মোদীর সঙ্গে আওয়ামী লীগ প্রতিনিধি দলের শীর্ষ বৈঠক | বিশ্ব | DW | 28.04.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভারত-বাংলাদেশ

মোদীর সঙ্গে আওয়ামী লীগ প্রতিনিধি দলের শীর্ষ বৈঠক

বাংলাদেশের সড়ক পরিবহণমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের ২০ সদস্যের একটি দল দিল্লিতে নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে মিলিত হয়৷ দু'দেশের আসন্ন সাধারণ নির্বাচনের প্রেক্ষিতে এই বৈঠককে  তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছে কূটনৈতিক মহল৷

বিজেপির আমন্ত্রণে বাংলাদেশের ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ২০ জন সদস্যের এক উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন প্রতিনিধি দল দিল্লিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদীর সঙ্গে তাঁর বাসভবনে প্রায় এক ঘণ্টা রুদ্ধদ্বার বৈঠকে রাজনৈতিক মত বিনিময় করেন৷ প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও দেশের সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের৷ তিনি মিলিত হন বিজেপিসহ অন্যান্য রাজনৈতিক নেতৃত্বের সঙ্গেও৷ সরকারের পক্ষ থেকে অবশ্য এই বৈঠকের আলোচ্য বিষয় নিয়ে বিস্তারিত কিছু বলা হয়নি৷ তবে দিল্লির কূটনৈতিক মহল এই বৈঠককে ভারত ও বাংলাদেশের আসন্ন নির্বাচনের প্রেক্ষিতে খুবই তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছেন৷ আলোচনায় রোহিঙ্গা শরণার্থী, ঝুলে থাকা তিস্তা ইস্যু, আসামে অনুপ্রবেশকারীদের চিহ্নিতকরণ সংক্রান্ত নাগরিকত্ব তালিকা সংশোধন করতে জাতীয় রেজিস্টার অফ সিটিজন্স-এর নতুন আদমসুমারি, নিরাপত্তা পরিস্থিতি এবং দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতার ভিত সর্বস্তরে মজবুত করা ইত্যাদি বিষয়গুলি উঠে এসেছে বলে জানা যায়৷

অডিও শুনুন 02:20
এখন লাইভ
02:20 মিনিট

‘হাসিনার পুনর্নিবাচনের পথ যাতে মসৃণ হয়, সেবিষয়ে ভারতের সজাগ থাকা উচিত’

রোহিঙ্গা শরণার্থী ইস্যুতে দিল্লির অবস্থান হলো, প্রতিবেশী দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক না গলানো৷ এই প্রসঙ্গে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক ইমন কল্যাণ লাহিড়ি প্রধানমন্ত্রী মোদীর সঙ্গে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বের উচ্চস্তরের বৈঠক নিয়ে ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘এই বৈঠকের দু'টো প্রধান কারণ আছে৷ এর মধ্যে প্রথম হলো রোহিঙ্গা শরণার্থী সমস্য৷ চীন ও পাকিস্তান হয়ত চাইছে – প্রত্যক্ষ অথবা পরোক্ষভাবে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ স্থিতাবস্থা এবং ঢাকা-দিল্লির স্থিতিশীল সম্পর্কের স্থিতাবস্থায় ভাঙন ধরাতে৷ অভ্যন্তরীণ স্থিতাবস্থায় জটিলতা সৃষ্টি করে হাসিনা সরকারকে গদিচ্যুত করা গেলে ভারতবিরোধীতাও জোরদার হবে৷ জামায়াতের প্রভাব বাড়বে এবং বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের সম্পর্কের অবনতি হবে৷ তাই বাংলাদেশের সাধারণ নির্বাচন যাতে সুষ্ঠুভাবে হয় এবং হাসিনা সরকারের পুনর্নিবাচনের পথ যাতে মসৃণ হয়, সেবিষয়ে ভারতের সজাগ থাকা উচিত৷ তবে গণতন্ত্রের শেষ কথা বলবেন বাংলাদেশের জনগণই৷''

তিনি বলেন, ‘‘দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে দেশবিরোধী কাজের অপরাধে হাসিনা সরকার যাদের ফাঁসি দিয়েছে, গ্রেপ্তার করেছে বা যা নিয়ে দেশটিতে রাজনৈতিক সমস্যা তৈরি হয়েছে বা হতে পারে, সেই ইস্যুটি৷ কারণ বাংলাদেশে ইসলামি ভাবাবেগের পরিকাঠামো আছে, যেটা হাসিনাবিরোধিতায় কাজে লাগানোর আশংকা আছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

তবে পাশাপাশি এ কথাও ঠিক যে হাসিনার শাসনে ভারতের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতায় যে লক্ষণীয় উন্নতি হয়েছে, সেটা ধরে রাখতে হবে৷ উল্লেখ্য, বিরোধী দল বিএনপির নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে দুর্নীতির অপরাধে জেলবন্দি করায় তা রাজনৈতিক উত্তেজনায় ইন্ধন জুগিয়েছে৷ গত নির্বাচনে বিএনপি যোগ দেয়নি৷ এ বছরের নির্বাচনে যোগ দিতে পারবে কিনা তাও অনিশ্চিত৷ হাসিনা সরকারের তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, নির্বাচন বানচাল করতে এখনও বিএনপি চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে৷ বিরোধী দলের দাবি, বিনাশর্তে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে৷ অথচ বাংলাদেশের সংবিধান মোতাবেক কোনো ব্যক্তি যদি আদালতে দোষী সাব্যস্ত হন, তাহলে সাধারণ নির্বাচনে তিনি দাঁড়াতে পারবেন না৷

তিস্তা নদীর জলবণ্টন ইস্যুর জট খুলতে আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি দলের প্রধান ওবায়দুল কাদের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করতে কলকাতা যাচ্ছেন৷ তিনি অবশ্য বলেছেন, দিল্লি সফরের সঙ্গে এর কোনো যোগ নেই৷ বাংলাদেশে নির্বাচনের মুখে তিস্তা ইস্যু যে হাসিনা সরকারের কাছে এক বড় বিষয়, তা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই৷ এই প্রসঙ্গে অধ্যাপক লাহিড়ি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘তিস্তা নদীর জলবণ্টন দু'দেশের কাছেই এক জাতীয় ইস্যু৷ এর ইতিবাচক নিষ্পত্তি যাতে হয়, মমতা বন্দোপাধ্যায়ের তা দেখা উচিত৷ বাংলাদেশের মানুষ দেখেছেন, তিস্তা নিয়ে মোদী সরকারের সদিচ্ছার অভাব নেই৷ শুধুমাত্র আঞ্চলিক স্বার্থে সেটা আটকে আছে৷ দু'দেশের বৃহত্তর স্বার্থে এর দ্রুত নিষ্পত্তি হওয়া দরকার৷ আসামে অবৈধ অনুপ্রবেশকারী চিহ্নিতকরণ নিয়ে যেটা চলছে, মনে হয় না সেটা বড় রকম বাঙালি খেদাও অভিযান হয়ে উঠবে৷ নাগরিকত্ব সংশোধন তালিকা নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকার এমন কোনো বড় সিদ্ধান্ত নেবে না, যেটা দু'দেশের সম্পর্কে আঁচ পড়তে পারে৷ মোটকথা দিল্লি ও ঢাকাকে একে-অপরের হাত ধরেই চলতে হবে৷''

বাংলাদেশের এই প্রতিনিধি দলে ছিলেন অন্যান্যদের মধ্যে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য পীযুষ ভট্টাচার্য্য, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গির কবির নানক, আবদুর রহমান, মাহবুবুল আলম হানিফ প্রমুখ৷ অন্যদিকে ভারতের পক্ষে বৈঠকে ছিলেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল, পররাষ্ট্র সচিব বিজয় গোখলে প্রমুখ৷

২০১৫ সালের এই ছবিঘরটি দেখুন...

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়