মাদক মামলায় পরীমনির বিরুদ্ধে অভিযোগ আদালতের আমলে | বিশ্ব | DW | 15.11.2021

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

বাংলাদেশ

মাদক মামলায় পরীমনির বিরুদ্ধে অভিযোগ আদালতের আমলে

চিত্রনায়িকা পরীমনিসহ তিনজনের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে দেওয়া মামলায় পুলিশের অভিযোগপত্র আমলে নিয়েছেন আদালত৷ এবং শুনানির নতুন তারিখ পড়েছে আগামী ১৪ ডিসেম্বর৷

আজ সোমবার ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক কে এম ইমরুল কায়েশ এই তারিখ ঠিক করেন৷ আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) তাপস কুমার পাল প্রথম আলোকে তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন৷

পরীমনি আজ আদালতে হাজির ছিলেন৷ ১৩ অক্টোবর মামলাটি ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতে বদলি করা হয়৷ পরীমনিসহ মামলার অপর দুই আসামি আশরাফুল ইসলাম ও কবির হোসেন জামিনে আছেন৷

গত ৪ আগস্ট রাজধানীর বনানীতে পরীমনির বাসায় অভিযান চালিয়ে  র‍্যাব মাদকদ্রব্য ৷ পরে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে গুলশান থানার মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়৷

৩১ আগস্ট ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালত মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়া পর্যন্ত পরীমনির জামিন মঞ্জুর করেন ৷ ১০ অক্টোবর পরীমনি ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) আদালতে হাজির হয়ে জামিন নেন ৷

গত ৪ অক্টোবর ঢাকার সিএমএম আদালতে পরীমনিসহ তিনজনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র জমা দেয় পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) ৷ অভিযোগপত্রে ১৯ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে ৷

পরীমনির বাসা থেকে জব্দ মাদকদ্রব্যের বৈধ কোনো কাগজপত্র ছিল না বলে অভিযোহপত্রে বলা হয়েছে৷ সিআইডিকে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পক্ষ থেকে লিখিতভাবে জানানো হয়, ২০১৯-২০ অর্থবছরে পরীমনির নামে মদজাতীয় পানীয় সেবনের লাইসেন্স দেওয়া হয় এবং ওই লাইসেন্সের মেয়াদ শেষ হয় গত বছরের ৩০ জুন ৷ পরীমনি মামলার দুই আসামি আশরাফুল ইসলাম ও কবির হোসেনের মাধ্যমে অবৈধ মাদকদ্রব্য সংগ্রহ করে বাসায় রেখেছিলেন৷ বাসায় মাদকদ্রব্য রাখা নিয়ে কোনো সন্তোষজনক জবাব দিতে পারেননি চিত্রনায়িকা পরিমনি৷

এনএস/কেএম (দৈনিক প্রথম আলো)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়