‌মূর্তি নয়, ভাবমূর্তি | বিশ্ব | DW | 09.03.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

ভারত

‌মূর্তি নয়, ভাবমূর্তি

ত্রিপুরায় বামপন্থিদের ভোটে হারিয়ে বিজেপি জেতার পর ভেঙে ফেলা হয়েছে লেনিনের মূর্তি৷ তার প্রতিবাদে ভাঙার চেষ্টা হয়েছে কলকাতায় শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির মূর্তি৷ শহরে মিশ্র প্রতিক্রিয়া এই মূর্তি ভাঙার রাজনীতির৷

মূর্তি ভাঙার রাজনীতি বরদাস্ত করছে না পশ্চিমবঙ্গ সরকার৷ মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি আগেই জানিয়েছিলেন, রাজ্যে যে কোনো দলের মূর্তি নষ্ট করার অপচেষ্টা কঠোর হাতে দমন করবে প্রশাসন, দোষীদের শাস্তি পেতে হবে৷ কাজেই রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের তাত্ত্বিক নেতা শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জির মূর্তি ভাঙচুর করতে যাওয়ার অপরাধে বুধবার গ্রেপ্তার করা হয় যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন পড়ুয়াকে৷

অডিও শুনুন 02:10
এখন লাইভ
02:10 মিনিট

‘শ্যামাপ্রসাদের মূর্তি ভাঙার চেষ্টাকে সমর্থন করি’

খোদ মুখ্যমন্ত্রীই পরে যাদের মাওবাদী বলে চিহ্নিত করেন৷ এর প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার দিনভর দফায় দফায় অশান্তি হয়েছে দক্ষিণ কলকাতায়৷ কখনও বিজেপি বনাম তৃণমূল, কখনও হিন্দুত্ব অস্তিত্ব রক্ষা কমিটির সঙ্গে বামপন্থি ছাত্রদের৷

যাদবপুর বিশ্বদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র, সাংবাদিক ও নাট্যকর্মী উদ্দালক ভট্টাচার্য ডয়চে ভেলেকে সরাসরিই বললেন, ত্রিপুরায় লেনিন-মূর্তি ভাঙার প্রতিবাদে কলকাতায় শ্যামাপ্রসাদের মূর্তি ভাঙার চেষ্টায় তাঁর পূর্ণ সমর্থন আছে৷ কারণ, তাঁর মতে, ওটা নিছক মূর্তি ভাঙা, বা বিজয় উল্লাসের আতিশয্য নয়, ওটা বামপন্থিদের একটা রাজনৈতিক বার্তা দিতে চেয়েছে বিজেপি৷ যে বিরোধিতাকে এভাবেই তারা গুঁড়িয়ে দেবে৷ উদ্দালকের মতে, পালটা বক্তব্যটাও তাই একই রকম জোরালো হওয়া উচিত ছিল৷ মিছিল বা শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদে সেই বার্তাটা পৌঁছনো সম্ভব ছিল না, যে তা হলে পালটা হামলাটাও একইরকম জোরদার হবে৷

অডিও শুনুন 00:55
এখন লাইভ
00:55 মিনিট

‘পালটা মূর্তি ভাঙাটা আদৌ ঠিক হয়নি’

যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের আরেক প্রাক্তন ছাত্রী, পুরোপুরি বামপন্থি বাড়ির মেয়ে নিলোভনা চক্রবর্তী যদিও মনে করছেন, পালটা মূর্তি ভাঙাটা আদৌ ঠিক হয়নি৷ কারণ তাতে হিন্দুত্ববাদী রাজনীতিকে খামোকা গুরুত্ব দেওয়া হয়ে গেছে৷ নিলোভনার বক্তব্য, শ্যামাপ্রসাদর মূর্তিতে কালি লাগানো, বা ভাঙচুরের চেষ্টার ফলে যেটা হয়েছে, যারা জানতও না কে শ্যামাপ্রসাদ, তারাও কৌতূহলী হয়ে পড়েছে৷ তাঁর নামে গুগল সার্চের হার বেড়েছে৷

আবার ঠিক একই কারণে এই মূর্তিভাঙাকে সমর্থন জানিয়েছেন চলচ্চিত্র পরিচালক অনিকেত চট্টোপাধ্যায়৷ ডয়চে ভেলেকে তিনি জানালেন, এই যে মূর্তিভাঙার জেরে লোকের কৌতূহল বেড়েছে, এটা খুব ভালো একটা দিক৷

লোকে জানুক, কে শ্যামাপ্রসাদ, ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনে তাঁর কী ভূমিকা ছিল৷ অন্যদিকে লেনিনই বা কে, বিশ্ব রাজনীতিতে তাঁর কী অবদান, সেটাও লোকে জানুক৷ মূর্তি ভাঙার পর এবার ভাবমূর্তির মূল্যায়ন হোক, মত অনিকেতের৷

অডিও শুনুন 01:51
এখন লাইভ
01:51 মিনিট

‘মূর্তিভাঙার জেরে লোকের কৌতূহল বেড়েছে, এটা ভালো দিক’

তবে চমৎকার একটা অন্যতর দৃষ্টিভঙ্গী থেকে কথা বললেন কবি-প্রাবন্ধিক সুস্নাত চৌধুরি৷ প্রথমত তাঁর বক্তব্য, বিরোধী গোষ্ঠীর মূর্তি ভাঙার প্রবণতা আজকের না৷ বহু বছর ধরে এটা হয়ে আসছে৷ কিন্তু একদা অনুপম ভাস্কর্যের শহর কলকাতায় আজকাল এমন অনেক মূর্তিই দেখা যায়, যেগুলি এত কদাকার যে ভেঙে ফেলতে ইচ্ছে হয়৷ সেই সব মূর্তি বস্তুত ভেঙে ফেলাই উচিত ছিল৷ লোকে এই শৈল্পিক প্রেক্ষিত থেকেও যদি বিষয়টাকে দেখত!‌  

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন