মহাজোটের প্রার্থী চূড়ান্ত, ঐক্যফ্রন্টের ঘোষণা শনিবার | সমাজ সংস্কৃতি | DW | 07.12.2018
  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বাংলাদেশ

মহাজোটের প্রার্থী চূড়ান্ত, ঐক্যফ্রন্টের ঘোষণা শনিবার

আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোটের আসনবণ্টন শেষ হয়েছে৷ এতে নিজেদের জন্য ২৪০টি রেখে ৬০টি আসন ছেড়েছে শরিকদের৷ জাতীয় পার্টিকে দেয়া হচ্ছে ৪০-৪২টি আসন৷ অন্যদিকে, ২০৬ আসনে একক প্রার্থী ঘোষণা করেছে বিএনপি৷

ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী তালিকা ঘোষণা হবে শনিববার৷ আওয়ামী লীগ যে শরিকদের ৬০টি আসন ছেড়েছে, তাতে কি খুশি শরিকরা? এমন প্রশ্নের জবাবে দলটির নীতিনির্ধারণী ফোরাম সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ড. আব্দুর রাজ্জাক ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘হ্যাঁ, তাঁরা তো খুশিই৷ প্রধানমন্ত্রী তাঁদের সামলেছেন৷ তবে সবাই তো খুশি হবে না৷ অনেকেরই অনেক কথা থাকতে পারে৷ আমাদের এই সিদ্ধান্ত যদি কেউ না মানেন, তাহলে এর বাইরেও প্রার্থী দিতে পারেন৷ প্রধানমন্ত্রী অনেক ক্ষুব্ধ হয়েই শরিকদের এটা জানিয়ে দিয়েছেন৷ তবে আমি আশা করি, সবাই এটা মেনে নিয়েই নির্বাচনের মাঠে নামবেন৷''

বিদ্রোহীদের নিবৃত্ত করা প্রসঙ্গে জনাব রাজ্জাক বলেন, ‘‘আমরা তো আশা করছি সবাই নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করে নেবেন৷ যদি এখনই কেউ না প্রত্যাহার করেন, পরেও প্রত্যাহারের সুযোগ আছে৷ তাঁরা ঘোষণা দিয়ে লিফলেট দিয়ে সরে যেতে পারেন৷''

অডিও শুনুন 01:40
এখন লাইভ
01:40 মিনিট

‘সবাই তো খুশি হবে না, অনেকেরই অনেক কথা থাকতে পারে’

শুক্রবার দুপুরে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে মহাজোটের শরিকদের মধ্যে আসনবণ্টন নিয়ে ব্রিফিং করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের৷ তিনি জানান, বাকি ৬০টি আসনের মধ্যে ওয়ার্কার্স পার্টি ৫টি, জাসদ (ইনু) ৩টি, জাসদ (আম্বিয়া) ১টি, তরিকত ফেডারেশন ২টি এবং জাতীয় পার্টি (জেপি)-কে ২টি আসন দেওয়া হয়েছে৷ মহাজোটের অন্যতম শরিক জাতীয় পার্টিকে ৪০ থেকে ৪২টি আসন ছাড়ছে আওয়ামী লীগ৷ এর বাইরে মহাজোটের শরিক যুক্তফ্রন্টকে ৩টি আসন দেওয়া হয়েছে৷ বাকি যে ২/৪টি আসন এখনো অমীমাংসিত আছে, শুক্রবার রাতের মধ্যেই এর সমাধান হয়ে যাবে বলে আশা তাঁর৷

আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটের অন্যতম শরিক বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি পেয়েছে ৫টি আসন৷ এই পাঁচটিতে সন্তুষ্ট ওয়ার্কার্স পার্টি? প্রশ্ন ছিল দলটির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশার কাছে৷ জবাবে তিনি ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘না, আমরা সন্তুষ্ট নই৷ আমাদের কর্মীরা খুবই ক্ষুব্ধ৷ ন্যায্যতার ভিত্তিতে আসনবণ্টন হলে আমরা আরো বেশি আসন পেতাম৷ যা-ই হোক, তারপরও এই নির্বাচনটাকে আমরা অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক নির্বাচন হিসেবেই দেখছি, তাই আমাদের যেটা দেয়া হয়েছে সেটা মেনে নিয়েই আমরা নির্বাচনের মাঠে নামছি৷ ১৪ দলীয় জোটের শরিক হিসেবে আমরা জোটকে সহযোগিতা করে যাবো৷''

অডিও শুনুন 01:37
এখন লাইভ
01:37 মিনিট

‘প্রার্থিতা নিয়ে আমাদের মধ্যে কোনো সমস্যা নেই’

এদিকে যে ১৭টি আসনে আওয়ামী লীগের তরফ থেকে একাধিক প্রার্থী মনোনয়নপত্র নিয়েছিল, সেসব আসনে একক প্রার্থী চূড়ান্ত করেছে আওয়ামী লীগ৷ তাঁরা হলেন, শিরীন শারমিন চৌধুরী (রংপুর-৬), নিজাম উদ্দিন জলিল (জন) (নওগাঁ-৫), শহিদুল ইসলাম (বকুল) (নাটোর-১), বি এম কবিরুল হক (নড়াইল-১), ধীরেন্দ্র দেবনাথ শম্ভু (বরগুনা-১), আ স ম ফিরোজ (পটুয়াখালী-২), তানভির হাসান (ছোট মনির) (টাঙ্গাইল-২), আবুল কালাম আজাদ (জামালপুর-১), মোজাফফর হোসেন (জামালপুর-৫), সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম (কিশোরগঞ্জ-১), হাবিবুর রহমান মোল্লা (ঢাকা-৫), হাজী মো. সেলিম (ঢাকা-৭), আকবর হোসেন পাঠান (ফারুক) (ঢাকা-১৭), ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর (চাঁদপুর-১), নুরুল আমিন (চাঁদপুর-২), মুহাম্মদ শফিকুর রহমান (চাঁদপুর-৪) ও এ কে এম শাহজাহান কামাল (লক্ষ্মীপুর-৩)৷

জোটের চূড়ান্ত প্রার্থী ঘোষণা হলেও জাতীয় পার্টি অনেকটাই নীরব৷ বেশ কিছুদিনের অসুস্থতা শেষে বৃহস্পতিবার পার্টি অফিসে গিয়ে বেশ ক্ষোভের সঙ্গে হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ বক্তৃতা দিয়েছেন৷ সেখানে তিনি চিকিৎসা করতে দেয়া হচ্ছে না, এমন অভিযোগও তুলেছেন৷ তবে মহাজোটের শরিক হিসেবে আওয়ামী লীগ তাদের যে আসন দিচ্ছে তা নিয়ে কোনো কথা বলেননি তিনি৷ রওশন এরশাদও এ বিষয়ে একেবারে চুপ৷ তিনি কোনো কথাই বলছেন না৷

অডিও শুনুন 01:32
এখন লাইভ
01:32 মিনিট

‘ন্যায্যতার ভিত্তিতে আসনবণ্টন হলে আমরা আরো বেশি আসন পেতাম’

আওয়ামী লীগের মুখপাত্র ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘প্রধানমন্ত্রী তাঁদের জানিয়েছে দিয়েছেন, এই ৪০-৪২টি আসনের বাইরে যাঁদের মনোনয়ন দেয়া হয়েছে, তাঁরা যেন প্রত্যাহার করে নেন৷ সেটা যদি তাঁরা না করেন, না করতে পারেন৷ তাতে আমাদের কোনো সমস্যা নেই৷ তবে আমরা আশা করছি, তাঁরা প্রত্যাহার করে নেবেন৷''

এদিকে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ঐক্যফ্রন্টের ৩০০ আসনে প্রার্থী ঘোষণা করার কথা ছিল শুক্রবার বিকেল ৩টায় সাংবাদিক সম্মেলন করে৷ কিন্তু তার আগে দুপুরে প্রার্থী ঘোষণা অনিবার্য কারণে স্থগিত করা হয়েছে৷ বৃহস্পতিবার রাতে ঐক্যফ্রন্টের স্টিয়ারিং কমিটির বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়, আজ বিকেল ৩টায় তাঁরা ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী ঘোষণা করবে৷ দুপুরে সিদ্ধান্তটি বাতিল করা হয়৷ এর আগে বৃহস্পতিবার রাতে বিএনপি তাদের প্রার্থী ঘোষণা করতে চেয়েছিল সেটিও ঐক্যফ্রন্টের আপত্তির কারণে বাতিল করা হয়৷ পরে বিকেল ৫টার দিকে হুট করেই বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ২০৬ আসনে বিএনপির একক প্রার্থী ঘোষণা করেন৷ ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থিতা শনিবার ঘোষণা করা হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি৷

অডিও শুনুন 01:16
এখন লাইভ
01:16 মিনিট

‘কে কতটা আসন পেলো সেটা এই মুহূর্তে গুরুত্বপূর্ণ না’

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘প্রার্থিতা নিয়ে আমাদের মধ্যে কোনো সমস্যা নেই৷ হাতে অনেক সময় আছে, সবাই দলের নির্দেশেই চলবেন৷'' সবগুলো আসনে একাধিক প্রার্থী আছে? একজনকে রেখে অন্যদের বসিয়ে দেয়া কতটা চ্যালেঞ্জিং? জবাবে জনাব আহমেদ বলেন, ‘‘এটা কোনো চ্যালেঞ্জই না৷ সবকিছু ঠিক আছে৷ তবে নির্বাচন কমিশনের আচরণ এখনও নিরপেক্ষ না৷ তারা মনে হচ্ছে সরকারি দলের নির্দেশেই কাজ করছে৷ তারা নিরপেক্ষ আচরণ করলে আমরা বিপুল ভোটে জয়ী হবো৷''

ঐক্যফ্রন্টের শরিকদের সঙ্গে বিএনপির সমঝোতা এখন কোন পর্যায়ে জানতে চাইলে গণফোরামের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মহসিন মন্টু ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘সবকিছু চূড়ান্ত হয়ে গেছে৷ এখন আর কোনো সমস্যা নেই৷ সবাইকে তো আর খুশি করা যাবে না৷ তারপরও একটা সমঝোতায় আমরা পৌঁছেছি৷ শনিবার আমরা ঐক্যফ্রন্টের পক্ষ থেকে ৩০০ আসনে প্রার্থী ঘোষণা করব৷ আসলে কে কতটা আসন পেলো সেটা এই মুহূর্তে গুরুত্বপূর্ণ না৷ আমরা চেয়েছিলাম একটা জাতীয় ঐক্য প্রতিষ্ঠা করতে, সেটা করতে আমরা সক্ষম হয়েছি৷ এটাই মূল কথা৷''

প্রসঙ্গত, গত ৮ নভেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়৷ ওই তফসিল অনুযায়ী, ২৩ ডিসেম্বর ভোটের দিন নির্ধারিত হয়৷ পরে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের আবেদনের ভিত্তিতে ২৩ ডিসেম্বরের পরিবর্তে এক সপ্তাহ পিছিয়ে ৩০ ডিসেম্বর ভোটের তারিখ নির্ধারণ করা হয়৷ পুনঃতফসিল অনুযায়ী প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমার শেষ তারিখ ছিল ২৮ নভেম্বর, মনোনয়নপত্র বাছাই শেষ হয়েছে ২ ডিসেম্বর, মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ৯ ডিসেম্বর এবং ভোট গ্রহণের তারিখ ৩০ ডিসেম্বর নির্ধারণ করা হয়েছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়

বিজ্ঞাপন