1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
Screenshots | Khaled Asks Show 125
ছবি: DW

‘মিয়ানমার নিয়ে বাংলাদেশের কোনো কৌশলগত পরিকল্পনাই নেই’

২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২

রোহিঙ্গা সংকট সমাধান এবং সাম্প্রতিক সীমান্ত সংকট নিয়ে বাংলাদেশের যথাযথ কৌশল বা পরিকল্পনা নেই বলে মনে করেন মেজর জেনারেল (অব.) শহীদুল হক৷

https://p.dw.com/p/4HHN4

তবে মেজর জেনারেল (অব.) আব্দুর রশিদ মনে করেন আন্তর্জাতিকভাবে মিয়ানমারকে একটি দুর্বল অবস্থায় নিয়ে যেতে বাংলাদেশ ভূমিকা রাখতে পেরেছে৷

সম্প্রতি মিয়ানমার থেকে ছোঁড়া গোলা একাধিকবার বাংলাদেশ ভূখণ্ডে এসে পড়েছে৷ ঘটেছে প্রাণহানির ঘটনাও৷  নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল (অব.) আব্দুর রশিদ পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করে বলেন, মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী বাংলাদেশকে লক্ষ্য করে গোলা ছুঁড়েছে কিনা সেটি পরিস্কার নয়৷ তবে মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে যা এসেই পড়ুক তার দায় দেশটির বলে মনে করেন তিনি৷ এক্ষেত্রে বাংলাদেশের কূটনৈতিকভাবে শক্ত জবাব দেয়া উচিৎ বলে মনে করেন তিনি৷

তার মতে মিয়ানমারের সাম্প্রতিক এই কর্মকাণ্ডের ফলে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে রোহিঙ্গা সংকট আবার আলোচিত হচ্ছে৷ ‘‘এক্ষেত্রে মিয়ানমার বাংলাদেশের উদ্দেশ্যকে সফল করেছে'', বলেন সাবেক এই সামরিক কর্মকর্তা৷

মিয়ানমারে নিযুক্ত বাংলাদেশের সাবেক সামরিক অ্যাটাশে মেজর জেনারেল (অব.) শহীদুল হক মনে করেন, শুরু থেকে যে ধরনের প্রতিক্রিয়া ও পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন ছিল তা দেখাতে পারেনি ঢাকা৷ তার মতে বৈরিতা সত্ত্বেও দুই দেশের সীমান্তরক্ষী ও সামরিক পর্যায়ে যেই যোগাযোগটুকু থাকা প্রয়োজন ছিল সেটি নেই৷

এই আলোচনা এক পর্যায়ে রোহিঙ্গা ইস্যুতে গড়ায়৷ শহীদুল হকের মনে করেন, মিয়ানমার এখন সরকারি ও সামরিক পর্যায়ে আন্তর্জাতিকভাবে দুর্বল একটি অবস্থায় রয়েছে৷ সেটিকে কাজে লাগিয়ে রোহিঙ্গা সংকটের যে সমাধান করা যেত তা বাংলাদেশ করতে পারছে না৷ তার মতে এক্ষেত্রে বাংলাদেশের যথাযথ কোনো পরিকল্পনা নেই৷ তিনি প্রশ্ন তোলেন, ‘‘এই পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে আসলেই কি কোন পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে? ...প্ল্যান এ এবং প্ল্যান বি যদি না থাকে, আমার কোন স্ট্র্যাটেজি যদি না থাকে তাহলে শুধু আলোচনা দিয়ে রোহিঙ্গার সমস্যার সমাধান হতে পারে না৷’’ তার মতে বাংলাদেশের সীমান্তে মিয়ানমারের অনেক নিরপত্তা দুর্বলতা রয়েছে, সেই সঙ্গে ঢাকা কিছু বাণিজ্যিক সুবিধাও রয়েছে যেগুলোকে ঢাকা কাজে লাগাতে পারছে না৷

তবে তার বক্তব্যের বিরোধিতা করে মেজর জেনারেল (অব.) আব্দুর রশিদ বলেন, এই ধরনের কূটনৈতিক কৌশল থেকে বর্তমান সরকার সরে এসেছে৷ তিনি বলেন, ‘‘মিয়ানমারের সঙ্গে আমাদের বন্ধুরাষ্ট্রগুলোর যাদের স্বার্থ সংশ্লিষ্টতা আছে তারা হয়ত মিয়ানমারের স্বার্থকে বেশি করে দেখছে, আমাদেরটা কম দেখছে, যে কারণে আমরা তাদেরকে সম্পৃক্ত করতে পারিনি৷ এটা হলো বাস্তব সত্য৷''

তার মতে মিয়ানমার সরকার বর্তমানে অর্থনৈতিক সামরিক ও ভূরাজনীতিগত দিক থেকে অনেক দুর্বল অবস্থানে চলে গেছে৷ ‘‘এই দুর্বল অবস্থানে যাওয়ার পেছনে বাংলাদেশ যে কূটনীতি করেছে তার ভূমিকা রয়েছে,'' বলেন এই সামরিক বিশেষজ্ঞ৷

এফএস/জেডএ

স্কিপ নেক্সট সেকশন এই বিষয়ে আরো তথ্য

এই বিষয়ে আরো তথ্য

আরো সংবাদ দেখান
স্কিপ নেক্সট সেকশন সম্পর্কিত বিষয়
স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

কলকাতায় সালামের বই এনেও বিক্রি করতে পারলেন না প্রকাশক

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ

প্রথম পাতায় যান