1. কন্টেন্টে যান
  2. মূল মেন্যুতে যান
  3. আরো ডয়চে ভেলে সাইটে যান
সমান অধিকারভারত

মাঠ তাদের কাছে একটুকরো মুক্তির জায়গা

গৌতম হোড়
২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২

বাধা কি আর একটা! ভারতে সিংহভাগ মেয়ের সামনেই তো থাকে বাধার এভারেস্ট৷ তাকে পেরিয়ে কতজনই আর সফল হয়!

https://p.dw.com/p/4HFzy
২০২০ সালের অলিম্পিকে অংশ নেয়া ভারতীয় নারী হকি দল
ছবি: Yang Shiyao/Xinhua/imago images

মেয়েদের পথে বাধা তো সেই জন্মানোর আগে থেকেই৷ মেয়ে হয়েছে কোনোভাবে জানতে পারলে, এখনো হিন্দি বলয়ের একটা বড় অংশে তাকে জীবনের আলোই দেখতে দেয়া হয় না৷ গর্ভপাত নামে অস্ত্রটা আছে না! সেসব এড়িয়ে যদিও বা মেয়ে জন্মালো তাহলে তাকে বুঝিয়ে দেয়া হয়, সে অবাঞ্ছিত৷ সবেতেই পুরুষের আগে ভাগ৷ তারা পাওয়ার পর তো মেয়ের ভাগ৷ তা সে  খেলা বা শিক্ষাই হোক অথবা মাছের পেটি৷ মেয়ে মানে যেন ঘরের কাজ করার জন্য জন্ম৷ খিড়কি থেকে সিংহদুয়ার যাওয়াটাও তাদের কাছে বড় কথা৷ আজও, এখনো৷

সেই মেয়ে বড় হয়৷ ঘরে নিষেধাজ্ঞার বেড়ায় বন্দি অবস্থায় দিন কাটতে থাকে৷ তখন তারা একটুকরো মুক্তির জায়গা খোঁজে৷ যেমন খুঁজেছিল বর্ধমানের মেয়ে সোনিয়া খাতুন৷ সোনিয়ার কাছে একটুকরো ফুটবল মাঠ ছিল মুক্তির জায়গা৷ কিন্তু হাফপ্যান্ট পরে খেলতে হবে, বাড়ি ফিরতে দেরি হবে, বাইরে গিয়ে খেলতে হবে, এ সব নিয়ে পরিবারের ছিল মহা-আপত্তি৷ সোনিয়ার বাবা ঘাস কেটে মাসে হাজার চারেক টাকা রোজগার করেন৷ এই গরিব পরিবারের মেয়ে কিছুদিন আগে কলকাতায় এসেছিল একটি ফুটবল প্রতিযোগিতায় খেলতে৷ সেখানেই ডিডাব্লিউকে জানিয়েছিল তার এই কাহিনি৷

দক্ষিণ ২৪ পরগনার দীপিকা নস্করের কাহিনিও একইরকম৷ মেয়ে খেললে হাত-পা ভাঙতে পারে, তখন বিয়ে হবে না, তাই বাবা-মা ফুটবল খেলতে দিতে চাননি৷ জোর করে ফুটবল খেলেছেন দীপিকা৷ তার কাছেও ওই চামড়ার বল নিয়ে ড্রিবল করা, প্রতিপক্ষকে কাটিয়ে গোল করার চেষ্টার মধ্যে আছে মুক্তির আনন্দ৷ দক্ষিণ ২৪ পরগনার আরেক মেয়ে মল্লিকা সাঁপুই যেমন স্বপ্ন দেখেন ফুটবল খেলে অনেকদূর এগোবেন৷ নাম হবে৷ কাগজে ছবি বেরোবে৷ তাহলে বাড়ির বাধাও অতিক্রম করা যাবে৷

এদের স্বপ্নপূরণ হবে, নাকি বিয়ের বয়স হলেই সাতপাকে বাধা পড়তে হবে, তা জানি না৷ শুধু জানি, অতি গরিব পরিবার থেকে উঠে আসা এই মেয়েরা ঠিকভাবে খেতে পান না৷ বাড়ির, পাড়া-পড়শির, রক্ষণশীল সমাজের বাধা তো আছেই, তার উপরে আছে পুরুষদের লোভী দৃষ্টি৷ অনেক কিছুর বিরুদ্ধে তাদের লড়তে হয়৷ প্রতিপদে বাধা অতিক্রম করতে হয়৷

এরা কেউ ভারতীয় দলে খেলেনি, রাজ্য়ের দলেও নয়৷ কেউ কেউ জেলার দলে খেলেছে৷ বাবার মাসে আয় চার-পাঁচ হাজার টাকা৷ সেই জায়গা থেকে ফুটবল খেলে উঠে আসার জন্য বাধার এভারেস্ট পেরোতে হয় প্রতিদিন৷ তাও তারা লড়ছে৷ এই লড়াইটাই তাদের সম্বল, এই লড়াইটাই তাদের শক্তি, আর এই লড়াইটাই তাদের প্রেরণা৷

ভারতীয় নারী হকি টিমের দিকে তাকানো যাক৷ ২০২১-এর অলিম্পিকে যারা সেমিফাইনালে উঠেছিল৷ গ্রেট ব্রিটেনের কাছে সেমিফাইনালে তিন-চার গোলে হেরে যায়৷ শেষ পর্যন্ত ব্রোঞ্জ পায়৷

সেই দলের প্লেয়ার রানি রামপালের বাবা-মা তাকে বলেছিলেন, হকি খেলে কী হবে? ছোট স্কার্ট পরে খেলবে আর পরিবারের বদনাম হবে৷ বন্দনা কাটারিয়াকে বলা হয়েছিল, হকি মেয়েদের খেলাই নয়৷ পুরুষদের খেলা৷ নিশা ওয়ারসির মা একটা ফোম কারখানায় কাজ করেন৷ বাবা পক্ষাঘাতগ্রস্ত৷ মেয়ের জন্য সামান্য খাবারের ব্যবস্থা করতে পারেন তিনি৷ ঝাড়খণ্ডের আদিবাসী মেয়ে নিকি প্রধান খেতে কাজ করেন৷ ধার করে একটা ভাঙা হকিস্টিক দিয়ে খেলতেন৷ পাথর ভর্তি মাঠে খেলে নিজেকে তৈরি করেছেন৷

এখন ভারতীয় দলে খেলে সাফল্য পাওয়ার পর তাদের সুনাম হয়েছে, তারা সাফল্য পেয়েছেন৷ কিছুটা অর্থ হাতে এসেছে৷ কিন্তু তারা লড়াই ভোলেননি৷ তাদের প্রতিদিনের লড়াই৷ এখনো হকি স্টিক নিয়ে তারা যখন মাঠে নামেন, তখন চোয়াল শক্ত হয়৷ তারা নিজেদের তৈরি করেন আরেকটা লড়াইয়ের জন্য৷ তারা জানেন তাদের পথ ওই মাঠের মতো পাথর বিছানো থাকবে৷ কখনই মসৃন হবে না৷

কী মনে হচ্ছে? চাক দে ইন্ডিয়ার উপাদানও তো জীবন থেকে নেয়া৷ কমনওয়েলথ গেমসে মেয়েদের হকি টিমের সাফল্য থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে সিনেমার স্ক্রিপ্ট তৈরি হয়৷ কিন্তু এই ফুটবল বা হকি প্লেয়ারদের জীবন সিনেমার থেকেও অনেক অনেক বেশি খারাপ৷ আরো সংগ্রামের৷

গৌতম হোড়, ডয়চে ভেলে, নতুন দিল্লি
গৌতম হোড়, ডয়চে ভেলে, নতুন দিল্লিছবি: privat

একটা সময়, পশ্চিমবঙ্গে সিপিএম একটা স্লোগান দিত, ‘লড়াই লড়াই লড়াই চাই, লড়াই করে বাঁচতে চাই৷’ শ্রমজীবীদের জন্য মধ্যবিত্তদের কিছুটা রোম্যান্টিক স্লোগান৷ লড়াই প্রত্যেকের জীবনেই থাকে৷ ইন্দ্রা নুয়ি বা কিরণ মজুমদার শ-রাও লড়াই করে শিল্পসাম্রাজ্যের প্রধান হয়েছেন৷ কিন্তু এই সাধারণ, প্রত্যন্ত এলাকায় থাকা, একেবারে নাম না জানা মেয়েদের প্রতিদিনের লড়াইয়ের কাছে সবকিছু ফিকে হয়ে য়ায়৷ দেখে মনে হয়, বাধা টপকানোর জন্যই যেন মেয়েদের জন্ম হয়েছে৷ ঘরে পুরুষ-কর্তা, সংস্থায় পুরুষ কর্মকর্তা, কোচ থেকে শুরু করে সর্বত্রই তো পুরুষ রাজ৷ সেই পুরুষরাও তো মান্ধাতার আমলের ধ্যান ধারণা নিয়ে মেয়েদের সামনে শুধু বাধার গণ্ডিই কাটতে পারেন৷

এত বাধা পেরিয়ে তারা যখন সফল হন, তখন তো তাদের নিয়ে আলোড়ন হবেই৷ তখন মানুষ হইহই করে তাদের সম্বর্ধনা দেন, তাদের দেখতে প্রচুর ভিড় হয়৷ হাততালি দেয়া হয়৷ দিন কয়েক সংবাদমাধ্যমের পাতায় প্রশংসার ঝড় বয়ে য়ায়৷ কিন্তু তারপর? তাদের সামনে কি বাধার পাহাড় সরে যায়৷ নাহ, যায় না৷ তারা আবার পরিবারের, আশপাশের সব মানুষের বাধার মুখে পড়েন৷ আবার তাদের আপ্রাণ লড়াই করতে হয়৷ যারা সফল হন, তারা অল্পদিন হাততালি পান, যারা সাফল্য পান না, তারা অকালে ঝরে যান৷ মাঠ নয়, অন্য কোনো মুক্তির জায়গা নয়, তাদের ঠাঁই হয় সেই হেঁসেলে৷

একটা সংখ্যাতত্ত্ব দিয়ে শেষ করি, ৫২ শতাংশের বেশি ভারতীয় মেয়ের বিয়ে হয়ে যায় সাড়ে আঠারো বছর বয়সের মধ্যেই৷ আর ২৭ থেকে ৩২ শতাংশ মেয়ের বিয়ে হয় ১৭ বছর বা তার কম বয়সে৷ বাবার বাড়িতে থেকেই এত বাধার পাহাড় ঠেলতে হয় শুধু খেলার জন্য, পড়ার জন্য, সেখানে শ্বশুরবাড়িতে গেলে কী হবে তা রকেট সায়েন্সের মতো কঠিন কোনো বিষয় নয়৷ সহজেই বোঝা যায়৷

স্কিপ নেক্সট সেকশন এই বিষয়ে আরো তথ্য

এই বিষয়ে আরো তথ্য

স্কিপ নেক্সট সেকশন সম্পর্কিত বিষয়
স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

ডয়চে ভেলের শীর্ষ সংবাদ

বুধবারের সংঘাত ও একজন নিহত হওয়ার ঘটনায় পুলিশ তিনটি মামলা করেছে

ফের সংঘাতের রাজনীতি?

স্কিপ নেক্সট সেকশন ডয়চে ভেলে থেকে আরো সংবাদ
প্রথম পাতায় যান