মাইকেল ফ্লিনকে ক্ষমা করতে পারেন ট্রাম্প | বিশ্ব | DW | 25.11.2020
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

যুক্তরাষ্ট্র

মাইকেল ফ্লিনকে ক্ষমা করতে পারেন ট্রাম্প

২০১৬ মার্কিন নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের তদন্তে এফবিআইকে মিথ্যা তথ্য দেয়ার অভিযোগে ২০১৭ সালে দোষী সাব্যস্ত হয়েছিলেন মাইকেল ফ্লিন৷ প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প তাকে ক্ষমা করতে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছে বিভিন্ন মার্কিন গণমাধ্যম৷

মাইকেল ফ্লিন

মাইকেল ফ্লিন

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক জাতীয় উপদেষ্টা মাইকেল ফ্লিন প্রেসিডেন্টের ক্ষমা পেলে তার মামলাটি আর আদালতে গড়াবে না৷ ট্রাম্প তাঁর ঘনিষ্ঠ সহযোগীদের সঙ্গে এ ব্যাপারে কথা বলেছেন৷ মার্কিন নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের বিষয়টি তদন্তের সময় এফবিআইকে মিথ্যা তথ্য দেয়ার অভিযোগ স্বীকার করে নিয়েছিলেন ফ্লিন৷

আগামী ২০ জানুয়ারি নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন শপথ নেয়ার আগেই নিয়ম অনুযায়ী ট্রাম্পকে এই ক্ষমা ঘোষণা করতে হবে৷ মাইকেল ফ্লিন ক্ষমা পেলে তিনি হবেন ট্রাম্পের ক্ষমা পাওয়া সর্বোচ্চ পদাধিকারী ব্যক্তি৷ তবে ট্রাম্প যেকোনো সময় তার মত বদলাতে পারেন বলেও এক ঘনিষ্ঠ সূত্র সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন৷

ট্রাম্পের অভিষেকের আগে ২০১৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত রুশ রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে গোপন বৈঠক করেছিলেন ফ্লিন৷ রবার্ট ম্যুলারের নেতৃত্বে মার্কিন নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের ঘটনা তদন্তের সময় সেকথা গোপন করেন ফ্লিন৷ ট্রাম্প প্রশাসনের পথ চলার মাত্র ২২ দিনের মাথায় ফ্লিনকে বরখাস্ত করা হয়৷ যদিও সেই তদন্তকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে বরাবরই উল্লেখ করে আসছেন ট্রাম্প৷ ট্রাম্পের মতে, সাবেক আর্মি জেনারেল এবং প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা সংস্থার প্রধান ফ্লিন ‘ভালো মানুষ’৷

এই বছরেই বিচার বিভাগ ফ্লিনের বিরুদ্ধে মামলা তুলে নেয়৷ তার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ আনা হয়েছে তা ট্রাম্পের জয়ে কোন ভূমিকা রাখেনি বলে জানায় বিচার বিভাগ৷ যদিও একজন বিচারপতি এ ব্যাপারটি আর একবার খতিয়ে দেখার দাবি জানিয়েছিলেন৷ তবে ট্রাম্প যদি ফ্লিনকে ক্ষমা করে দেন, তাহলে বিচারবিভাগের হস্তক্ষেপের আর প্রয়োজন পড়বে না৷ মার্চ মাসে একবার ট্রাম্প বলেছিলেন, ফ্লিন পুরোপুরি ক্ষমা পাওয়ার যোগ্য৷

এপিবি/কেএম (এএফপি, রয়টার্স)

বিজ্ঞাপন