মিয়ানমারে যেতে পারবে জাতিসংঘ প্রতিনিধিদল | বিশ্ব | DW | 03.04.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

রোহিঙ্গা সংকট

মিয়ানমারে যেতে পারবে জাতিসংঘ প্রতিনিধিদল

শেষ পর্যন্ত জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের প্রতিনিধি দলকে সে দেশে যাওয়ার অনুমোদন দিতে রাজি হয়েছে মিয়ানমার সরকার৷ সোমবার নিরাপত্তা পরিষদ প্রধান পেরুর গুস্তাভো মেজা-কুয়েদ্রা এ তথ্য জানিয়েছেন৷

তবে তিনি বলেন, এই সফরে প্রতিনিধি দলটি রাখাইন প্রদেশ পরিদর্শনের সুযোগ পাবেন কিনা তা এখনো স্পষ্ট নয়৷ তিনি জানান, সফরের বিস্তারিত নিয়ে এখনো কাজ চলছে৷ 

রাখাইনের ৩০টি পুলিশ পোস্ট ও একটি সেনা ক্যাম্পে কথিত রোহিঙ্গা জঙ্গিদের হামলার পর ২৫ অগাস্ট থেকে মিয়ানমার সেনাবাহিনী রাখাইন প্রদেশে ব্যাপক অভিযান শুরু করে৷ ওই অভিযানকে ‘জাতিগত নির্মূল অভিযান' হিসেবে চিহ্নিত করেছে জাতিসংঘ৷

সেনাবাহিনীর ওই অভিযানের পর থেকে ৭ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা মুসলিম বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে৷

নিরাপত্তা পরিষদের প্রতিনিধি দলের এ বছরের ফেব্রুয়ারিতে মিয়ানমার সফরের কথা থাকলেও এতদিন দেশটির সরকার অনুমোদন দিচ্ছিল না৷  ১৫ সদস্যের এ প্রতিনিধি দলটির বাংলাদেশের কক্সবাজারের রোহিঙ্গা আশ্রয় কেন্দ্রগুলো পরিদর্শনের কথা রয়েছে বলে গুস্তাভো জানিয়েছেন৷

রোহিঙ্গা বসতি নিরাপদে সরানোর কাজ শুরু

আসন্ন ঝড়-বৃষ্টির মৌসুমে ঝুঁকি এড়াতে পাহাড়ি ঢাল ও সাগর তীরবর্তী অঞ্চলে আশ্রয় নেওয়া ১ লাখ রোহিঙ্গার বসতি স্থানান্তর শুরু করেছে বাংলাদেশ সরকার৷

পররাষ্ট্র সচিব শহিদুল হক সোমবার জানান, মৌসুমী ঘূর্ণিঝড়, ভূমিধস, সাইক্লোন থেকে আশ্রিতদের রক্ষায় আগাম সতর্কতা হিসেবে সরকার তাঁদের জন্য নতুন জায়গা বরাদ্দ করেছে৷

 বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়ার পর রোহিঙ্গাদের অনেকেই কক্সবাজারের বিভিন্ন পাহাড়ের ঢালে মাটি সমান করে বসতি স্থাপন করেছে, যা বর্ষা মৌসুমে নিয়ে আসতে পারে মারাত্নক বিপর্যয়৷

ঢাকায় জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক হাই কমিশনার জোসেফ ত্রিপুরা বলেন, ‘‘রোহিঙ্গা বসতি যে জায়গায় স্থানান্তরের পরিকল্পনা করা হয়েছে, সেটি প্রস্তুতের কাজ মাসখানেক আগেই শুরু হয়েছে৷''

তিনি জানান, জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক হাই কমিশন ইতিমধ্যে সহযোগী সংস্থাগুলোর সহায়তায় ঝুঁকিতে থাকা ৩৬০  রোহিঙ্গা পরিবারকে সরিয়ে নিরাপদ স্থানেবাসস্থান করে দিয়েছে৷ পাহাড়ি ঢল ও ভূমিধসে গত বছরও বাংলাদেশে সরকারি হিসেবে দেড়শ' লোক মারা গেছেন৷ পররাষ্ট্র সচিব শহিদুল হক বলেন, ‘‘এ ধরনের দুর্যোগ আমাদের কাছে নতুন নয়৷ সরকার এ বিষয়ে সজাগ রয়েছে৷''

এইচআই/এসিবি (ডিপিএ, এপি)     

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন