মোমেনের ভারত সফর বাতিল | বিশ্ব | DW | 12.12.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

মোমেনের ভারত সফর বাতিল

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন তাঁর প্রস্তাবিত ভারত সফর বাতিল করলেন। তাঁর দিল্লিতে পৌঁছনোর কথা ছিল বৃহস্পতিবার বিকেলে। দুপুরের পর ভারত সফর বাতিলের কথা ঘোষণা করেন তিনি।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দিল্লিতে পৌঁছনোর কথা ছিল বৃহস্পতিবার দুপুরে। তার কয়েক ঘন্টা আগে সেই সফর বাতিল করার কথা জানিয়ে এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, ''আমায় বুদ্ধিজীবী দিবস ও বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে হবে। আমার প্রতিমন্ত্রী দেশের বাইরে মাদ্রিদে আছেন। পররাষ্ট্র সচিব হেগ-এ। দেশে চাহিদা বাড়তে থাকায় আমি ভারত সফর বাতিল করেছি। জানুয়ারিতে দিল্লি যাব। আর যে অনুষ্ঠানে আমার যাওয়ার কথা ছিল, সেখানে আমি ডিজি-কে পাঠাচ্ছি।''

সফর বাতিল করার পর নানা জল্পনা শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে। প্রশ্ন উঠছে, নাগরিকত্ব বিলপাস এবং তার জেরে আসাম সহ উত্তর পূর্ব ভারতে অশান্ত অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতেই কি সফর বাতিল হল? ভারতের বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র রবিশ কুমার জানিয়েছেন, ''এই সফর বাতিল নিয়ে কোনও জল্পনা করা ঠিক হবে না। বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ভারতকে জানিয়েছেন, বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে তাঁকে থাকতে হবে। তাই তিনি সফর বাতিল করেছেন। এর সঙ্গে নাগরিকত্ব বিলের প্রসঙ্গটি যুক্ত করা ঠিক হবে না। দুদেশের মধ্যে সম্পর্ক এখন খুবই ঘনিষ্ঠ। দুদেশের নেতাই বর্তমান সময়কে দুদেশের সম্পর্কের ক্ষেত্রে 'সোনার সময়' বলে উল্লেখ করেছেন। আমার মনে হয় না, এই সফর বাতিলের কোনও প্রতিক্রিয়া হবে।''

ভারতে নাগরিকত্ব বিল পাস হওয়ার পর আব্দুল মোমেন বলেছিলেন, ''বাংলাদেশে সংখ্যালঘুরওপর অত্যাচারের অভিযোগ মিথ্যা। এই তথ্য যাঁরাই দিয়ে থাকুন না কেন, তাঁরা ঠিক তথ্য দেননি। আমাদের দেশে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত ভিন্ন ধর্মের লোকেরা নিয়েছেন। আমরা কখনও ধর্ম দিয়ে মানুষের বিচার করি না।'' সন্দেহ নেই, তিনি যথেষ্ট কড়া বিবৃতি দিয়েছিলেন। এটাও বোঝা গিয়েছে রাজ্যসভায় অমিত শাহ যেভাবে বাংলাদেশ সহ প্রতিবেশী তিনটি দেশে সংখ্যালঘুদের ওপর অত্যাচারের কথা বলেছেন, তাতে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ক্ষুব্ধ। এরপরেই তিনি সফর বাতিলের কথা ঘোষণা করায় ভারতের রাজনৈতিক মহলে জল্পনা শুরু হয়।

আব্দুল মোমেনের তিন দিনের ভারত সফরে বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠান ছিল। শনিবার ভারতীয় বিদেশমন্ত্রী জয়শঙ্করের সঙ্গে তাঁর বৈঠক হওয়ার কথা ছিল। শুক্রবার দিল্লি ডায়লগ ও ইন্ডিয়ান ওশান ডায়লগে তাঁর অংশ নেওয়ার কথা ছিল।

জিএইচ/এসজি(এএনআই, এনডিটিভি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন