মাহমুদুল্লাহর আকস্মিক বিদায়ী টেস্টে বাংলাদেশের জয় | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 11.07.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

ক্রিকেট

মাহমুদুল্লাহর আকস্মিক বিদায়ী টেস্টে বাংলাদেশের জয়

দলগত সাফল্যে হারারে টেস্টে জিম্বাবোয়েকে ২২০ রানে হারালো বাংলাদেশ৷ এই ম্যাচের মধ্য দিয়ে সবাইকে অবাক করে টেস্ট ক্রিকেটকে আকস্মিক বিদায় জানালেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ৷

প্রথম ইনিংসে তাসকিনকে সঙ্গে নিয়ে বাংলাদেশকে ব্যাটিং বিপর্যয় থেকে উদ্ধার করেন মাহমুদুল্লাহ

প্রথম ইনিংসে তাসকিনকে সঙ্গে নিয়ে বাংলাদেশকে ব্যাটিং বিপর্যয় থেকে উদ্ধার করেন মাহমুদুল্লাহ

গুঞ্জনটা শোনা যাচ্ছিল প্রথম ইনিংসে তার ঝলমলে সেঞ্চুরির পরই৷ তবে সংবাদ মাধ্যমে মাহমুদুল্লাহ বা দলের কেউই পরিস্কার কিছু বলেননি৷ বিসিবি প্রধানও এই গুঞ্জনে বিষ্ময় প্রকাশ করে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিলেন স্থানীয় কয়েকটি সংবাদমাধ্যমে৷

তবে জল্পনা কল্পনার অবসান হয় পঞ্চম দিনে বাংলাদেশ দল মাঠে নামলে৷ টিমমেটরা দুই ভাগ হয়ে বিদায়ের ‘গার্ড অব অনার' দেন বাংলাদেশ ক্রিকেটের ‘মিস্টার কুলকে'৷

ইএসপিএন ক্রিকইনফো তাদের প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে টেস্টের তৃতীয় দিন শেষেই মাহমুদুল্লাহ সতীর্থদের তার সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দেন বলে জানা যায়৷ এর আগে ১৫০ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলে তাসকিনকে সঙ্গে নিয়ে বাংলাদেশকে ব্যাটিং বিপর্যয় থেকে উদ্ধার করেন তিনি৷ সেদিন বিসিবির অফিশিয়াল ফেসবুক পেজে প্রকাশিত এক ভিডিওতে খেলা নিয়ে কথা বললেও অবসরের বিষয়ে মুখ খোলেননি৷

বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান অবসরের এই গুঞ্জনের বিষয়ে সংবাদ মাধ্যমে মাহমুদুল্লাহর সমালোচনা করে বলেন, ম্যাচের মাঝপথে এমন সিদ্ধান্তে নিলে তাতে দলের উপর নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে৷ দৈনিক প্রথম আলোকে তিনি বলেন, ‘‘আমাকে আনুষ্ঠানিকভাবে কেউ কিছু বলেননি৷ তবে একজন ফোন করে জানিয়েছে, এই টেস্টের পর আর সে (মাহমুদউল্লাহ) টেস্ট খেলতে চায় না৷ ড্রেসিংরুমে নাকি সবাইকে সে এটা বলেছে৷ কিন্তু আমার কাছে এটা খুবই অস্বাভাবিক লেগেছে৷ খেলা তো এখনো শেষ হয়নি!’’ টেস্ট খেলার বিষয়ে মাহমুদুল্লাহ লিখিত দিয়েছিলেন উল্লেখ করে তিনি বলেন সেজন্যই তাকে দলে নেয়া হয়েছিল৷

তবে বাংলাদেশের অন্যতম নির্ভরযোগ্য এই ব্যাটসম্যান সাম্প্রতিক সময়ে টেস্ট ক্রিকেটে অনিয়মিত হয়ে পড়েন৷ ইনজুরির কারণে তামিম ইকবালের অনুপস্থিতিতে ১৮ মাস পর তাকে বেছে নিতে বাধ্য হন নির্বাচকরা৷ সুযোগ পেয়েই ব্যাট হাতে এই অবহেলার জবাব দেন তিনি৷ ২৭৮ বলে ১৭ চার ও এক ছয়ে তুলে নেন ১৫০ রান ও ক্যারিয়ারের পঞ্চম সেঞ্চুরি৷ তবে এই ইনিংসের মাহাত্ম্য তার চেয়েও বেশি৷ ২৭০ রানে আট উইকেট হারানোর পর টেল এন্ডার তাসকিনকে সাথে নিয়ে গড়েন ১৯০ রানের জুটি, যা নবম উইকেটে টেস্ট ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ৷ এই দুইজনের বদৌলতে ৪৬৮ রানের বড় সংগ্রহ নিয়ে জিম্বাবোয়েকে চাপে ফেলে টাইগাররা৷ জবাবে প্রথম ইনিংসে ২৭৬ রানেই গুটিয়ে যায় স্বাগতিকরা৷ মেহেদি হাসান মিরাজ পাঁচ ও সাকিব আল হাসান তুলে নেন চার উইকেট৷

নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে ঘুরে দাঁড়ায় বাংলাদেশের টপ অর্ডার৷ সাদমান (১১৫) ও শান্তর (১১৭) সেঞ্চুরিতে এক উইকেট হারিয়ে ২৮৪ রানে ইনিংস ঘোষণা করে মুমিনুল বাহিনী৷ ৪৭৭ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে তাসকিন ও মিরাজের আঘাতে জিম্বাবোয়ের প্রতিরোধ থামে ২৫৬ রানে৷ দুইজনই নিয়েছেন চারটি করে উইকেট৷

বাংলাদেশের এই বিজয়ের খবর ছাপিয়ে দর্শকদের কাছে মাহমুদুল্লাহর বিদায়ই অবশ্য বড় প্রশ্ন হয়ে দেখা দিয়েছে৷ এই সিদ্ধান্তকে অভিজ্ঞ এই ক্রিকেটারের প্রতি নির্বাচকদের আচরণের প্রতিবাদ হিসেবে দেখছেন অনেকে৷ ২০০৯ সালে টেস্টে ডেব্যু হওয়া মাহমুদুল্লাহ বাংলাদেশ দলে নিয়মিত খেলেছেন ২০১৭ পর্যন্ত৷ এরপর থেকে মাঝেমধ্যেই দলে জায়গা হারাতে শুরু করেন৷ সিদ্ধান্তে অনড় থাকলে এই ক্রিকেটারকে আর দেখা যাবে না লাল বল ও সাদা জার্সিতে ক্রিকেটের দীর্ঘ সংস্করণে৷

এফএস/এডিকে

সংশ্লিষ্ট বিষয়