‘মূল হোতারা ধরা ছোয়ার বাইরে থেকে যায়’ | বিশ্ব | DW | 11.07.2012
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বিশ্ব

‘মূল হোতারা ধরা ছোয়ার বাইরে থেকে যায়’

কক্সবাজারের টেকনাফ ভয়াবহ মাদক ‘ইয়াবা’ ট্যাবলেট চোরাচালানের ট্রানজিট রুট৷ নাফ নদী থেকেই ইয়াবা’র চালান আসে৷ আর এই চোরাচালানে ক্যারিয়ার হিসেবে নিম্নবিত্ত মানুষ থেকে শুরু করে স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীদের ব্যবহার করা হয়৷

বাংলাদেশের টেকনাফ অঞ্চল থেকে ২০১০ সালে ৮০ হাজার পিস ইয়াবা আটক করে বাংলাদেশ বর্ডার গার্ড বা বিজিবি৷ ২০১১ সালে আটক করে ১ লাখ ৭৩ হাজার৷ আর চলতি বছরের সাড়ে ছয় মাসে, এপর্যন্ত আটক করা হয়েছে ১ লাখ ৩২ হাজার পিস ইয়াবা৷ ইয়াবা পরিবহনের দায়ে আটক করা হয়েছে ২ শতাধিক লোককে৷ বিজিবি কমান্ডার লে. কর্নেল জাহিদ হাসান ডয়চে ভেলেকে টেলিফোনে জানান, মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে জাতিগত দাঙ্গার কারণে গত একমাস ইয়াবা চোরাচালান বন্ধ ছিল৷ কিন্তু এখন পরিস্থিতি শান্ত হয়ে আসায় মাদক চোরাচালানকারীরা আবারো সক্রিয় হয়ে উঠেছে৷ সোমবার রাতে বিজিবি নাফ নদী থেকে প্রায় ২৩ হাজার পিস ইয়াবা আটক করেছে, যার দাম ৬৫ লাখ টাকা৷

কর্নেল জাহিদ হাসান জানান, নাফ নদী থেকে জাহাজ এবং ইঞ্জিন চালিত বোটে করে এসব ইয়াবা বাংলাদেশে নিয়ে আসে মাদক চোরাচালানকারীরা৷ তবে চালান ছোট হলে তা সড়ক পথেও আনা হয়৷ কিন্তু তারা শুধু ক্যারিয়ারদেরই আটক করতে পারেন৷ মূল চোরাচালানকারীরা থাকে আড়ালে৷ কারণ ক্যারিয়াররা নিজেরাও তাদের চেনেনা৷

এই ইয়াবা শুধু টেকনাফ কক্সবাজারেই সীমাবদ্ধ থাকেনা৷ ছড়িয়ে পড়ে পুরো বাংলাদেশে৷ বলা বাহুল্য, বিশেষ করে তরুণ সমাজই ইয়াবা ব্যবসায়ীদের টর্গেট৷ একটি ইয়াবা ট্যাবলেট কোথাও কোথাও ৫/৬শ' টাকায়ও বিক্রি হয়৷

ইয়াবা এক ধরণের উত্তেজক ট্যাবলেট৷ বিজিবি কমান্ডার লে. কর্নেল জাহিদ হাসান জানান, তারা ইয়াবা'র চোরাচালান বন্ধে সীমান্তে টহল বাড়িয়েছেন৷ কিন্তু এর ব্যবহার বন্ধে মাদক বিরোধী ব্যাপক গণসচেতনতা গড়ে তুলতে হবে৷

প্রতিবেদন: হারুন উর রশীদ স্বপন, ঢাকা
সম্পাদনা: দেবারতি গুহ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন