মানুষের আচরণের উপর রংয়ের প্রভাব | অন্বেষণ | DW | 29.07.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

মানুষের আচরণের উপর রংয়ের প্রভাব

প্রায় সবারই পছন্দের রং রয়েছে৷কিন্তু রং আসলে আমাদের আচরণের উপর কতটা প্রভাব রাখে৷ একাধিক বৈজ্ঞানিক পরীক্ষার মাধ্যমে এই প্রশ্নের উত্তর খোঁজা হচ্ছে৷ দেখা যাচ্ছে,মানুষের মস্তিষ্ক দ্রুত পরিবেশের সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে নিতে পারে৷

রংয়ের কী প্রভাব থাকতে পারে? আমাদের উপর রংয়ের প্রভাব সম্পর্কে প্রচলিত ধারণার কোনো অভাব নেই৷ যেমন বলা হয়ে থাকে, লাল রং নাকি সক্রিয় করে তোলে৷ নীল রং আস্থা জাগায়৷ আর সবুজ রং নাকি আমাদের আরাম দেয়৷ বিজ্ঞানের মানদণ্ড ব্যবহার করে কি রংয়ের প্রভাবের প্রমাণ পাওয়া সম্ভব? কিন্তু রং আসলে কী?

মানুষের চোখ লাখ লাখ রং আলাদা করতে পারে৷ আসলে রং কিন্তু আমাদের ধরাছোঁয়ার বাইরে৷ কারণ বিজ্ঞান বলছে, একমাত্র তরঙ্গদৈর্ঘ্য হিসেবে রংয়ের অস্তিত্ব রয়েছে৷ রং আসলে আলোর ইলেকট্রোম্যাগনেটিক বিকিরণের সামান্য অংশমাত্র৷ অনেকটা এক্সরে, অতি বেগুনি রশ্মি বা বেতার তরঙ্গের মতো৷

খালি চোখে দেখা যায়, এমন আলোর মাত্রা সাধারণত ৪০০ থেকে ৭৮০ ন্যানোমিটার পর্যন্ত হয়৷ সেই বিকিরণ রংয়ের রূপে দেখা যায়৷ এই সব তরঙ্গদৈর্ঘ্য একসঙ্গে সাদা রং সৃষ্টি করে৷ নির্দিষ্ট কোনো রং বার করতে কী করতে হয়?

ভিডিও দেখুন 03:51

রং আমাদের শরীরে কি কোনো প্রভাব ফেলে?

ব্যাপারটা এভাবে ঘটে৷ সাদা আলো কোনো বস্তুর উপর পড়ে৷ বস্তু তার কিছু অংশ গিলে ফেলে৷ বাকি অংশের প্রতিফলন ঘটে৷ তাই সব তরঙ্গদৈর্ঘ্য আমাদের চোখ পর্যন্ত পৌঁছায় না৷ মস্তিষ্ক সেই আলোর সঙ্কেতের ব্যাখ্যা দেয়৷ ফলে আমরা চিনতে পারি যে টমেটোর রং লাল! অর্থাৎ রং সবার আগে আমাদের মনে জন্ম নেয়৷ কিন্তু সে কারণেই কি রং আমাদের উপর প্রভাব রাখতে পারে?

সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডল অনুযায়ী সেই প্রভাবে হেরফের হয়৷ কারণ রংয়ের প্রভাব শিক্ষাদীক্ষার উপরেও কিছুটা নির্ভর করে৷ শুধু লাল ও সবুজ রংয়ের ক্ষেত্রে মানুষ সম্ভবত বিবর্তনের সময় থেকে একই মনোভাব দেখিয়ে আসছে৷ মনস্তাত্ত্বিক হিসেবে হাইকো হেশ্ট এক পরীক্ষার মাধ্যমে এই সত্য জানার চেষ্টা করেছেন৷ তিনি বলেন, ‘‘আমরা সব সময়ে একই ওয়াইন পান করেছি৷ একবার একদল মানুষ লাল আলোর নীচে তা পান করেছে৷ দ্বিতীয় দল সবুজ আলোর নীচে সেটা করেছে৷ দেখা গেছে, তাঁদের উপর রং বিশাল প্রভাব ফেলেছে৷''

যারা সবুজ আলোর নীচে সেই ওয়াইন পান করেছেন, তাঁদের স্বাদ টক লেগেছে৷ একেবারেই পছন্দ হয় নি৷ যে দল লাল আলোর নীচে সেই ওয়াইন পান করেছে, তাদের স্বাদ খুব ভালো লেগেছে৷ এমনকি ওয়াইনের বোতলের জন্য এক ইউরো বেশি দিতেও তারা প্রস্তুত ছিল৷

খাবারের মধ্যে লাল রং পরিপূর্ণতার প্রতীক এবং আমাদের স্বাদেরও উন্নতি ঘটায়৷ তবে লাল আলোও যে একই প্রভাব রাখতে পারে, এমনটা আগে জানা ছিল না৷

লাল রং কি আমাদের কর্মক্ষমতার উপরেও প্রভাব রাখে? অন্য একটি পরীক্ষার মাধ্যমে হাইকো হেশ্ট তা জানতে চেয়েছিলেন৷ এই পরীক্ষার আওতায় স্বেচ্ছাসেবীদের বিভিন্ন রংয়ের পরিবেশে বসানো হয়েছিল এবং তাঁদের কাছে হুবহু এক অঙ্ক, ভাষা ও ধাঁধার প্রশ্ন রাখা হয়েছিল৷ সবাই একই রকম ভালো ফল করেছে৷ এ ক্ষেত্রে লাল রংয়ের সম্ভবত কোনো প্রভাব ছিল না৷

কিন্তু ওয়াইন নিয়ে পরীক্ষার সময় কেন পার্থক্য দেখা গিয়েছিল? মনস্তত্ত্ববিদ হিসেবে হাইকো হেশ্ট বলেন, ‘‘আংশিকভাবে আবেগের মাধ্যমে সেই প্রতিক্রিয়া দেখা গিয়েছিল বলে মনে হয়৷ অপেক্ষাকৃত কম সময়ের জন্য আবেগ কাজ করে৷ অর্থাৎ এ ক্ষেত্রে স্বল্পমেয়াদী প্রভাব দেখা গিয়েছিল৷ আচমকা সব লাল হয়ে যাওয়ায় আবেগেও পরিবর্তন ঘটেছিল, যা সরাসরি ওয়াইনের স্বাদে পার্থক্য এনেছিল৷ কোনো ছাত্রীকে এক ঘণ্টার জন্য পরীক্ষায় বসালে এবং পরে লাল আলোর নীচে একই কাজ করতে দিলে আমাদের উপলব্ধিবোধ যথেষ্ট দ্রুত পরিবর্তিত পরিবেশের সঙ্গে মানিয়ে নেয়৷ লাল রংয়ের অস্তিত্ব খেয়ালও করে না৷''

রং আমাদের উপর প্রভাব ফেলে কিনা, পরিস্থিতির উপর তা নির্ভর করে৷ স্বল্পমেয়াদী ভিত্তিতে রং আমাদের অনুভূতির উপর প্রভাব দেখায়৷ কিন্তু কিছু সময়ের মধ্যে মস্তিষ্ক পরিবেশের সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে নেয়, এমনকি কিছু রং পুরোপুরি মুছে ফেলে৷ সবটাই অবচেতন মনে ঘটে৷

আনা সাকো/এসবি 

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন