীরানির অবস্থা বোঝা যায়, রানি নতুন না পুরানো – তাও টের পাওয়া যায়৷''

মৌমাছি পালকের এমন হস্তক্ষেপের ফলে মৌমাছিরা মানসিক চাপের মুখে পড়ে৷ সে কারণে কয়েক দিনের জন্য তাদের বিরক্ত করা হয় না৷ কিন্তু তার পরিণতি মারাত্মক হতে পারে৷ যেমন রানির মৃত্যু হলে বাকি সব মৌমাছিও মারা যেতে পারে৷ মিশাল রোইসমান বলেন, ‘‘এর সমাধান পাওয়া গেছে৷ আমাদের এই পণ্যের মধ্যে একাধিক সেন্সর রয়েছে৷ মৌচাকের মূল অংশে সেটি বসাতে হয়৷ তখন ২৪ ঘণ্টা ধরে মৌচাকের উপর নজর রাখা যায়৷ সেই তথ্য ক্লাউড সার্ভারে আপলোড করে আমাদের অ্যালগোরিদমের মাধ্যমে মৌচাকে কী ঘটছে, তা বিশ্লেষণ করা হয়৷''

ভিডিও দেখুন 03:56

মৌমাছির স্বাস্থ্যের খবর জানা যায় যেভাবে

যন্ত্রের সেন্সর লাগাতার মৌচাক পর্যবেক্ষণ করে চলে৷ তাপমাত্রা, আর্দ্রতা, মৌমাছির গুন গুন শব্দের তরঙ্গদৈর্ঘ্য ইত্যাদি পরিমাপ করা হয়৷ এই সব সূচকের মধ্যে কোনো তারতম্য ধরা পড়লে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা তা সঙ্গে সঙ্গে শনাক্ত করে৷ যেমন মৌমাছিদের কোনো রোগ হলে তা ধরা পড়ে৷ অনলাইন পদ্ধতিতে মৌমাছি পালককে বার্তা পাঠানো হয়, যাতে তিনি দ্রুত উপযুক্ত পদক্ষেপ নিতে পারেন৷ এছাড়াও নতুন একটি উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে৷ বিশেয়ারিং ওয়েবসাইটের সহ প্রতিষ্ঠাতা নিল্স গ্যার্বার বলেন, ‘‘প্রথম দিকে মানুষকে একটু বোঝাতে হয়৷ বিশেষ করে বাইরে থেকে কেউ এসে বলে যে আমি তোমার মৌমাছিগুলি চাই, তখন শুরুতে মনে সংশয় হয় বৈকি৷''

নিল্স গ্যার্বার মৌমাছিদের ১০০টি বসতি জার্মানির উত্তরে নিয়ে এসেছেন৷ এক মৌমাছি পালনকারী সেগুলি তাঁকে দিয়েছিলেন৷ মৌমাছিগুলিকে আপেল গাছ পরাগিত করার কাজে লাগানো হচ্ছে৷ গ্যার্বার গোটা জার্মানিতে চাষিদের কাছে মৌমাছি পাঠানোর ব্যবস্থা করেন৷ মৌমাছিদের বিলুপ্তির প্রবণতা রুখতে তিনি এভাবে অবদান রাখছেন৷ চাষিরা সরাসরি তাঁর ওয়েবসাইটে মৌমাছির চাহিদার কথা জানাতে পারেন৷

এক অ্যালগোরিদম তখন নথিভুক্ত মৌমাছি পালনকারীদের তথ্য বিশ্লেষণ করে সেই সব বসতির সন্ধান দেয়, যেগুলি কাজে লাগানো সম্ভব৷ গ্রিসেল্ডিস ডালমান নামের এক চাষি তাঁর ফলের গাছের জন্য একশো মৌমাছি উপনিবেশের বরাত দিয়েছেন৷ ভাড়া করা মৌমাছি কাজে লাগানোর জন্য অবশ্য উপযুক্ত প্রস্তুতির প্রয়োজন৷ ডালমান বলেন, ‘‘উদ্ভিদের সুরক্ষা অবশ্যই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়৷ খোলা মনে বিষয়টি বিবেচনা করতে হয়৷ এমন কোনো কীটনাশক প্রয়োগ করা উচিত নয়, যা মৌমাছিদের জন্য বিপজ্জনক৷ নিজেদের মধ্যে এ বিষয়ে বোঝাপড়া থাকতে হবে৷ দিনের বেলায় মৌমাছিদের ঝাঁককে বিরক্ত না করতে কিছু কাজ সন্ধ্যা পর্যন্ত পিছিয়ে দেওয়া যেতে পারে৷''

জার্মানির উত্তরে বি-হিরো  কোম্পানির প্রযুক্তির প্রয়োগ এখনো শুরু হয়নি৷ প্রক্রিয়াটি এখনো পরীক্ষামূলক স্তরে রয়েছে৷ তার আওতায় ভাড়া করা মৌমাছির ক্ষেত্রে সাফল্যের প্রয়োজন৷ এই পরীক্ষার ব্যয় হিসেবে চাষিকে প্রায় ৬,০০০ ইউরো দিতে হচ্ছে৷ তার মধ্যে ১,৫০০ ইউরো দালাল সংস্থার কাছে চলে যাচ্ছে৷ গ্রিসেল্ডিস ডালমান বলেন, ‘‘আমাদের ভাগ্য ভালো ছিল, যে আমাদের একটি ভবন বাকিগুলির থেকে একটু দূরে অবস্থিত৷ তখন আমরা এই সুযোগ সদ্ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত নিলাম৷ পরে দেখলাম, খুব ভালো কাজ হয়েছে৷''

দুই সপ্তাহের কাজের পর মৌমাছিগুলি ফিরিয়ে আনা হয়েছে৷ নিল্স গ্যার্বার বলেন, ‘‘ভাগ্য ভালো, যে এখনো পর্যন্ত আমরা সব মৌমাছি অক্ষত অবস্থায় আনতে ও ফিরিয়ে নিয়ে যেতে পেরেছি৷''

মৌমাছি ভাড়া দেবার এমন ব্যবসার সম্ভাবনা উজ্জ্বল হয়ে উঠছে৷ জার্মানির শখের মৌমাছি পালনকারীদের সাহায্যে গাছপালা পরাগিত করা সম্ভব হচ্ছে৷

মিলিটাডেস শ্মিট/এসবি

 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

বিজ্ঞাপন