মিয়ানমারে বৌদ্ধ ভিক্ষুদের চাপে মাদ্রাসায় তালা | বিশ্ব | DW | 01.05.2017
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

মিয়ানমার

মিয়ানমারে বৌদ্ধ ভিক্ষুদের চাপে মাদ্রাসায় তালা

ইয়াঙ্গুনের দুটি মাদ্রাসায় শুক্রবার বিকেলে এই ঘটনা ঘটে৷ ডজনখানেক উগ্র-জাতীয়তাবাদী বৌদ্ধ ভিক্ষু ও তাঁদের সমর্থকদের দাবির প্রেক্ষিতে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ এই সিদ্ধান্ত নেন৷

Myanmar Schließung muslimischer Schulen in Rangun (picture-alliance/AP Photo/T. Zaw)

পুলিশের উপস্থিতিতে মাদ্রাসার গেটে তালা দেয়া হচ্ছে

মাদ্রাসা দুটি অবৈধভাবে গড়ে তোলা হয়েছে বলে দাবি করেছিল বৌদ্ধ ভিক্ষু ও তাঁদের সমর্থকরা৷ ভবন দুটি বন্ধের দাবিতে প্রায় ঘণ্টা তিনেক তাঁরা বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন৷ সেই সময় পুলিশ পাশে দাঁড়িয়ে ছিল৷ এরপর স্থানীয় কর্তৃপক্ষ দাবি মেনে বিক্ষোভকারীদের মাদ্রাসার প্রবেশপথে তালা লাগানোর অনুমতি দেন৷

তাৎক্ষণিকভাবে বিক্ষোভ প্রশমনে এই ব্যবস্থা নেয়া হলেও মাদ্রাসা দুটির ভবিষ্যৎ কী হবে তা জানা যায়নি৷

Myanmar Schließung muslimischer Schulen in Rangun (picture-alliance/AP Photo/T. Zaw)

তালা দেয়ার আগে পুলিশ ঘেরা অবস্থায় বিক্ষোভ চলছে

মুসলিম সম্প্রদায়ের নেতা তিন শ'য়ে বলছেন, ‘‘আজ যা ঘটলো, তা খুবই দুঃখজনক৷ মাদ্রাসা দুটি অনেক বছর আগে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে৷’’

উল্লেখ্য, ‘মা বা থা’ নামে বৌদ্ধদের একটি জঙ্গি সংগঠন বহু বছর ধরে মিয়ানমারে মুসলমানদের বিরুদ্ধে কার্যক্রম চালিয়ে আসছে৷ মিয়ানমারের সাধারণ নাগরিকদের, মুসলমানদের বিরুদ্ধে উসকে দিয়ে তাদের হত্যা ও সম্পত্তি বিনষ্ট করতে উৎসাহী করে তোলে মা বা থা'র কর্মীরা৷

মুসলিমবিরোধী কর্মীরা গত বছর মুসলমানদের স্থাপনাগুলোকে ‘অবৈধ’ ঘোষণা ও সেগুলো ভেঙে ফেলতে স্থানীয় কর্তৃপক্ষের উপর চাপ প্রয়োগ করে৷ কিছু ক্ষেত্রে এই কর্মীরা স্থাপনা ভাঙার কাজে নিজেরাই হাত লাগান৷

‘মা বা থা’ আন্দোলনের কার্যক্রম ঝিমিয়ে পড়েছে বলে গত কয়েক বছর ধরে মনে করা হচ্ছিল৷ তবে রাখাইন রাজ্যের সাম্প্রদায়িক সংঘাতের কারণে তারা আবার উজ্জীবিত হয়ে উঠছে বলে ধারণা করা হচ্ছে৷

৩০ রোহিঙ্গা উদ্ধার

শ্রীলংকার কোস্টগার্ড রবিবার সমুদ্র থেকে একটি ভারতীয় নৌকা আটক করে৷ নৌকায় ১৬ জন শিশুসহ ৩০ জন রোহিঙ্গা ছিল৷ উদ্ধারকৃতদের মধ্যে চার মাস ও ১৫ দিন বয়সি দুই শিশুও আছে৷

নৌকাটি অবৈধভাবে শ্রীলংকার জলসীমায় ঢুকে পড়ায় সেটিকে আটক করা হয় বলে জানিয়েছেন নৌবাহিনীর মুখপাত্র চামিন্ডা ওয়ালাকুলুগে৷

রোহিঙ্গাদের উদ্ধার করে জরুরি সহায়তা দেয়া হয়েছে৷ পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়ার জন্য তাদের স্থানীয় কর্তৃপক্ষের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে৷

বার্তা সংস্থা এএফপিকে ওয়ালাকুলুগে বলেন, উদ্ধার হওয়া রোহিঙ্গারা ভারতে প্রায় চার বছর ধরে শরণার্থী হিসেবে ছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে৷ নৌকায় করে তাদের শ্রীলংকায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল বলে তদন্তকারীরা মনে করছেন৷

এর আগে প্রায় চার বছর আগে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের ১৩৮ জন শরণার্থীকে উদ্ধার করেছিল শ্রীলংকার কোস্টগার্ড৷ প্রায় ১০ দিন ধরে তাদের বহন করা নৌকাটি শ্রীলংকার পানিতে ভেসে বেড়াচ্ছিল৷

জেডএইচ/এসিবি (এপি, এএফপি)

প্রিয় পাঠক, আপনি কিছু বলতে চাইলে লিখুন নীচে মন্তব্যের ঘরে...

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন