মাদ্রাসা ছাত্রীকে ‘পরিকল্পিতভাবে’ পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টা | বিশ্ব | DW | 07.04.2019
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

মাদ্রাসা ছাত্রীকে ‘পরিকল্পিতভাবে’ পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টা

যৌন হয়রানির মামলা করায় ফেনীতে মাদ্রাসা ছাত্রীকে মাদ্রাসার ছাদেই আগুনে পুড়িয়ে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে৷ মামলার আসামি মাদ্রাসা অধ্যক্ষ আগেই গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে আছেন৷ তার অনুগতরা হত্যাচেষ্টার সাথে জড়িত বলে অভিযোগ উঠেছে৷

ঘটনা শনিবার সকালের৷ ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসায় সকাল ১০টায় আলিম পরীক্ষা শুরুর কিছুক্ষণ আগে ওই ঘটনা ঘটে৷ সকাল সাড়ে ৯টার দিকে সে পরীক্ষা দিতে গেলে হলে ঢোকার আগেই তার এক বন্ধবীকে তিনতলার ছাদে নির্যাতন করা হচ্ছে খবর দিয়ে সেখানে নেয়া হয়৷ ছাদে যাওয়ার পর ৪-৫জন বোরখা পড়া দুর্বৃত্ত তার শরীরের তরল দাহ্য পদার্থ (কেরোসিন) ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়৷

গুরুতর আহত ছাত্রীটিকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে নিয়ে এসে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে৷ তাকে আইসিইউতে রাখা হয়েছে৷ চিকিৎসকরা বলেছেন তার অবস্থা আশঙ্কাজনক৷ ডা. সামান্ত লাল সেন এই বিষয়ে বলেন, ‘‘তার চিকিৎসায় ৮ সদস্যের একটি মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করেছি৷ আমরা তার শারীরিক অবস্থা নিয়ে উদ্বিগ্ন আছি৷ আশঙ্কায় আছি৷''

অডিও শুনুন 05:35

‘যারা ঘটনা ঘটিয়েছে তারা ভিতরেই ছিল’

 

যৌন হয়রানির মামলাই কি কাল হলো?

মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলার বিরুদ্ধে আগে ধর্ষণ চেষ্টার মামলা করেছিল এই ছাত্রী৷ ২৭ মার্চ অধ্যক্ষ তার কক্ষে ডেকে নিয়ে অনৈতিক প্রস্তাব দেন৷ তাকে পরীক্ষার প্রশ্নপত্র আগাম দেয়ার কথা বলেন৷ ছাত্রীটি এর প্রতিবাদ করলে তাকে যৌন হয়রানির চেষ্টা করে৷ এই ঘটনায় ছাত্রীর মা মামলা দায়ের করলে পুলিশ অধ্যক্ষকে গ্রেপ্তার করে৷ সে এখন কারাগারে আছে৷

তবে, অধ্যক্ষ গ্রেপ্তার হওয়ার পর মাদ্রাসায় শিক্ষার্থীদের মাঝে দু'টি গ্রুপ হয়ে যায়৷ শিক্ষার্থীদের একটি অংশ অধ্যক্ষের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ করে৷ আরেকটি অংশ অধ্যক্ষের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করে৷ অভিযোগ আছে স্কুলের ব্যবস্থাপনা কমিটির একজন মামলা তুলে নেয়ার জন্য চাপ দিচ্ছিলেন৷ এছাড়া টেলিফোনেও হুমকি দেয়া হয়েছে৷

যৌন হয়রানি ও অধ্যক্ষ গ্রেপ্তার হওয়ার পর ছাত্রীর বড় ভাই তাকে মাদ্রাসায় দিয়ে আসতেন৷ কিন্তু শনিবার সে নিয়ে গেলেও তাকে মাদ্রাসার ভিতরে ঢুকতে দেয়া হয়নি৷ 

আলোচিত মাদ্রাসাটি তিন তলা৷ সেখানে সহশিক্ষা প্রচলিত রয়েছে৷ রবিবার সরেজমিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে সাংবাদিক রফিকুল ইসলাম ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘মাদ্রাসাটি সুরক্ষিত৷ ঘটনার দিন গেটে পুলিশ ছিল তাই বাইরে থেকে কেউ গিয়ে ওই ছাত্রীটিকে আগুনে পুড়িয়েছে এমন আশঙ্কা কম৷ যারা ঘটনা ঘটিয়েছে তারা ভিতরেই ছিল৷ তবে প্রত্যক্ষদর্শীরা ছাদে গিয়ে আর কাউকে পায়নি৷ অথবা কাউকে দৌড়ে পলাতে দেখেনি৷ ঘটনাটি পূর্ব পরিকিল্পিতই মনে হচ্ছে৷''

তিনি বলেন, ‘‘ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে অধ্যক্ষ গ্রেপ্তার হওয়ার পর ব্যবস্থা কমিটিতে থাকা আওয়ামী লীগের দু'টি গ্রুপ দুই দিকে অবস্থান নেয়৷ তারাই মিছিল পাল্টা মিছিল করেছিল৷ অধ্যক্ষ আগে জামায়াত করতেন৷ নানা অভিযোগে জামায়াত তাকে বহিস্কার করার পর আওয়ামী লীগের একজন ওয়ার্ড কাউন্সিলরের সহায়তায় তিনি মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল পদে টিকে আছেন৷''

ঘটনা পূর্বপরিকল্পিত

এদিকে, সোনাগাজী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোজাম্মেল হোসেন ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘এখনো পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো মামলা হয়নি৷ তবে আমরা ২ জনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করছি৷ তারা পুরুষ, তারা এর আগে ছাত্রীটিকে হুমকি দিয়েছে৷''

তিনি বলেন, ‘‘এই ঘটনা পূর্ব পরিকল্পিত হতে পারে৷ আর এখানে বাইরে থেকে কেনো লোক আসার তেমন সুযোগ নেই৷ আমরা চেষ্টা করছি জড়িতদের চিহ্নিত এবং আটক করতে৷''

আহত হওয়ার পর অবশ্য ওই ছাত্রী এম্বুলেন্সে একটি বক্তব্য দিয়েছে৷ সেই বক্তবের অডিও ডয়চে ভেলের হাতেও এসেছে৷ তাতেই ওই ছাত্রী বলেছেন, ‘‘সকালে আরবি প্রথমপত্র পরীক্ষায় অংশ নিতে মাদ্রাসায় যাই৷ মাদ্রাসায় পৌঁছলে এক ছাত্রী আমার বান্ধবী নিশাতকে ছাদের উপর কেউ মারছে বলে ডেকে নেয়৷ সেখানে আরও চার-পাঁচজন মুখোশধারী ছাত্রী ছিলেন৷ তারা বলেন, প্রিন্সিপালের উপর যে অভিযোগ করেছিস তা মিথ্যা, বল৷ আমি বলি না, আমি যা বলেছি সব সত্যি৷ তারা বলে, তোকে এখনই মেরে ফেলবো৷ আমরা তোর সব খবর নিছি৷ 

অডিও শুনুন 00:34

‘এখনো পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো মামলা হয়নি’

অডিও রেকর্ডে ও শিক্ষার্থী আরো বলেন, ‘‘আমি বলি, আমি সব সত্য বলেছি৷ আমি শিক্ষকদের সম্মান করি, কিন্তু যে শিক্ষক আমার গায়ে হাত দিয়েছে আমি তার প্রতিবাদ করেছি৷ সঙ্গে সঙ্গে তারা আমার হাত-পা চেপে ধরে গায়ে আগুন ধরিয়ে দেয়৷''

উল্লেখ্য, ঢাকায় হাসপাতালে ওই ছাত্রীর বাবা-মা এবং দুই ভাই রয়েছেন৷ তবে তারা মানসিকভাবে এতটাই বিপর্যস্ত যে তাদের সঙ্গে বারবার চেষ্টা করেও বিস্তারিত কথা বলা যায়নি৷ তার ছোটভাই রাশেদুল হাসান রায়হান ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘আমার অপার অবস্থা খুবই খারাপ, আশঙ্কাজনক৷ তার শেষ পর্যন্ত কি হয় জানিনা৷''

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন