মোদী সরকার ও আসন্ন নির্বাচন সম্পর্কে সংখ্যালঘুদের ভাবনা | বিশ্ব | DW | 26.12.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ভারত

মোদী সরকার ও আসন্ন নির্বাচন সম্পর্কে সংখ্যালঘুদের ভাবনা

পাঁচ রাজ্যে সদ্য সমাপ্ত নির্বাচনে তিনটিতে বিজেপি হেরেছে৷ এখন সংখ্যালঘু ভোটারদের তোষামোদের পরিকল্পনা করছে শাসক দল৷ তা আসন্ন সংসদ নির্বাচন নিয়ে মুসলিম, খ্রীষ্টান, শিখ, জৈন ও পারসিদের মতো সংখ্যালঘুরা কী ভাবছেন?

ভারতের কেন্দ্রীয় সংখ্যালঘু বিষয়ক মন্ত্রী মুক্তার আব্বাস নাকভি সম্প্রতি বলেছেন, গত নির্বাচনে ১৮ থেকে ২০ শতাংশ সংখ্যালঘু মানুষ ভারতীয় জনতা পার্টি, অর্থাৎ বিজেপিকে ভোট দিয়েছিলেন৷ ২০১৯-এ মুসলিম‌সহ অন্যান্য সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ মানুষ নরেন্দ্র মোদীর পক্ষে ভোট দেবেন৷ এ তাঁর অভিজ্ঞতালব্ধ আশা, নাকি অলীক কল্পনা তা নিশ্চিত করে বলতে হলে অন্তত আরো কয়েক মাস অপেক্ষা করতেই হবে৷

তবে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের কয়েকজন মানুষের কাছে ডয়চে ভেলে জানতে চেয়েছিল,কেন্দ্রীয় সরকার ও আসন্ন সাধারণ নির্বাচন নিয়ে তাঁরা কী ভাবছেন৷


১২৫ কোটি জনসংখ্যার দেশ ভারতে প্রায় ২৫ কোটি সংখ্যালঘু৷ তাঁদের  শিক্ষা, স্বাস্থ্য, আর্থ-‌সামাজিক অগ্রগতি এবং সার্বিক উন্নয়ন নিয়ে চিন্তিত বৌদ্ধ ধর্মগুরু অরুণজ্যোতি ভিক্ষু৷

তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন,‘‌‘‌সব দেশেই সংখ্যালঘু ও সংখ্যাগুরু সম্প্রদায় থাকে৷ সব ধর্মেই শান্তি ও অহিংসার কথা বলা হয়েছে৷ সরকারের উচিত সংখ্যালঘুদের নিরাপত্তায় বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া৷ ভারতে দলিত ও মুসলিমদের ওপর বারংবার আক্রমণ হয়েছে৷ সরকার তাঁদের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হয়েছে৷ এছাড়াও নোটবন্দি, জিএসটি ইত্যাদি সরকারি সিদ্ধান্তে আর পাঁচজনের মতো সংখ্যালঘুরাও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে৷'‌'‌ তিনি আরো বলেছেন, ‘‌‘‌পাঁচ রাজ্যের নির্বাচনে সংখ্যালঘু মানুষের মনোভাবের বহিঃপ্রকাশ হয়েছে৷ বর্তমান সরকারের ওপর মানুষ যে ক্ষুব্ধ, তা অত্যন্ত স্পষ্ট৷'‌'‌

অডিও শুনুন 03:49

‘বর্তমান সরকারের ওপর মানুষ যে ক্ষুব্ধ, তা অত্যন্ত স্পষ্ট’

দিল্লির কনটপ্লেস-‌সংলগ্ন গুরুদোয়ারার সামনে কথা হচ্ছিল ‌ষাটে‌র চৌকাঠ পার হওয়া মনপ্রীত সিংয়ের সঙ্গে৷ দেশ, রাজনীতি নিয়ে কথা উঠতেই বললেন, ‘‌‘‌ধর্ম নিয়ে রাজনীতি ভারতের ইতিহাসের অঙ্গ হয়ে উঠেছে৷ ‘সংখ্যালঘু' শব্দটা থাকা উচিত নয়৷ সবার দেশ৷ সবাই সমান৷ কারো বাড়তি সুবিধা, কাউকে দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিক করার লক্ষ্যে ভোটবাক্স ভরে ওঠে৷ তাছাড়া সবটাই রাজনীতিকদের ফাঁকা আওয়াজ৷ আম জনতা বোকার মতো সংখ্যালঘু-‌সংখ্যাগুরু নিয়ে মাথা ঘামায়৷ নেতাদের কথায় মেতে উঠে হানাহানি করে৷ আবার ভোটও দেয়৷'‌'‌

একই প্রশ্ন করা হয়েছিল ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরের কাছে বিজয় এনক্লেভের বাসিন্দা জন এমুয়েলকে৷ এমুয়েলের স্পষ্ট জবাব, ‘‌‘এবার বিজেপি সরকারের পতন অনিবার্য৷'‌'‌ তাঁর ব্যাখ্যা, ‘‌‘‌ধর্ম ও রাজনীতিকে মিশিয়ে সরবত করে খাওয়ানো হচ্ছে সাধারণ মানুষকে৷ দেশ যে সবার সেই আত্মবিশ্বাসের ভিত নাড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা হচ্ছে সব সময়৷ গো-‌রক্ষকদের তাণ্ডব কারো অজানা নয়৷ বিজেপি-‌শাসিত রাজ্যগুলিতে কত জনকে পিটিয়ে মেরে ফেলা হয়েছে, সবাই জানেন৷ কিন্তু, কেউ জানেন না হত্যাকারীদের শাস্তি হয়েছে কিনা৷ হয়নি৷ দলিত ও সংখ্যালঘুরা আতঙ্কে দিনযাপন করছেন৷ তাঁরা নিজেরাই আতঙ্কের কারণকে দূর করবেন৷'‌'‌

অডিও শুনুন 03:02

"কয়েকবছর ধরে দেশজুড়ে অসহিষ্ণুতা, নির্বাচনে এর প্রভাব পড়তে বাধ্য'

পশ্চিমবঙ্গের সমূদ্র উপকূলবর্তী জেলা ‌পূর্ব মেদিনীপুরের একটি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মামুদ হোসেন জেলা পরিষদের প্রাক্তন সহকারী সভাধিপতি৷ শিক্ষকতার পাশাপাশি রাজনীতি করেন৷ তাঁর কথায়, ‘‌‘‌ভারত সহনশীল দেশ৷ সংখ্যালঘুদের জন্য আলাদা করে কিছুর প্রয়োজন নেই৷ তবে অন্যদের মতোই সামাজিক সুরক্ষা ও অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির বন্দোবস্ত সবসময় কাম্য৷ আমরাও দেশের জন্য গর্ব অনুভব করি৷ তবে গত কয়েকবছর ধরে দেশজুড়ে অসহিষ্ণুতার আবহাওয়া দেখা যাচ্ছে৷ আগামী সাধারণ নির্বাচনে এর প্রভাব পড়তে বাধ্য৷ সংখ্যালঘু মানুষ সহিষ্ণুতার পক্ষেই রায় দেবে৷'‌'

তবে বসে নেই ভারতীয় জনা পার্টি৷ ‘‌সংখ্যালঘু‌বিরোধী' তকমা ঝেড়ে ফেলার পরিকল্পনা করছে তারা৷ সংখ্যালঘুদের কল্যাণে বেশকিছু প্রকল্প ঘোষণা হতে পারে নির্বাচনের প্রাক্কালে৷ তার মধ্যে অন্যতম হতে পারে প্রতিভাবান ছাত্র-ছাত্রীদের বৃত্তি প্রদান৷


ক্যাথলিক বিশপস কনফারেন্স অফ ইন্ডিয়ার সেক্রেটারি জেনারেল বিশপ থিওডোরে ডয়চে ভেলেকে বলেছেন, ‘‌‘‌খ্রিষ্টান সম্প্রদায়ের মানুষ হিসেবে আমরা সবসময় দেশের মঙ্গল কামনা করে এসেছি৷ এখন আমরা ২০১৯-‌এর দিকে তাকিয়ে আছি৷ আমরা এমন একটা সরকার চাই, যারা অনগ্রসর, দলিত, সংখ্যালঘু ও আদিবাসীদের দিকে বিশেষ নজর দেবে৷ ধর্মনিরপেক্ষতা অটুট রাখবে৷ সামাজিক বিভাজনে মদত না দিয়ে তা রুখবে৷ দেশে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে সক্ষম হবে৷ তা সে যে রাজনৈতিক দলই হোক না কেন৷'‌'‌

২০১১ সালের জনগণনা অনুযায়ী, ভারতে মোট জনসংখ্যার ২০ দশমিক ২ শতাংশ সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ভুক্ত৷ এর মধ্যে মুসলিম ১৪ দশমিক ‌২ শতাংশ৷ বাকি ৬ শতাংশ শিখ, খ্রিষ্টান, বৌদ্ধ, জৈনসহ অন্যরা৷ পশ্চিমবঙ্গের আবার মোট জনসংখ্যার ৩০ শতাংশ সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ভুক্ত৷ এই রাজ্যে সংখ্যালঘুদের মন পেতে মরিয়া বিজেপি৷ গত মে মাসে রাজ্যে ত্রি‌স্তরীয় পঞ্চায়েত নির্বাচনে ৮৫০ জন মুসলিম প্রার্থী দিয়েছিল তারা৷ উল্লেখযোগ্য সাফল্য মিলেছে৷ সেই অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে যেখানে যেমন, সেখানে তেমন নীতি নিয়ে এগোতে চাইছে তারা৷

অডিও শুনুন 01:01

‘দলিত, সংখ্যালঘু ও আদিবাসীদের দিকে নজর দেবে এমন সরকার চাই’

দক্ষিণ দিল্লির বাসিন্দা শাহউদ্দিন কিন্তু মোটেই আতঙ্কিত নন৷ দেশজুড়ে সংখ্যালঘুদের ওপর অত্যাচারের বিবরণ তাঁর কন্ঠস্থ৷ তবু অভিনেতা নাসিরুদ্দিন শাহের সাক্ষাৎকার দেখে অনুপ্রাণিত তিনি৷ ডয়চে ভেলেকে তিনি জানালেন, ‘‌‘‌সংখ্যালঘুরা যেন দ্বিতীয় শ্রেণীর নাগরিক!‌ চারিদিকে আতঙ্কের পরিবেশ সৃষ্টি করা হচ্ছে৷ রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে সম্প্রীতির বুনন কেটে দিচ্ছে কিছু মানুষ৷ মরা (‌সংখ্যালঘুরা)‌ ভয় পেলে ওরা (‌বিজেপি)‌‌ আরো পেয়ে বসবে৷ এই দেশ আমাদেরও৷ মনে রাখতে হবে, নির্বাচনেই এদের জবাব দিতে হবে৷'‌'‌

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন