‘মিয়ানমারে প্রতিবাদকারীদের হত্যা এবং গ্রেপ্তার বন্ধ করতে হবে’ | বিশ্ব | DW | 04.03.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

মিয়ানমার

‘মিয়ানমারে প্রতিবাদকারীদের হত্যা এবং গ্রেপ্তার বন্ধ করতে হবে’

জাতিংঘের পক্ষ থেকে এমন আহ্বান জানানো হলেও মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনী সামরিক শাসনবিরোধী বিক্ষোভের ওপর হামলা থামায়নি৷ এ পর্যন্ত নিহত হয়েছেন ৫৪ জন, গ্রেপ্তার হয়েছেন অন্তত ১৭০০ জন৷

এক বিবৃতিতে জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক প্রধান মিশেল ব্যাচেলেট জানান, মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর প্রতি তিনি শান্তিপ্রিয় বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছেন৷ বিবৃতিতে তিনি আরো বলেছেন, ‘‘মিয়ানমারকে প্রতিবাদকারীদের হত্যা এবং গ্রেপ্তার বন্ধ করতে হবে৷’’

কিন্তু এ আহ্বানে দৃশ্যত কোনো কাজ হয়নি৷ অং সান সু চি-র মুক্তি এবং সামরিক শাসনের অবসান দাবিতে দেশ জুড়ে বিক্ষোভ এখনো চলছে৷ জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক প্রধান মিশেল ব্যাচেলেট জানান, বিক্ষোভকারীদের ওপর নিরাপত্তা বাহিনীর হামলায় এ পর্যন্ত অন্তত ৫৪ জন মারা গেছেন৷ গ্রেপ্তার হয়েছেন কমপক্ষে ১৭০০ জন৷

বৃহস্পতিবারও রাজধানী ইয়াঙ্গন, মিয়ানমারের মধ্যাঞ্চলীয় শহর মোনায়া, ইয়াঙ্গনের দক্ষিণের শহর পাথেইনসহ বেশ কয়েক জায়গায় বিক্ষোভকারীদের ওপর নিরাপত্তাবাহিনী গুলি চালিয়েছে৷

তা সত্ত্বেও দেশের প্রায় সব শহরই অং সান সু চি-র মুক্তির দাবিতে শ্লোগানে শ্লোগানে মুখরিত হয়েছে৷

তবে মান্দালায় শহর ছিল শোক আর আতঙ্কের চাদরে ঢাকা৷ বুধবার সেই শহরে পুলিশের গুলিতে ১৯ বছর বয়সি এক তরুণী মারা যান৷ মৃত্যুর সময় তার গায়ের টি-শার্টে লেখা ছিল, ‘‘সব ঠিক হয়ে যাবে৷’’

বৃহস্পতিবার সকাল থেকে মান্দালায়ের আকাশে খুব নীচ দিয়ে সামরিক বাহিনীর পাঁচটি যুদ্ধবিমানকে টহল দিতে দেখা যায়৷ স্থানীয়রা মনে করেন, এর মাধ্যমে সেনাবাহিনী বিক্ষোভকারীদের ভয় দেখানোর চেষ্টা করেছে৷ যুদ্ধবিমান টহল দেয়ার পরও সেই শহরে নিহত তরুণীর অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া হয়েছে৷ শত শত মানুষ অংশ নিয়েছেন দেশের জন্য আত্মত্যাগ করা তরুণীকে শেষ বিদায় জানানোর আনুষ্ঠানিকতায়৷

Myanmar Begräbnis Kyal Sin

নিহত তরুণীর অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় সমবেত মানুষ

অং সান সু চি-র দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্র্যাসি এক বিবৃতিতে সামরিক শাসনবিরোধী আন্দোলনে নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সারা দেশে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখার আহ্বান জানিয়েছে৷

এদিকে জাতিসংঘে মিয়ানমার বিষয়ক বিশেষ দূত ক্রিস্টিন শ্র্যানার বার্গানার বলেছেন, মিয়ানমার সেনাবাহিনীর উপ-প্রধান সো উইনকে তিনি বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান বন্ধ না করলে সেনাবাহিনীকে কঠোর পরিস্থিতির মুখোমুখি হওয়ার আশঙ্কার কথা জানিয়েছিলেন৷ তবে তিনি জানান, জবাবে সো উইন বলেছেন, ‘‘আমরা অর্থনৈতিক অবরোধে অভ্যস্ত হয়ে গেছি৷ ওসব সহ্য করেই আমরা টিকে আছি৷’’

এসিবি/কেএম (রয়টার্স)

১ মার্চের ছবিঘরটি দেখুন...

নির্বাচিত প্রতিবেদন