মা তোর বদনখানি মলিন হলে… | বিশ্ব | DW | 13.09.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

সংবাদভাষ্য

মা তোর বদনখানি মলিন হলে…

মানুষের তীব্রতম অনুভূতি কী? কখনো মনে হয় মানব-মানবীর প্রেমই সেরা৷ অথবা স্রষ্টার সাথে সৃষ্টির প্রেম? মা-বাবার প্রতি ভালোবাসা? নাকি সন্তানের প্রতি স্নেহ? শেষ পর্যন্ত অবশ্য দেশপ্রেম বা জাতীয়তাবোধের অনুভূতিকেই তীব্রতম মনে হয়৷

এ ব্যাপারে আমার নিজস্ব একটা ব্যাখ্যাও আছে৷ সব প্রেমের ব্যাখ্যাই লুকিয়ে আছে প্রকৃতিতে৷ মানব-মানবী যদি পরস্পরের প্রতি তীব্র আকর্ষণ অনুভব না করে, তবে মানবসভ্যতা থেমে যাবে৷ সন্তান স্নেহ তারচেয়ে তীব্র, কারণ জন্মের পর সব শিশুই থাকে অসহায়৷ মা-বাবার অন্ধ স্নেহ না পেলে সেই শিশুর পক্ষে টিকে থাকাই কঠিন৷ প্রকৃতি তার স্বার্থে মানবশিশুর টিকে থাকা নিশ্চিত করতেই মা-বাবার মনে সন্তানের জন্য প্রবল ভালোবাসা সৃষ্টি করে৷ কিন্তু শেষ পর্যন্ত আমি বুঝি আসলে দেশপ্রেম বা জাতীয়তাবোধের অনুভূতিই তীব্রতম৷ এর শত শত উদাহরণ আছে বিশ্বজুড়ে, আমাদের সবচেয়ে কাছের উদাহরণ একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধ৷ প্রিয়তম স্ত্রীকে ফেলে স্বামী চলে যাচ্ছেন যুদ্ধে, সন্তানের মায়াভরা মুখও তাকে আটকাতে পারছে না৷ মা-বাবা যেতে দেবেন না বলে, তাদের লুকিয়ে রাতের অন্ধকারে ঘর ছাড়ে সন্তান৷ আবার জাহানারা ইমামের মতো অনেক মা সন্তানকে দেশের জন্য উৎসর্গ করে দেন৷ একাত্তরে যারা দেশের জন্য যুদ্ধ করতে গিয়েছিলেন, তারা জানতেন তারা আর নাও ফিরতে পারেন৷ হয়তো কোনোদিন আর মায়ের সাথে দেখা হবে না, সন্তানকে কোলে নিতে পারবেন না, প্রিয়তম স্ত্রীর চোখে খুঁজবেন না দুদণ্ড শান্তি৷ তবুও মানুষ যুদ্ধে যায়, দেশের জন্য ধর্মের জন্য, জাতির জন্য, প্রাণ দেয় ভাষার জন্য৷ এটাই দেশপ্রেম, জাতীয়তাবোধ৷

আসলে দেশপ্রেম এমন এক তীব্র অনুভূতি যার পুরোটা কখনোই ভাষায় প্রকাশ করা যায় না৷ গণজাগরণ মঞ্চে লাখো মানুষের সাথে কণ্ঠ মিলিয়ে ‘আমার সোনার বাংলা…' গাইতে গাইতে কখন চোখ জলে ভেসে যায় টেরই পাই না৷ শুধু গণজাগরণ মঞ্চ বলে নয়, জীবনে যতবার জাতীয় সঙ্গীতে গলা মিলিয়েছি, ততবারই গলা আর্দ্র হয়ে আসে৷ বিদেশের মাটিতে পুরস্কার মঞ্চে দাড়িয়ে জাতীয় সঙ্গীত শুনে মাবিয়া কেন কান্নয় ভেঙ্গে পড়েন আমি জানি৷ এই যে আমরা ক্রিকেটের জন্য গলা ফাটাই, পরাজয়ে মুষড়ে পড়ি; এটা আসলে যতটা না ক্রিকেটের জন্য, তার চেয়ে বেশি দেশের জন্য৷ দেশপ্রেম একটা ইনবিল্ট অনুভূতি৷আপনাকে ট্রেনিং দিয়ে দেশপ্রেমিক বানানো যাবে না৷ দেশের প্রতি, মাটির প্রতি, শিকড়ের প্রতি মানুষের যে টান; তা কখনো মুছে যায় না৷ নিরাপত্তাজনিত কারণে, অর্থনৈতিক কারণে মানুষ দেশ ছেড়ে যায় বটে, ভিন্ন দেশে অভিবাসন করে, বৈধ-অবৈধ উপায়ে উন্নত দেশে গিয়ে অনেকে থেকে যান৷ কিন্তু গিয়ে দেখুন হয়ত ২০ বছর দেশে আসতে পারছেন না, কিন্তু দেশের জন্য অন্তরে গভীর আবেগ ধারণ করেন৷ দেশভাগের পর ধর্মের কারণে অনেকে দেশ ছেড়েছেন৷ কিন্তু দেশ রয়ে গেছে তাদের অন্তরে৷ এখনও বাংলাদেশের কাউকে পেলে কলকাতার ‘বাঙাল'রা গভীর আবেগ নিয়ে দেশের কথা জানতে চান৷ তারা বাড়ির পাশের বটগাছ, তুলসিতলা, আঙ্গিনার গন্ধরাজের গল্প করেন৷ কারো যদি জন্মভূমিতে আসার সুযোগ হয়, গোপনে মাটি নিয়ে যান৷ দেশের মাটি মানেই তার কাছে পবিত্র, খাঁটি সোনার চেয়েও খাঁটি৷ ভারতের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী নচিকেতা কেন তার পূর্বপুরুষের ভিটায় এসে মাটিতে গড়াগড়ি করে শিশুর মত কাঁদেন? এর আসলে কোনো ব্যাখ্যা নেই৷ দেশপ্রেম ঈমানের অঙ্গ বা জননী জন্মভূমি স্বর্গাদপি গরীয়সী- এসব কথা বলে দেশপ্রেম বাড়ানো বা কমানো যায় না৷ তবে গভীর আবেগ দিয়ে দেশের কোনো লাভ হয় না৷ দেশকে সত্যি সত্যি ভালোবাসলে দেশের জন্য কাজ করতে হয়৷ সবাইকে যে দেশের জন্য জীবন দিতে হবে তা নয়; যার যার নিজ নিজ জায়গা থেকে দেশের জন্য কাজ করতে হবে৷ যেখানে সেখানে ময়লা না ফেলাটাও দেশকে ভালোবাসার নিদর্শন৷   

দেশপ্রেম অবশ্যই ভালো৷ কিন্তু বাড়াবাড়ি কোনোকিছুই ভালো নয়৷ অতিরিক্ত পানি খেলেও আপনি স্বাস্থ্য ঝুকিতে পড়তে পারেন, অতিরিক্ত ভাতও কিন্তু ক্ষতিকর৷ তেমনি বাড়াবাড়ি রকমের দেশপ্রেম বা কট্টর জাতীয়তাবোধ আপনাকে অন্ধ করে তুলতে পারে৷ আর বিবেকের অন্ধত্ব আপনাকে কুয়োর ব্যাং করে তুলতে পারে৷ আপনি আপনার দেশকে এতটাই ভালোবাসেন, যে অন্য কোনো দেশই আপনার ভালো লাগে না৷ দেশেপ্রেমের কারণে আপনি অন্য দেশকে, জাতিকে, ভাষাকে ঘৃণা করেন- তাহলেই সমস্যা৷ আপনি যদি সত্যি সত্যি আপনার দেশ, জাতি, ভাষা, ধর্মকে ভালোবাসেন; তাহলে অন্য দেশ জাতি, দেশ, ভাষা, ধর্মকে ঘৃণা করা আপনার পক্ষে সম্ভব নয়৷ সত্যিকারের ভালোবাসা থেকে ভালোবাসাই উৎসারিত হবে, ঘৃণা নয়৷

কট্টর জাতীয়তাবাদ যে কত ভয়ংকর তা বিশ্ব দেখেছে হিটলারের মাধ্যমে৷ দুটি বিশ্বযুদ্ধেরই পেছনের মূল কারণ কট্টর জাতীয়তাবাদ৷ তবে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর অনেকেই কট্টর জাতীয়তাবাদের বিপদটা টের পান৷ তাই একটি কল্যাণকামী বিশ্ব গড়ার আকাঙ্খায় একটা অলিখিত ঐকমত্য গড়ে ওঠে, জাতিসংঘের মাধ্যমে কিছু লেখাপড়াও হয়৷ কিন্তু আস্তে আস্তে বিশ্ব আবার বিপরীত দিকে হাটা শুরু করেছে যেন৷ দিকে দিকে আবার কট্টর জাতীয়তবাদের উত্থান ঘটছে৷ আসলে জাতীয়তাবাদ আর ধর্ম হলো চতুর রাজনীতিবিদের কঠিন অস্ত্র৷ জাতীয়তাবাদ আর ধর্মকে পুজি করে এই রাজনীতিবিদরা ঘৃণার চাষ করেন৷ সেই ঘৃণার পথ ধরেই ক্ষমতায় আরোহন করেন৷ ক্ষমতায় টিকে থাকতেও তাদের অস্ত্র সেই ধর্ম আর জাতীয়তাবাদ৷ তলে তলে জাতীয়তাবাদের এই বিষের চাষ হচ্ছিল অনেকদিন ধরেই৷ কেউ কেউ একটু আড়ালে-আবডালে বলছিলেনও৷ কিন্তু নব্বইয়ের দশকে সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পর এককেন্দ্রিক বিশ্বের শাসক মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে যখন ডনাল্ড ট্রাম্পের মত একজন প্রেসিডেন্ট হয়ে গেলেন, তখন আড়ালটা সরে গেল৷ চক্ষুলজ্জা ফেলে সবাই জাতীয়তাবাদের ঝান্ডা উড়িয়ে দিলেন৷ জাতীয়তাবাদে সমস্যা নেই, সমস্যা হলো কট্টর জাতীয়তাবাদে৷ ‘মেক আমেরিকা গ্রেট এগেইন' এই স্লোগান নিয়ে ভোটে লড়লেন ট্রাস্প এবং অবিশ্বাস্যভাবে জিতলেন৷ তখন অবিশ্বাস মনে হলেও, এখন মনে হচ্ছে মার্কিনীরা আসলে এমনই৷ আর মেয়াদজুড়ে ট্রাম্প যত অপকর্ম করেছেন আর যত মিথ্যা বলেছেন; তাতে তার কয়েকবার অভিশংসন হওয়া উচিত ছিল৷ কিন্তু আমি, নিশ্চিত করে বলতে পারি, ট্রাম্প আবারও নির্বাচিত হবেন৷ নির্বাচনের আগে থেকেই ট্রাম্পের প্রধান এজেন্ডা ছিল অভিভাসন ঠেকানো৷ মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল তুলতে টাকা বরাদ্দ না পাওয়ায় নিজের সরকার অচল করে দিতেও দ্বিধা করেননি এই জাতীয়তাবাতী মার্কিন প্রেসিডেন্ট৷ দীর্ঘ সময় ধরে গড়ে ওঠা অনেক মার্কিন মূল্যবোধ ধুলায় লুটিয়ে দিলেন ট্রাম্প একাই৷ বিশ্বজুড়ে যখন আঞ্চলিক ঐক্য আর দেয়াল ভাঙ্গার গান, তখন ট্রাম্প ধরেছেন উল্টো সুর৷ ভাঙা নয়, আবার দেয়াল গড়ার ধারণায় ফিরছে বিশ্ব৷ যুক্তরাষ্ট্রের এই জাতীয়তাবাদের ঢেউ লেগেছে যুক্তরাজ্যেও৷ রীতিমত ভোটাভুটি করে তারা ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ সেই ব্রেক্সিট নিয়ে এখন টালমাটাল যুক্তরাজ্য৷ ব্রেক্সিট ট্রাম্পের দেয়াল তোলার মতই স্বার্থপরতা, বিচ্ছিন্নতা, একলা চলার ডাক৷ একলা থাকলে যুক্তরাষ্ট্র এবং যুক্তরাজ্য হয়তো খারাপ থাকবে না৷ কিন্তু সবাইকে নিয়ে ভালো থাকা আর একা একা ভালো থাকার যে পার্থক্য সেটা বোঝার মত বিবেচনাবোধ ট্রাম্পদের নেই৷

বিশ্বের অনেকগুলো সমস্যা এখন এই জাতীয়তাবাদ বা ধর্মীয় মৌলবাদ থেকে সৃষ্ট৷ মিয়ানমার সরকার রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব বাতিল করে তাদের পরিণত করেছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় রাষ্ট্রহীন জনগোষ্ঠিতে৷ সেখানেই থেমে থাকেনি মিয়ানমার, তাদের ঠেলে পাঠিয়েছে বাংলাদেশে৷ আর বাংলাদেশে আগে থেকেই আছে কয়েক লাখ আটকেপড়া পাকিস্তানি৷ রোহিঙ্গাদের জোর করে পাঠানো হলেও, পাকিস্তানীরা ৪৭ সালে দেশভাগের পর ভারতের বিভিন্ন রাজ্য থেকে তখনকার পুর্ব পাকিস্তানে এসেছিল৷ একাত্তরে পূর্ব পাকিস্তান স্বাধীন বাংলাদেশ হয়ে গেলে ভারত থেকে আসা এই মুসলমানেরা আটকে পড়ে বাংলাদেশে৷ কখনো পাকিস্তান না দেখা এই জনগোষ্ঠি ধর্মের বিবেচনায় আটকে পড়া পাকিস্তানি৷

১৯৪৭ সালে দ্বিজাতিত্বত্ত্বের ভিত্তিতে স্বাধীন হয়েছিল ইসলামি রাষ্ট্র পাকিস্তান, যদিও সে রাষ্ট্র ২৩ বছরেই ভেঙ্গে গেছে৷ মুক্তিযুদ্ধে স্বাধীন হয়েছে বাংলাদেশ৷ তবে ভারত এগিয়ে চলে ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্র হিসেবে৷ এখনও কাগজে-কলমে ভারত ধর্মনিরপেক্ষ বটে, কিন্তু বাস্তবে নয়৷ নরেন্দ্র মোদী আর অমিত শাহ মিলে ভারতকে কট্টর হিন্দু রাষ্ট্রে পরিণত করছে৷ সংখ্যাগরিষ্ঠতার জোরে সংবিধান সংশোধন করে কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা কেড়ে নেয়া হয়েছে৷ কারণ সেটি মুসলিম অধ্যূষিত৷ আসামে নাগরিক তালিকা প্রকাশ করে বাঙালি মুসলমানদের কোণঠাসা, এমনকি সুযোগ পেলে দেশছাড়া করার হুমকি দিয়েছে৷ একদিকে পাকিস্তানে ইসলামী মৌলবাদ, আরেকদিকে ভারতে হিন্দু মৌলবাদ৷ মূদ্রার এপিঠ আর ওপিঠ৷

এই যে দেশে দেশে অভিভাসীদের ভিড়, শরাণার্থী শিবিরগুলো খালি বড় হচ্ছে, বাড়ছে রাষ্ট্রহীন মানুষের সংখ্যা; এসবই কিন্তু আমাদের কারো না কারো দেশপ্রেম বা জাতীয়তাবাদের ফল৷ যতদিন আমরা সবাইকে নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার ভাবনায় ফিরতে না পারবো, ততদিন বিশ্বজুড়ে এ ধরনের সঙ্কট আরো বাড়বে, রাষ্ট্রহীন মানুষের সংখ্যা বাড়বে, অভিবাসনপ্রত্যাশী মানুষের স্রোত আরো লম্বা হবে৷ আসাম বা কাশ্মীর নিয়ে যখন আমরা কথা বলি, তখন বলা হয়, এটা ভারতের অভ্যন্তরীণ ব্যাপার৷ কিন্তু কাশ্মীর আর আসামে লাখ লাখ মানুষকে নিপীড়ন করা কোনোভাবেই কোনো দেশের অভ্যন্তরীন বিষয় হতে পারে না৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

নিপীড়নের প্রতিবাদ করার দায়িত্ব বিশ্বের সকল বিবেকবান মানুষের৷ রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে কথা বলার সময়ও আমি বিভ্রান্ত হয়ে যাই৷ মিয়ানমার সেনাবাহিনী হত্যা করে, ধর্ষণ করে, আগুন লাগিয়ে রোহিঙ্গাদের বাড়িছাড়া করে৷ মানবিক বাংলাদেশ তাদের সবাইকে আশ্রয় দেয়৷ আমি আশা করেছিলাম, বিশ্বের সবাই বাংলাদেশের পাশে থাকবে৷ সম্মিলিত চাপে মিয়ানমার বাধ্য হবে রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে৷ কিন্তু কিসের কী৷ বুঝলাম, আমি খুব বোকা৷ দুই বছর হয়ে গেছে, একজন রোহিঙ্গাও ফিরে যায়নি৷ বরং মিয়ানমারের নানামাত্রিক টালবাহানা চলছেই৷ চীন-রাশিয়া যখন মিয়ানমারের পক্ষে থাকে, আমি অবাক হই৷ কোনো সভ্য রাষ্ট্র কিভাবে মিয়ানমারের পক্ষে থাকতে পারে? কিন্তু সবাই বলে, এখানে স্বার্থটাই আসল৷ সবাই নিজের স্বার্থটা দেখবে৷ আমি দ্বিমত করছি না৷ সবাই অবশ্যই নিজের স্বার্থটাই দেখবে৷ কিন্তু তাই বলে, স্বার্থের কথা বলে, এত বড় অন্যায়ের পক্ষ নেবে৷ স্বার্থটাই সব; ন্যায্যতা, মানবতা বলে কিছু থাকতে নেই বুঝি৷ ১২ লাখ মানুষের জীবনের চেয়ে চীনের কাছে স্বার্থটাই বুঝি বড়?

তবে সবাইকে নিয়ে চলা মানেই কিন্তু দেশকে ভুলে যাওয়া নয়৷ দেশকে ভালোবেসেই বিশ্ব মানবতার কল্যাণে কাজ করা সম্ভব৷ শতবছর আগে ব্রতচারী আন্দোলনের প্রবর্তক গুরুসদয় দত্ত লিখে গেছেন – 'বিশ্বমানব হবি যদি/কায়মনে বাঙ্গালী হ'৷ আমি যখন গাই ‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি…' তার মানে কিন্তু এই নয়, আমি বাকিদের ঘৃণা করি৷ হতে পারে, আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় সবচেয়ে বেশি ভালোবাসি; কিন্তু ভালোবাসি বিশ্ব মানবতার সবাইকেই৷ ‘সকল দেশের রাণী সে যে আমার জন্মভূমি…' এই গানকে কেউ কেউ কট্টর জাতীয়তাবাদী বলেন৷ কিন্তু এটা দেশাত্মবোধক গান বটে, তবে কট্টর জাতীয়তাবাদী নয়৷ আমি জানি বাংলাদেশ বিশ্বের সেরা দেশ নয়৷ কিন্তু আমার কাছে আমার দেশই সেরা৷ ছেড়া শাড়ি পড়া হলেও, মূর্খ হলেও, কালো হলেও আমার মাই কিন্তু আমার কাছে সেরা৷ মায়ের বদন মলিন হলে যদি আপনার নয়ন জলে ভাসে, তাহলে বুঝতে হবে আপনি আপনার মাকে ভালোবাসেন, আপনার দেশকে ভালোবাসেন৷ এই সংবেদনশীলতাই আপনাকে আরো ভালো মানুষ করে তুলবে৷ আর আপনি যখন সত্যিকারের ভালো মানুষ হয়ে উঠবেন; তখন দেশ-জাতি-ভাষা-বর্ণ-ধর্ম কিছুই আপনার কাছে গুরুত্বপূর্ণ হবে না৷ আপনি মানুষকে বিবেচনা করবেন মানুষ হিসেবেই৷ নিছক দেশের স্বার্থ নয়, আপনি সবকিছু বিবেচনা করবেন ন্যায্যতা দিয়ে, বিবেচনা দিয়ে৷ এমনকি আপনার প্রিয় দেশও কোনো অন্যায় করলেও আপনি তার প্রতিবাদ করবেন৷ এটাই সত্যিকারের দেশপ্রেম, জাতীয়বাদ, মানবতাবাদ৷

সাংবাদিক প্রভাষ আমিনের লেখাটি কেমন লাগলো জানান বন্ধুরা, লিখুন নীচের ঘরে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

বিজ্ঞাপন