মহাজোট গঠনের সিদ্ধান্ত বিভক্ত এসপিডির হাতে | বিশ্ব | DW | 04.02.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি

মহাজোট গঠনের সিদ্ধান্ত বিভক্ত এসপিডির হাতে

এসপিডিকে নিয়ে মহাজোট গঠনে এরইমধ্যে বিতর্ক শুরু হয়েছে৷ এখন দলটিকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে আঙ্গেলা ম্যার্কেলের সঙ্গে আসলেই তারা জোট গঠন করবে, নাকি তারা এ থেকে সরে আসার জন্য যে সমস্যা সৃষ্টি হবে, তার মোকাবিলা করতে প্রস্তুত?

১৯৯০ সালে জার্মানির পুনরেকত্রীকরণের পর সামাজিক গণতন্ত্রী দল এসপিডির জনপ্রিয়তা এতই বেড়ে গিয়েছিল যে তাদের সদস্য সংখ্যা প্রায় ১০ লাখে পৌঁছেছিল৷ অথচ বর্তমানে সেই সংখ্যা নেমে হয়েছে ৪ লাখ ৪০ হাজারে৷ তবে সংখ্যাটা কমে গেলেও এই সদস্যরাই কিন্তু জার্মানির ভবিষ্যত সরকার গঠনের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবেন৷ খ্রিষ্টীয় গণতন্ত্রী দল সিডিইউ, খ্রিষ্টীয় সামাজিক ইউনিয়ন সিএসইউ এবং এসপিডি স্থানীয় সময় রবিবার পর্যন্ত জোট গঠনের ব্যাপারে চূড়ান্ত আলোচনা শেষ করার সময় ঠিক করেছিল৷ যদিও দলীয় নেতারা নিজেদের কিছু মতপার্থক্য দূর করতে দু'দিন অতিরিক্ত সময় লাগতে পারে বলেই ধরে নিয়েছিলেন৷


কিন্তু মোদ্দা কথা হলো আলোচনা যাই হোক না কেন, এসপিডি দলের সদস্যদের মতামত ছাড়া জার্মানিতে এবার সরকার গঠন বা মহাজোট গঠনের সম্ভাবনা নেই৷ জোট গঠনের আলোচনা শেষ হলে জোটের চুক্তির একটি খসড়া এসপিডির প্রতিটি সদস্যের কাছে পাঠানো হবে, তাঁদের মতামত জানার জন্য৷ অর্থাৎ তাঁদের কেবল ‘হ্যাঁ' অথবা ‘না'-এর মাধ্যমে মতামত জানাতে হবে৷ এছাড়া ৬ই ফেব্রুয়ারির আগ পর্যন্ত যাঁরা সদস্য হয়েছেন , তাঁরাও এই হ্যাঁ/না ভোটে মতামত দিতে পারবেন৷ জানুয়ারিতে দলের সম্মেলনে মহাজোটের ব্যাপারে চূড়ান্ত আলোচনা শুরুর ভোটে খুব কম ব্যবধানে সবুজ সংকেত পেয়েছিল এসপিডি৷ আর তরুণ সদস্যরাও মোটেও জোট গঠনের পক্ষে নন৷ এসপিডির অনেক সদস্য এরই মধ্যে ভাবতে শুরু করেছেন, তাঁদের অনেক দাবি-দাওয়াই এই চুক্তিতে মানা হবে না৷ যেমন: শরণার্থীদের নিজ নিজ পরিবারবর্গকে জার্মানিতে নিয়ে আসার সুযোগ দেওয়ার পরিকল্পনা৷

এসপিডি এবং তার দলনেতার সমর্থন রেকর্ড হারে কমে গেছে

এসপিডি এবং তার দলনেতার সমর্থন রেকর্ড হারে কমে গেছে


২০১৭ সালের সেপ্টেম্বরের নির্বাচনে ভরাডুবির পরও এসপিডি নেতা মার্টিন শুলৎস ঠিক করেছিলেন, পার্লামেন্টে বিরোধী দল হিসেবেই প্রবেশ করবেন৷ এখন তিনি মহাজোটের অংশ হিসেবে পার্লামেন্টে বসার উদ্যোগ নিচ্ছেন, সিডিইউ, সিএসইউ-এর পর তৃতীয় দল হিসেবে৷ সাম্প্রতিক জনমত জরিপে দেখা গেছে এসপিডি এবং তার দলনেতার সমর্থন রেকর্ড হারে কমে গেছে, যা আগে কখনো হয়নি৷

মহাজোট গঠনের সম্ভাবনা ভেস্তে গেলে কী হবে?
মহাজোট গঠন সম্ভব না হলে জার্মান প্রেসিডেন্ট ফ্রাংক-ভাল্টার স্টাইনমায়ারকে পরবর্তী পদক্ষেপ নিতে হবে৷ সংবিধান অনুযায়ী, নতুন করে নির্বাচন ডাকতে হলে জার্মান প্রেসিডেন্টকে আগে চ্যান্সেলরের নাম প্রস্তাব করতে হবে৷ যেহেতু সেপ্টেম্বরে ম্যার্কেল বেশি ভোট পেয়েছেন, তাই তাঁকে প্রথমে সংসদে সাধারণ সংখ্যাগরিষ্ঠতার প্রমাণ দিতে হবে৷ অথবা প্রেসিডেন্ট সংসদ ভেঙে নতুন নির্বাচনের ঘোষণা করতে পারেন৷ সেক্ষেত্রে ৬০ দিনের মধ্যে নতুন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে৷


এপিবি/ডিজি (এপি, ডিপিএ, এএফপি, রয়টার্স)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন