1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
ব্যবসা-বাণিজ্যভারত

মুদ্রাস্ফীতি, মন্দার আশঙ্কা আছে, আশাও আছে

গৌতম হোড়
গৌতম হোড়
৭ অক্টোবর ২০২২

সারা বিশ্ব মন্দার দিকে গেলে ভারতও পরিত্রাণ পাবে না৷ এরইমধ্যে জিনিসের দাম বেড়েছে৷ বেকারত্ব বেড়েছে৷ তা সত্ত্বেও আশার কথা, এই চাপ নেয়ার ক্ষমতা ভারতীয় অর্থনীতির আছে৷

https://p.dw.com/p/4Hu1E
চলতি বছর ডলারের বিপরীতে ভারতীয় রুপি ১০ শতাংশ দর হারিয়েছে
চলতি বছর ডলারের বিপরীতে ভারতীয় রুপি ১০ শতাংশ দর হারিয়েছেছবি: Soumyabrata Roy/NurPhoto/IMAGO

মাসখানেকও হয়নি ভারতের অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন খুবই উজ্জ্বল মুখে ঘোষণা করেছিলেন যে, ভারত বিশ্বের পঞ্চম বৃহত্তম অর্থনীতি হয়েছে৷ ভারতের আগে এখন শুধু অ্যামেরিকা, চীন, জাপান ও জার্মানি৷ আগে বিশ্বের পঞ্চম অর্থনীতি ছিল যুক্তরাজ্য৷ ভারত তাদের টপকে গিয়ে পঞ্চম অর্থনীতির মর্যাদা পেয়েছে৷ নির্মলা সীতারামনের মতে, এটা কোনো ছোটখাট ব্যাপার নয়৷ সব ভারতীয় এর কৃতিত্ব দাবি করতে পারেন৷ যে কোনো বিষয়কে বড় ইভেন্টে পরিণত করার অসাধারণ ক্ষমতা আছে মোদী সরকারের৷ কিন্তু এক্ষেত্রেও তারা 'ইন্ডিয়া শাইনিং'য়ের স্লোগান তোলেনি৷ ২০০৪ সালে লোকসভা ভোটে এই স্লোগান তুলেই তো ভরাডুবি হয়েছিল বাজপেয়ীর নেতৃত্বাধীন এনডিএ-র৷ সম্ভবত সেই স্মৃতি এখনো ফিকে হয়নি৷ 

ভারত বিশ্বের পঞ্চম বৃহত্তম অর্থনীতি হয়েছে এর জন্য নিঃসন্দেহে ভারতীয়রা শ্লাঘাবোধ করতে পারেন৷  কিন্তু বাস্তব পরিস্থিতি সত্যিই কি তাই? নাকি বহু ব্যবহারে ক্লিশে হয়ে যাওয়া কথাটাই আবার বলতে হয়, প্রদীপের নীচেই জমা থাকে অন্ধকার৷ ভারত বিশ্বের পঞ্চম বৃহত্তম অর্থনীতি  হয়েছে ঠিকই, কিন্তু এই তথ্যটাই যথেষ্ট নয়৷ অন্তত ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের সাবেক প্রধান অর্থনীতিবিদ এবং মনমোহন সিংয়ের সময় প্রধান আর্থিক পরামর্শদাতা কৌশিক বসু তাই মনে করেন৷

দিন কয়েক আগে একের পর এক টুইট করে কৌশিক বসু তার মতামত খুব স্পষ্ট করে জানিয়েছেন৷ তার মতে, দুই বছর আগেই যুক্তরাজ্যকে টপকে ভারতের পঞ্চম বৃহত্তম অর্থনীতি হওয়ার কথা ছিল৷ কিন্তু ২০১৬ থেকে অর্থনৈতিক বৃদ্ধির হার কম হয়ে যায়৷ তার ফলে এই দুই বছর দেরি হলো৷ তাই কৌশিক বসু মনে করেন, এটা হলো সেই রিলে রেস জেতা, যেখানে শেষ দৌড়বাজ লাস্ট হওয়া সত্ত্বেও রিলে রেসে জয় এলো৷ কিন্তু এখানেই থামেননি তিনি৷ কোনো রাখঢাক না করেই বলেছেন, ভারতে এখন বেকারত্বের হার আট দশমিক তিন শতাংশ৷ বেকারত্বের হার গত এক বছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি৷ মুদ্রাস্ফীতির হার অনেকটা বেড়েছে৷

কৌশিক বলছেন, ২০১৬ থেকে পাঁচ বছর ধরে ভারতীয় অর্থনীতির অবস্থা খুবই খারাপ ছিল৷ তার জন্য বড় ক্ষতি হয়ে গেছে৷ বিশ্বের দেশগুলির মধ্যে ভারতের সবচেয়ে বেশি যুবক বেকার, আর্থিক অসাম্য সবচেয়ে বেশি এবং বাংলাদেশের মানুষের আয়ুসীমাও ভারতীয়দের থেকে তিন বছর বেশি৷ কৌশিক বসু এখানে কর্মহীন মানুষের যে সংখ্যাতত্ত্ব দিয়েছেন তা সেন্টার ফর মনিটরিং ইন্ডিয়ান ইকনমির (সিএমআইই)৷ কিন্তু তাদের সর্বশেষ তথ্য হলো, দেশে বেকার মানুষের সংখ্যা এখন ছয় দশমিক পাঁচ শতাংশ৷

শিল্পপতি এবং কোটাক মাহিন্দ্র ব্যাংকের এমডি উদয় কোটাক বলেছেন, যুক্তরাজ্য ও ভারতের অবস্থার মধ্যে রিয়ালিটি চেক হওয়া দরকার৷ ভারতের জনসংখ্যা ১৪০ কোটি এবং মাথাপিছু জিডিপি দুই হাজার ৫০০ ডলার৷ আর যুক্তরাজ্যের জনসংখ্যা ছয় কোটি ৮০ লাখ এবং তাদের মাথাপিছু জিডিপি ৪৭ হাজার ডলার৷

ফলে ভারত বিশ্বের পঞ্চম বৃহত্তম অর্থনীতি হতে পারে, কিন্তু আর্থিক শক্তি, মানুষের জীবনধারণের মান, কর্মসংস্থানসহ অন্য আর্থিক পরিমাপে যুক্তরাজ্যের তুলনায় ভারত অনেক পিছিয়ে৷ প্রদীপের নীচের অন্ধকার দিকটা এভাবেই বাইরে এসে যাচ্ছে৷

কোনো সন্দেহ নেই, অর্থনীতি চাপে আছে৷ আবার এটা নিয়েও কোনো সন্দেহ নেই, ভারতের অর্থনীতি বেহাল হয়নি৷ সিএমআইই-র সমীক্ষা বলছে, সেপ্টেম্বরে শ্রমবাজার রিবাউন্ড করেছে৷ উৎসেবর মরসুমে এমনিতেই অর্থনীতি বেগবান হয়৷ এবারও হচ্ছে৷ গ্লোবাল রেটিং সংস্থা এসঅ্যান্ড পি জানিয়েছে, অ্যামেরিকা এবং ইউরোপ সহ বিশ্বের অর্থনীতি মন্দার দিকে যাচ্ছে৷ ভারত মন্দার হাত থেকে বেঁচে যেতেও পারে৷ সংবাদসংস্থা পিটিআই জানাচ্ছে, এসঅ্যান্ডপি-র প্রধান অর্থনীতিবিদ এফ গ্রুয়েনওয়াল্ড বলেছেন, ভারতের অভ্যন্তরীণ একটা বাজার আছে৷ যদিও ভারতকে বাইরে থেকে তেল আমদানি করতে হয়, তা সত্ত্বেও ভারতের বিদেশি মুদ্রার ভান্ডার যথেষ্ট ভালোঅবস্থায় আছে৷ তার উপর ভারতের কোম্পানিগুলির ব্যালান্স শিট এখন যথেষ্ট ভালো৷

Goutam Hore
গৌতম হোড়, ডয়চে ভেলে, নতুন দিল্লিছবি: privat

কোনো সন্দেহ নেই ভারতের দেশের ভিতরের বাজার যথেষ্ট বড়৷ অধিকাংশ খাদ্যশস্য উৎপাদনে ভারত স্বয়ংসম্পূর্ণ৷ তেল বাদ দিলে অন্য কোনো নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের উপর ভারতের বিদেশ-নির্ভরতা অতটা বেশি নেই৷ রাশিয়া ইউক্রেন আক্রমণ করার পর গোটা ইউরোপ-জুড়ে তেল ও গ্যাসের আকাল চলছে৷ তেল ও গ্যাসের দামও বেড়েছে৷ সেই সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে বিদ্যুতের খরচ৷ সেখানে রাশিয়ার বদান্যতায় ভারত বেঁচে গেছে৷ রাশিয়া ভারতকে অনেক সস্তায় তেল দিয়েছে৷ ভারতও অ্যামেরিকার ভ্রুকুটি ও পশ্চিমা দেশগুলির বিরোধকে আমল না দিয়ে তেল কিনেছে এবং কিনছে৷ তার ফলে তেল কেনার ক্ষেত্রে ভারতের চাপ কমেছে। ফলে ইউরোপকে যতটা চাপ সহ্য করতে হয়েছে, ভারতকে ততটা নয়৷

কিন্তু তা সত্ত্বেও চিন্তা তো একটা থাকেই৷ গ্লোবাল রিসার্চ ফার্ম নমুরার প্রধান অর্থনীতিবিদ সোনাল ভার্মা ইকনমিক টাইমসকে বলেছেন, বর্তমান ভূরাজনৈতিক পরিস্থিতি ও অর্থনৈতিক অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে ভারতে মাঝারি সময়ের জন্য আর্থিক মন্দা হতে পারে৷ এই সময়টা কখনোই ১২ থেকে ১৮ মাসের বেশি হবে না৷ তার মতে, করোনার ধাক্কা এখনো পুরোপুরি সামলে ওঠা যায়নি৷ অনেকগুলি ক্ষেত্র পুরোপুরি আগের মতো হয়নি৷ এর ফলে মুদ্রাস্ফীতি হচ্ছে এবং হবে। ২০২৩-এও মুদ্রাস্ফীতি থাকবে৷ তবে মাঝারি হারে৷

আমরা তো কবে থেকে মুদ্রাস্ফীতি নিয়েই বাস করছি৷ আর এটাও ঘটনা, ভারতে এখন এতরকম কেন্দ্রীয় ও রাজ্য সরকারি প্রকল্প আছে যে, গরিব মানুষের রুটি-রুজির ক্ষেত্রে সমস্যা হওয়ার কথা নয়৷ তারা বিনা পয়সায় রেশন পান, একশ দিনের কাজ পান৷ বার্ধক্যভাতা পান৷ বিনা পয়সায় চিকিৎসা বিমা পান৷ বড়লোকদের জিনিসের দাম বাড়লেও কিছু এসে যায় না৷ মার খায় শুধু মধ্য ও নিম্নবিত্তরা৷ অর্থনীতির হাল খারাপ হলে চাকরি যায়, জিনিসের দাম বাড়ে, ফলে জীবনধারণের মান কমাতে হয়৷ চাপ বাড়তেই থাকে৷ ভালো বা মন্দ সবসময়ই চাপে থাকা মধ্যবিত্তের অবস্থা কমবেশি খারাপ হতে থাকে৷ চিন্তাটা এখানেই৷

স্কিপ নেক্সট সেকশন এই বিষয়ে আরো তথ্য

এই বিষয়ে আরো তথ্য

আরো সংবাদ দেখান
স্কিপ নেক্সট সেকশন সম্পর্কিত বিষয়
স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

আদানির কয়লার দামে ‘সংশোধন’ চায় পিডিবি

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ
প্রথম পাতায় যান