মিয়ানমারে দুই সাংবাদিকের কারাদণ্ড, বাংলাদেশের তীব্র নিন্দা | বিশ্ব | DW | 03.09.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

মিয়ানমার

মিয়ানমারে দুই সাংবাদিকের কারাদণ্ড, বাংলাদেশের তীব্র নিন্দা

মিয়ানমারে আটক রয়টার্সের দুই সাংবাদিককে সাত বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে সেদেশের আদালত৷ রাষ্ট্রীয় গোপনীয়তা আইন লঙ্ঘনের অভিযোগে করা মামলার এই রায়ে তীব্র নিন্দা জানিয়েছে বাংলাদেশসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়৷

রয়টার্সের দুই সাংবাদিক ওয়া লন ও কিঁয় সোয়ে ও-কে গত ১২ই ডিসেম্বর ইয়াঙ্গুনের কাছের একটি এলাকা থেকে  গ্রেপ্তার করা হয়৷ তাঁরা দু'জন রাখাইনেমুসলমানদের উপর মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর অভিযান সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করছিলেন৷

২৭শে ডিসেম্বর তাঁদের দু'জনকে আদালতে হাজির করার পর ইয়াঙ্গুনের ইনসেইন কারাগারে পাঠানো হয়৷ পুরো বিশ্বে নিন্দার ঝড় ওঠে৷ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম এবং অধিকার সংগঠনগুলোর পক্ষ থেকে তাঁদের অবিলম্বে মুক্তির দাবি জানানো হয়৷ কিন্তু তাঁদের সব দাবি উপেক্ষা করে এই দুই সাংবাদিককে কারাদণ্ড দিলো আদালত৷

রয়টার্সের ঐ দুই সাংবাদিক বরাবরই তাঁদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, তাঁরা কেবল তাঁদের পেশাগত দায়িত্ব পালন  করছিলেন৷ তাঁরা রাখাইনের একটি গ্রামে গত বছরের সেপ্টেম্বরে ১০ জন রোহিঙ্গা মুসলমানকে হত্যার ঘটনা অনুসন্ধান করছিলেন৷ আর তাঁরা সেখানে গিয়েছিলেন পুলিশের আমন্ত্রণে এবং নৈশভোজের সময় তাঁদের হাতে কিছু নথিপত্র তুলে দিয়েছিল পুলিশ৷ সেই রেস্তোরাঁ ত্যাগ করার পরই ঐ নথিসমেত তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়৷

ভিডিও দেখুন 02:27

UN releases damning report on Myanmar military

কিন্তু বিচারক তাঁদের কথায় কোনো আমল দেননি৷ তিনি রায় ঘোষণার সময় বলেন, ‘‘এটা প্রমাণিত যে, আসামিরা রাষ্ট্রের ক্ষতি করতে চেয়েছিল এবং তাই রাষ্ট্রীয় গোপনীয়তা আইন লঙ্ঘন আইনে তাদের দোষী সাব্যস্ত করা হলো৷ তাদের প্রত্যেককে সাত বছর করে কারাভোগ করতে হবে৷ ''  এখন দু'টি পথ খোলা আছে৷ এই দুই সাংবাদিক সর্বোচ্চ আদালতে আপিল করতে পারেন, অথবা মিয়ানমার সরকার তাঁদের ক্ষমা করে দিতে পারে৷

আন্তর্জাতিক প্রতিক্রিয়া

বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গণমাধ্যম বিষয়ক উপদেষ্টা ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেছেন, ‘‘এই ঘটনার দ্বারা আবারও প্রমাণ হলো যে, মিয়ানমার সরকার বাক-স্বাধীনতা এবং গণমাধ্যমের স্বাধীনতাকে দমন করছে৷ এটা এখন একেবারেই পরিষ্কার যে, মিয়ানমার সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে মুখ খুললে সেই ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে কঠোর শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে৷ আমরা এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাই এবং এই দুই সাংবাদিকের অবিলম্বে মুক্তি দাবি করছি৷''

রায়ের পর ইয়াঙ্গুনের মার্কিন দূতাবাস এক বিবৃতিতে তাদের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে৷ সেখানে বলা হয়েছে, ‘‘মিয়ানমার যে গণতন্ত্রের পথ থেকে সরে এসেছে এবং বাক-স্বাধীনতার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে এ ঘটনা সেটাই প্রমাণ করে৷'' পাশাপাশি দুই সাংবাদিকের অবিলম্বে মুক্তিও দাবি করেছে তারা৷

মিয়ানমারে নিযুক্ত ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূত রায়ে হতাশা জানিয়ে বলেছেন, ‘‘ব্রিটিশ সরকার এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের পক্ষ থেকে বলছি, একটি দেশের গণতন্ত্র বজায় রাখতে আইনের শাসন এবং বাক-স্বাধীনতা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়৷ কিন্তু এই রায়ে তার কোনো প্রতিফলনই হয়নি৷''

জাতিসংঘও হতাশা প্রকাশ করে বলেছে, ‘‘কোনো দেশের গণমাধ্যমের স্বাধীনতাই বলে দেয় দেশটি কতটা শান্তিপূর্ণ, সেখানকার বিচার ব্যবস্থা এবং মানবাধিকার পরিস্থিতি কতটা ভালো৷ কিন্তু মিয়ানমারে আদালতের এই রায়ে এগুলোর কোনো প্রতিফলন হয়নি৷'' অস্ট্রেলিয়া, ডেনমার্ক, নেদারল্যান্ডসের রাষ্ট্রদূতরাও রায়ে হতাশা প্রকাশ করেছেন৷ 

রয়টার্সের প্রধান সম্পাদক স্টিফেন জে. অ্যাডলার বলেছেন, ‘‘কেবল রয়টার্সের দুই সাংবাদিকের জন্য নয়, বিশ্বের গণমাধ্যমের জন্য আজ একটি দুঃখের দিন৷ মিয়ানমার পুলিশের ষড়যন্ত্রের শিকার তাঁরা৷ মিথ্যা অভিযোগে এই দুই সাংবাদিক ইতোমধ্যে ৯ মাস কারাভোগ করেছেন৷ এই রায় প্রকাশের মাধ্যমে মিয়ানমার গণতন্ত্রের পথ থেকে অনেকটা পিছিয়ে গেল৷ তবে আমরা এই অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ অব্যাহত রাখবো৷ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এই ঘটনায় চুপ করে বসে থাকবে না৷''

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল অবিলম্বে দুই সাংবাদিকের মুক্তির দাবি জানিয়ে বলেছে, ‘‘এই রায় রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত দ্বারা প্রভাবিত৷ এই রায়ের ফলে মিয়ানমারের অন্য সাংবাদিকদের মত প্রকাশের বিষয়ে সতর্ক করে দেয়া হলো৷ অর্থাৎ, সেনাবাহিনীর নিপীড়নের বিরুদ্ধে কোনো কিছু বলা বা লেখা হলে তাদের পরিণতি ভয়াবহ হতে পারে৷''

হিউম্যান রাইটস ওয়াচের এশিয়া ডিরেক্টর ব্র্যাড অ্যাডামস বলেছেন, ‘‘এই রায়ে এ ধারণা স্পষ্ট হলো যে, মিয়ানমারের বিচারবিভাগ সেনাবাহিনী দ্বারা নিয়ন্ত্রিত৷''

এপিবি/এসিবি (এপি, এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন