মহাকাশ প্রযুক্তির কল্যাণে নগর পরিবহণে বিপ্লব আসতে পারে | অন্বেষণ | DW | 03.05.2022

ডয়চে ভেলের নতুন ওয়েবসাইট ভিজিট করুন

dw.com এর বেটা সংস্করণ ভিজিট করুন৷ আমাদের কাজ এখনো শেষ হয়নি! আপনার মতামত সাইটটিকে আরো সমৃদ্ধ করতে পারে৷

  1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages
বিজ্ঞাপন

অন্বেষণ

মহাকাশ প্রযুক্তির কল্যাণে নগর পরিবহণে বিপ্লব আসতে পারে

নগর পরিবহণের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে মহাকাশ প্রযুক্তি কাজে লাগানো যেতে পারে৷ প্রচলিত ধারণার বাইরে সার্বিক সমাধানসূত্র হিসেবে বেশ কয়েকটি প্রকল্প পরীক্ষামূলক পর্যায়ে রয়েছে৷

নগর পরিবহণের উন্নতির লক্ষ্যে জার্মানির আপ বাস নামের প্রকল্পের আওতায় একই যানকে কখনো শূন্যে, কখনোবা মাটির উপর চালাতে গেলে এক কাপলিংয়ের মাধ্যমে প্ল্যাটফর্ম ও গন্ডোলা সংযুক্ত করা হয়, যেটি আসলে মহাকাশে স্যাটেলাইট মডিউলের জন্য তৈরি করা হয়েছিল৷ আখেন প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের টোবিয়াস মাইনার্ট বিষয়টি ব্যাখ্যা করে বলেন, ‘‘এটা স্যাটেলাইট প্রযুক্তির গুরুত্বপূর্ণ অংশ, এটাকে ইন্টেলিজেন্ট স্পেস কাপলিং বলা হয়৷ ইন্টারফেসের সঙ্গে আমরা চারটি কাপলিং করতে পারি, যে কারণে বিষয়টি একেবারে অনবদ্য৷ ভেতরের অংশে একটি রিং আছে, যা মেকানিকাল ইন্টারফেস৷ সেটির মাধ্যমে আমরা বিভিন্ন মডিউল সংযুক্ত করি৷ ছিদ্রসহ এসব পিনের মাধ্যমে বিদ্যুৎ পাঠানো হয়৷ মাঝের অংশে ডেটা ট্রান্সমিশন করা হয়৷ বাইরের অংশের তামার রিং উত্তাপ বহন করে৷''

ক্যাবল কারের সঙ্গে স্কেটবোর্ড নামে পরিচিত চাকাসহ প্ল্যাটফর্ম প্রয়োজন অনুযায়ী যুক্ত করার ক্ষেত্রে স্পেস কাপলিং আদর্শ পদ্ধতি৷ বাস্তবে একাধিক পরীক্ষায় তার প্রমাণ পাওয়া গেছে৷ আপ বাস আরো উন্নত করতে জোরালো উদ্যোগ চলছে৷ এই কনসেপ্ট নগর পরিবহণের ক্ষেত্রে আমূল পরিবর্তন আনতে পারে৷

এই যান ইউরোপের বড় শহরগুলির পরিবেশের উন্নতির ক্ষেত্রে অবদান রাখতে পারে৷ আখেন প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের কাই উভে শ্র্যোডার বলেন, ‘‘পরিবহণের মূল স্রোত এক স্তর উপরে আনতে পারলে কোনো অসুবিধা ছাড়াই নীচের পরিবহণের স্তর আবার মানুষের জন্য ছেড়ে দেওয়া যাবে৷ কেবেল কারটিকে বাস হিসেবেও চালানো যায় বলে প্রয়োজনমতো ফাইন টিউনিংও করা যায়৷ আমার মতে, এটা গণপরিবহণ ব্যবস্থাকে আরও আকর্ষণীয় করার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ চাবিকাঠি৷ কোনো কিছু নিষিদ্ধ করে বা বাধানিষেধের মাধ্যমে বাধ্য করার প্রয়োজন নেই৷''

ভিডিও দেখুন 03:34

পরিবহণে বিপ্লবের সম্ভাবনা

ফ্রান্সের সিট্রোয়েন গাড়ি কোম্পানি এই স্কেটবোর্ড দেখে প্রেরণা পেয়েছে৷ গণপরিবহণের এক বিশেষ রোমাঞ্চকর রূপ দিতে চায় এই কোম্পানি৷ এর আওতায় কোনো ক্রেতা চার চাকার প্ল্যাটফর্ম অর্ডার দিতে পারবেন, যেটির উপরে নানা ধরনের খোলস থাকতে পারে৷ যেমন একটি মিনিবাসে ফিটনেসের বন্দোবস্ত থাকবে৷

অন্য একটি খোলসের মধ্যে বিলাসবহুল এক লাউঞ্জ থাকবে, যার ফলে আরামদায়ক পরিবেশে শহরের মধ্য দিয়ে যাওয়া যাবে৷ কোম্পানির প্রধান ভ্যাঁসঁ কোবে বলেন, ‘‘শহরের চাবিকাঠি আপনাকে ফেরত দেওয়া হবে৷ খেয়াল রাখবেন, পরিবহণের সময় কোয়ালিটি টাইম, আপনার জন্য মূল্যবান৷''

ইটালডিজাইন নামের কোম্পানিও এয়ারবাসের সঙ্গে হাত মিলিয়ে স্কেটবোর্ডের এই কনসেপ্টের ভিত্তিতে পরিবহণের স্বপ্ন দেখছে৷ এর আওতায় যাত্রীবাহী এক কেবিন কখনো কোয়াডকপ্টারে ঝুলে পড়ে আকাশে উড়বে, কখনো বা চার চাকার প্ল্যাটফর্মের উপর নেমে গাড়ি হয়ে উঠবে৷

এই প্রকল্পের নাম পপআপ, যা বড় শহরে ব্যক্তিগত পরিবহণের নতুন মাত্রা যোগ করতে চায়৷ কিন্তু মোবিলিটির এই রূপও কাপলিং ছাড়া কাজ করবে না৷ আখেন শহরে মহাকাশের জন্য তৈরি এই কাপলিং সেখানেও প্রয়োজন৷ কাই উভে শ্র্যোডার বলেন, ‘‘এই প্লাগ ট্রান্সমডিউলার পরিবহণের চাবিকাঠি৷ আমি এমন অনেক ভিডিও দেখেছি, যেখানে কোয়াডকপ্টারের সঙ্গে গাড়ি যুক্ত করে উড়ে যায়৷ তখন সব সময়ে পিক্সি ডাস্ট আসে৷ সেটা একটা সমস্যা৷''

একবার আকাশে উড়লে কোনো এক সময়ে অবতরণও করতে হয়৷ তাই তৃতীয় মাত্রার এই পরিবহণের জমির সঙ্গেও সংযোগের প্রয়োজন৷ তবে এটা ঠিক যে, ভবিষ্যতে শহরের মোবিলিটি অবশ্যই আকাশ ছুঁতে চলেছে৷

গেয়ারহার্ড সনলাইটনার/এসবি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক