মাইকেল জ্যাকসনকে অনুকরণ করে তারকা সালিফ | অন্বেষণ | DW | 09.07.2021
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

মাইকেল জ্যাকসনকে অনুকরণ করে তারকা সালিফ

মার্কিন পপ তারকা মাইকেল জ্যাকসনের ‘মুনওয়াক' করার চেষ্টা অনেকেই করেছেন৷ কিন্তু এই নাচ নেচে ২৪ বছর বয়সি সেনেগাল বংশোদ্ভূত ফরাসি নাগরিক সালিফ গের মতো সফল কেউ হতে পারেননি৷

সালিফ গে এখন একজন ইনস্টাগ্রাম তারকা৷ সেখানে তার অনুসারীর সংখ্যা প্রায় ২৩ লাখ৷ এর মধ্যে মার্কিন রেসলার ও ফিল্মস্টার ডোয়েন জনসনও আছেন৷ তার জনপ্রিয়তা কাজে লাগাতে নামি ব্র্যান্ডরা তাকে মডেল বানাচ্ছে৷

সালিফ জানান, ‘‘তিন বছর বয়সে মাইকেল জ্যাকসনের ‘ব্যাড' গানের মিউজিক ভিডিও দেখার কথাটা আমার এখনও মনে আছে৷ আমার কাছে সেটা কার্টুনের চেয়েও বেশি ভালো লাগত৷ আমি তাকে নিয়ে খুব মোহিত ছিলাম৷’’

নিজের সফলতা নিয়ে মানুষ অবাক হলেও তিনি নন৷ ‘‘মানুষের কাছে এটা অবাক লাগতে পারে৷ তারা বলতে পারেন, এটা কে, সে কোথা থেকে এসেছে? কিন্তু আমি মনে করি, এই সাফল্যটা আমার প্রাপ্য৷ আমি এর জন্য অনেক কষ্ট করেছি৷ আমার কাছে এটা বিস্ময় নয়৷ বরং আমাকে নিয়ে আমি যা আশা করেছিলাম, তা অবশেষে হওয়ায় বিষয়টি অনেকটা স্বস্তির,’’ বলেন সালিফ৷

ভিডিও দেখুন 04:07

মাইকেল জ্যাকসনের মতো নেচে তারকা সালিফ

টেনিস তারকা নোভাক জোকোভিচের সঙ্গেও নেচেছেন সালিফ গে৷ ‘‘ওটা অনেক সম্মানের ছিল৷ তিনি একজন সত্যিকারের কিংবদন্তি৷ আমার যেটা সবচেয়ে বেশি অবাক লেগেছে সেটা হচ্ছে তিনি আমাকে চিনতেন, আমি কী করি, জানতেন৷ অনেকদিন ধরেই তিনি আমাকে চিনতেন- এটা আমার খুব ভালো লেগেছে,’’ জানান তিনি৷

সালিফ গে এখন মডেল হিসেবেও কাজ করেন৷ একটি ফরাসি ফ্যাশন ব্র্যান্ডের জন্য নিজের স্নিকারও ডিজাইন করেছেন৷ লোকজন এখন তাকে চেনে, রাস্তায় তার সঙ্গে কথা বলতে চায়৷ এ ব্যাপারে তিনি বলেন, ‘‘এটা আমার কাছে এখনও অদ্ভুত লাগে৷ মাঝেমধ্যে আমি আমাকে বলি- হ্যাঁ বিষয়টা এখন এমনই৷ তোমাকে চেনা যায়৷’’

বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে সালিফ গে এখন বেশ ভালোই আয় করছেন৷ এমনকি এখন তার একজন ম্যানেজারও আছে৷ ফলে এখন আর প্যারিসের রাস্তায় নেচে টাকা আয়ের প্রয়োজন পড়েনা৷ তিনি বলেন, ‘‘একবার আমি আমার ফোন হারিয়ে ফেলেছিলাম৷ পরে নতুন ফোন কেনার জন্য রাস্তায় নেচেছিলাম৷ এভাবে একদিনে আমি দেড় হাজার ইউরো আয় করেছিলাম৷ এরপর ঐ টাকা দিয়ে ফোন কিনেছিলাম৷ এক আর দুই ইউরোর মুদ্রা দিয়ে দাম পরিশোধ করেছিলাম৷ বিক্রেতা খুব অবাক হয়েছিলেন৷’’

তার এখন রাস্তায় নাচার প্রয়োজন নেই৷ কিন্তু সেটা না করে থাকতে পারেন না৷

বন্ধুদের সঙ্গে থাকতে তিনি খুব পছন্দ করেন৷ তারাও প্রায় অনেকটা তার মতোই নাচতে পারেন- কিন্তু তারা তার মতো সফলতা পাননি৷

সালিফ বলেন, ‘‘আমার কাছের বন্ধু ও মা-বাবা ছাড়া হয়ত আমি আজকের এই অবস্থানে আসতে পারতাম না৷ তাই আমি তাদের কাছে খুব কৃতজ্ঞ৷ তাদের সাথে সময় কাটাতে আমার খুব ভালো লাগে, কারণ এটা আমাকে শক্তি দেয় এবং আমি শক্তিশালী হয়ে উঠি৷ রাস্তা হচ্ছে আমার কাছে জীবনের স্কুল, রাস্তাতেই আমি আর্টিস্ট হয়ে উঠেছি৷’’

অনেকের কাছে সালিফ গে একজন তারকা, যাকে তারা ইন্টারনেটে দেখতে পান আবার রাস্তায়ও দেখতে পান, এবং সেটা টাকা খরচ না করেই৷

কাটিয়া লিয়র্শ/জেডএইচ

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়